সিলেটের বিছানাকান্দি | ২ দিনেই ঘুরে আসুন ব্যস্ত জীবনে স্বস্তি আনতে সিলেটের বিছানাকান্দি | ২ দিনেই ঘুরে আসুন ব্যস্ত জীবনে স্বস্তি আনতে

সিলেটের বিছানাকান্দি | ২ দিনেই ঘুরে আসুন ব্যস্ত জীবনে স্বস্তি আনতে

লিখেছেন - তাহসিন অর্না জুলাই ১১, ২০১৯

প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ঘেরা সিলেট। সিলেটে বেড়ানোর জন্য এবং প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপভোগ করার মতো অনেক দর্শনীয় স্থান রয়েছে। যারা একইসাথে ভ্রমণপিপাসু এবং প্রকৃতি প্রেমী তাদের জন্য সবচেয়ে পছন্দনীয় জায়গা হচ্ছে সিলেট। বিছানাকান্দি সিলেটের পছন্দনীয় জায়গাগুলোর মধ্যে অন্যতম। আজকে আমরা আপনাদের জানাবো সিলেটের পাথর কোয়ারী খ্যাত বিছানাকান্দি সম্পর্কে।

সিলেটের বিছানাকান্দি পরিচিতি

সিলেটের বিছানাকান্দির প্রাকৃতিক শোভা- shajgoj.com

সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার রুস্তমপুর ইউনিয়নে অবস্থিত বিছানাকান্দি। বিছানাকান্দিকে সিলেটের পাথর কোয়ারী বলা হয়। বিছানাকান্দি ছাড়া জাফলংকেও পাথর কোয়ারী বলা হয়। কিন্তু আজকাল অনিয়ন্ত্রিতভাবে পাথর উত্তোলনের কারণে জাফলং আর আগের মতো নেই। কিন্তু বিছানাকান্দি ঠিক আগের মতোই তার সৌন্দর্য ধরে রেখেছে।

বিছানাকান্দি ইন্ডিয়া এবং বাংলাদেশের বর্ডারে অবস্থিত। মেঘালয়ের পাহাড় থেকে স্বচ্ছ পানি এসে ছোট বড় পাথরের উপর পড়ে সৃষ্টি করে এক মনোরম পরিবেশ। প্রকৃতি প্রেমিদের জন্য খুবই আকর্ষণীয় স্থান এই বিছানাকান্দি। পর্যটকদের কাছে বিছানাকান্দির পাথরের উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া স্বচ্ছ পানি এবং পাহাড়ের উপর মেঘের আনাগোনাই হচ্ছে মূল আকর্ষন। পানি, পাহাড়, পাথর, বাতাস এবং আকাশ নিয়েই যেন প্রকৃতির সৌন্দর্যের মায়াজালে বাধা এই বিছানাকান্দি। মনোরম পরিবেশে মনে হবে যেন গা এলিয়ে দেই প্রকৃতির বুকে। ব্যস্ততম শহরের জঞ্জালময় জীবনে নেমে আসবে প্রশান্তি। এতোটাই প্রশান্তি যে আপনাকে বারবার টেনে আনবে অনাবিল সৌন্দর্যের এই বিছানাকান্দিতে।

কখন যাবেন বিছানাকান্দি?

বর্ষায় বিছানাকান্দি - shajgoj.com

যে কোন সময়ই যেতে পারেন বিছানাকান্দিতে। তবে শীতকালে না যাওয়াই ভালো। এসময় পানি তুলনামুলক কম থাকে তাই বিছানাকান্দি তার রূপ হারিয়ে ফেলে। কিন্তু বর্ষাকাল হচ্ছে বিছানাকান্দিতে যাওয়ার সবচেয়ে উপযুক্ত সময়। এসময় চারিদিকে পানি থাকে এবং প্রকৃতি তার অপরুপ সৌন্দর্য ফিরে পায়। তাই বর্ষাকাল বিছানাকান্দি যাওয়ার সবচেয়ে উপযুক্ত সময়।

কিভাবে যাবেন?

দেশের যেকোনো জায়গা থেকে বিছানাকান্দি যেতে চাইলে প্রথমেই আপনাকে সিলেট যেতে হবে। দেশের যেকোনো স্থান থেকে বাস, ট্রেন কিংবা নিজস্ব গাড়ি ইত্যাদির মাধ্যমে আপনি যেতে পারেন বিছানাকান্দি।

ঢাকা থেকে কিভাবে যাবেন?

