মুগডালের খিচুড়ি রাঁধুন সহজ রেসিপিতে

পাঁচফোঁড়নে মুগডালের খিচুড়ি

Mugdaler khichuri - shajgoj.com

খিচুড়ি খেতে পছন্দ করে না, এমন বাঙালী খুঁজে পাওয়া যাবে না! যেদিন বাসায় খিচুড়ি রান্না হয়, পরিবারের ছোট বড় সবাই মজা করে খায়। জায়গাভেদে খিচুড়ির বিভিন্ন আঞ্চলিক রূপ দেখা যায়। একটু ইতিহাস দিয়ে আজকে শুরু করা যাক! গ্রীক দূত সেলুকাস তার লেখনীতে উল্লেখ করেছেন ভারতীয় উপমহাদেশে চালের সাথে ডাল মেশানো খাবার খুবই জনপ্রিয় ছিলো। ১৫ শতকে ভারতীয় উপমহাদেশে ঘুরতে আসা রাশিয়ান পর্যটক আফনাসিই নিকতিন খিচুড়ির কথা তার লেখায় বর্ণনা করেছেন। মুঘল রান্নাঘরে সম্রাট জাহাঙ্গীরের প্রিয় বিশেষ ধরনের খিচু়ড়ি তৈরি করা হতো মুগডাল, পেস্তা ও কিসমিস দিয়ে। তাহলে বুঝতেই পারছেন, খিচুড়ির সাথে বাঙালীর সম্পর্ক সেই আদিকাল থেকেই! বাসায় তো সবসময় একই ধাঁচে খিচুড়ি রান্না হয়। স্বাদে একটু ভিন্নতা আনতে পাঁচফোঁড়নে মুগডালের খিচুড়ি ট্রাই করতে পারেন। ফোঁড়নের সাথে মুগডালের মেলবন্ধনে খিচুড়িতে খুব সুন্দর ফ্লেবার আসে। চলুন তাহলে দেখে নেই এই খিচুড়ির পুরো রেসিপিটি!

পাঁচ ফোঁড়নে মুগডালের খিচুড়ি রান্নার পদ্ধতি

উপকরণ

পোলাওয়ের চাল- ২কাপ
• ভাজা মুগডাল- ১কাপ
• পেঁয়াজ কুঁচি- ২টেবিল চামচ
• কাঁচামরিচ ফালি- ৫-৭টি
• পাঁচফোঁড়ন- ১টেবিল চামচ
• জিরা গুঁড়ো- ১চা চামচ
• ধনিয়া গুঁড়ো- ১/২চা চামচ
• হলুদ গুঁড়ো- ১চা চামচ
আদা বাটা- ২চা চামচ
• রসুন বাটা- ১চা চামচ
• তেজপাতা- ২টি
• লবণ- পরিমাণমতো
• তেল- ২টেবিল চামচ
• ঘি- ২চা চামচ
• গরম পানি– ৬কাপ
• পেঁয়াজ বেরেস্তা- সাজানোর জন্য

প্রস্তুত প্রণালী

১) প্রথমে একটি বড় পাতিলে তেল গরম করতে দিন। হালকা একটু গরম হলে তাতে পাঁচফোঁড়ন ও তেজপাতা দিতে হবে।

২) এবার ঐ তেলে একে একে পেঁয়াজ কুঁচি, কাঁচামরিচ ফালি, পোলাওয়ের চাল ও মুগডাল দিয়ে ভেজে নিন।

৩) তারপর আদা বাটা ও রসুন বাটা দিয়ে ভালোভাবে কষিয়ে নিন।

৪) কষানোর সময় হলুদ গুঁড়ো, জিরা গুঁড়ো, লবণ ও ধনিয়া গুঁড়ো দিয়ে দিন। একটু পানি দিয়ে মাঝারী আঁচে সব মসলাগুলো কষিয়ে নিতে হবে।

৫) এবার পরিমাণমতো গরম পানি দিয়ে দিন যাতে চাল ও ডাল ভালোভাবে সেদ্ধ হয়। ঢাকনা দিয়ে ঢেকে রান্না করতে হবে।

৬) ১৫-২০মিনিট অপেক্ষা করে ঢাকনা খুলে দেখে নিবেন যে পানি টেনে গেছে কি না। সামান্য পানি থাকলে অল্প আঁচে দমে রাখতে হবে।

৭) দমে রাখার আগে উপর থেকে ঘি ছড়িয়ে দিলে খিচুড়িতে খুব সুন্দর ফ্লেবার আসবে। ৫মিনিট দমে রেখে চুলা বন্ধ করে দিন, এতে খিচুড়ি ঝুরঝুরে হবে।

ব্যস, গরম গরম খিচুড়ি রেডি! এবার উপরে পেঁয়াজের বেরেস্তা ছড়িয়ে পরিবেশন করার পালা। খিচুড়ি সহজপাচ্য হওয়ায় সব বয়সের মানুষের জন্য উপযোগী। আসলে খিচুড়ি খাওয়ার জন্য বাঙ্গালীদের কোনো কারণ বা অকেশন লাগে না! তো, হাতের কাছে উপকরণগুলো থাকলে আজই ট্রাই করে ফেলুন দারুণ স্বাদের পাঁচফোঁড়নে মুগডালের খিচুড়ি।

 

ছবি- সংগৃহীত: সাজগোজ; ইউটিউব চ্যানেল রাবিয়াস হাউজ

2 I like it
0 I don't like it
পরবর্তী পোস্ট লোড করা হচ্ছে...