ঢাকা থেকে প্রথমে আপনাকে সিলেট যেতে হবে। সেজন্য আপনি বাস, ট্রেন কিংবা প্লেনে করেও যেতে পারেন। আর নিজস্ব গাড়ি থাকলেতো আর কথাই নেই। সিলেটে পৌঁছে প্রথমে আম্বরখানা থেকে সি এন জি কিংবা অটো দিয়ে যাবেন হাদার বাজার। হাদার বাজার থেকে মাত্র ২০ মিনিটের দুরত্বেই রয়েছে বিছানাকান্দি। হাদার বাজার থেকে নৌকা ঠিক করে তাতে করেই একেবারেই পৌঁছে যাবেন প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ঘেরা বিছানাকান্দিতে।

যাতায়াত খরচ

ঢাকা থেকে ফকিরাপুর, সায়দাবাদমহাখালী বাস স্টেশন থেকে এনা, এস আলম, শ্যামলী, সৌদিয়া এবং গ্রীন লাইন পরিবহনে এসি বাস দিয়ে যাতায়াত করতে পারবেন। সেক্ষেত্রে ভাড়া হবে ৭০০ থেকে ১২০০ টাকার মধ্যে।  নন এসি বাসে ৪৫০ থেকে ৫০০ টাকা ভাড়ায় পেয়ে যাবেন।

ট্রেনে যেতে চাইলে কমলাপুর কিংবা বিমানবন্দর রেলওয়ে স্টেশন থেকে জয়ন্তিকা, উপবন, কালোনী এবং পারাবত এক্সপ্রেস করে যেতে পারেন।

এছাড়াও ঢাকা থেকে আকাশ পথেও যেতে পারেন। খুব অল্প সময়ে পৌঁছে যাবেন আকাশপথে গেলে।  শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে রিজেন্ট, ইউনাইটেড, নভো, ইউএস বাংলা এয়ার অথবা বাংলাদেশ বিমানে যেতে পারেন। সেক্ষেত্রে আপনার খরচ পরতে পারে ৩০০০ থেকে ৭০০০ পর্যন্ত।

ঢাকার বাহিরে যেকোনো জায়গা থেকে বাস কিংবা ট্রেনে করে যেতে পারেন সিলেট বিছানাকান্দিতে।

কোথায় থাকবেন?

বিছানাকান্দি থেকে সিলেটের দুরত্ব বেশি না। বিছানাকান্দিতে থাকার তেমন সুব্যবস্থা নেই। তাই সারাদিন ঘুরাঘুরির পর সিলেটে গিয়ে ভালো কোন হোটেল কিংবা রিসোর্টে থাকতে পারেন। সিলেটে থাকার জন্য ভালো হোটেল আছে। কম খরচে সিলেটের লালা বাজার এবং দারোগা রোডে থাকার জন্য খুব ভালো হোটেল পেয়ে যাবেন।

কি খাবেন?

বিছানাকান্দিতে খাওয়ার তেমন কোন ব্যবস্থা নেই। বাহির থেকে খাবার নিয়ে আসতে পারেন। হাদার বাজারে কিছু লোকাল খাবারের হোটেল আছে এসব হোটেলে গিয়ে খেতে পারেন। তাছাড়া সিলেটে ভালো রেস্টুরেন্ট আছে। আপনি চাইলে বিছানাকান্দিতে ঘুরে সিলেটে গিয়েও খেতে পারেন। শুকনা খাবার এবং পানি সাথে নিয়ে যেতে পারেন।

বিছানাকান্দিতে ভ্রমণের কিছু টিপস

দলবদ্ধ হয়ে যান সিলেটের বিছানাকান্দিতে - shajgoj.com

  • নৌকা ও সি এন জি ভাড়া করার সময় ভালো করে দরদাম করুন।
  • পারলে দলবদ্ধ হয়ে যান তাহলে খরচ কম হবে।
  • স্থানিয়দের সাথে ভালো ব্যবহার করুন, তাদের সাথে বিনয়ী থাকার চেষ্টা করুন।
  • পরিবেশের ক্ষয়ক্ষতি হয় এমন কিছু করবেন না।

বিছানাকান্দিতে ভ্রমণের কিছু সতর্কতা

  • বিছানাকান্দিতে চারদিকে অনেক পাথর। তাই সাবধানে হাঁটা চলা করুন।
  • পানিতে নামার আগে খুব সাবধানতা অবলম্বন করুন।
  • বর্ষাকালে পানির স্রোত খুব বেশি থাকে, এসময় পানিতে নামার আগে খুব সাবধান থাকুন।
  • সন্ধার আগেই শহরে ফিরে আসার চেষ্টা করুন।

প্রকৃতির অপরিসীম সৌন্দর্যের খুব কাছে যেতে চাইলে অবশ্যই ঘুরে আসবেন বিছানাকান্দি। আপনার ব্যস্ততম জঞ্জালময় জীবনে নেমে আসবে প্রশান্তি। পরিবার কিংবা বন্ধুদের নিয়ে ঘুরে আসতে পারেন পাথর, পানি এবং পাহাড়ের মায়ায় জড়ানো বিছানাকান্দিতে!

 

ছবি- সংগৃহীত: সোনালীনিউজ.কম, নিশাত তাসনিম প্রিমা