বর্ষাকালের জুতা | রেইনি সিজনের জন্য ৩ ধরনের সুজ বর্ষাকালের জুতা | রেইনি সিজনের জন্য ৩ ধরনের সুজ

বর্ষাকালের জুতা | রেইনি সিজনের জন্য ৩ ধরনের সুজ

লিখেছেন - শ্রেষ্ঠা জুলাই ১৫, ২০১৮

“পাগলা হাওয়ার বাদল-দিনে,পাগল আমার মন জেগে ওঠে।”- বর্ষা মানেই একটা আনন্দের দোলা, তাই না? বৃষ্টি পছন্দ করে না এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া দুষ্কর। গরম কমে গিয়ে এক মনোমুগ্ধকর পরিবেশের সৃষ্টি হয়। তবে বৃষ্টি স্বস্তি দেয়ার পাশাপাশি সৃষ্টি করে কিছু সমস্যারও। এর মধ্যে যে সমস্যা বেশি দেখা যায় তা হলো জুতা নিয়ে। কাদা, মাটি, পানি জমে থাকা রাস্তায়  জুতা নিয়ে সমস্যায় পড়তে হচ্ছে প্রতিদিন। কারণ কাদা লেগে সুন্দর জুতাখানি নষ্ট হওয়ার শতভাগ সম্ভাবনা থেকে যায়! তাই বর্ষাকালের জুতা কেমন হলে ভালো হয় আর কি করে থাকা যায় নিরাপদ ও ফ্যাশনেবল তা নিয়েই আজ আমরা কথা বলবো।

বর্ষাকালের জুতা নিয়ে টিপস

বৃষ্টির সময় জুতা কিনতে গেলে একটু দেখে বুঝে কিনতে হবে। সামনে খোলা ডিজাইন এড়িয়ে চলাই ভালো। কাদা মাটি বৃষ্টির পানি থেকে পায়ে ফাঙ্গাস (fungus), র‍্যাশ (rash), ইচিং (itching)– এমন বিভিন্ন স্কিন (skin) প্রবলেম হতে পারে। তাই এ সময় পা ঢেকে থাকে এমন জুতা ব্যবহার করাই ভালো। চলুন এবার বর্ষাকালের উপোযোগী ৩ ধরনের জুতা নিয়ে জেনে নেই!

১) ওয়াটারপ্রুফ জুতা (waterproof shoe)

বর্ষাকালের জন্য ওয়াটারপ্রুফ জুতা - shajgoj.com

মার্কেট-এ কিছু ওয়াটারপ্রুফ জুতা পাওয়া যায় যেগুলো বিশেষভাবে বর্ষায় ব্যবহারের জন্য করা হয়েছে। এগুলো পানিতে ভিজে না। পানি বা কাদা মাটি লাগলে সহজেই মুছে ফেলা যায়। এ ধরনের জুতাগুলো পাম্প (pump), স্নিকার (sneakers shoe) ডিজাইন-এর হয়। এছাড়া প্লাসটিক-এর জুতাগুলাও ভালো হবে এই সময়ে। তবে তা অবশ্যই ভালো দোকান ও কোয়ালিটি দেখে কিনতে হবে। না হলে ছিঁড়ে যেতে পারে। এ ধরনের জুতাগুলোর অনেক ডিজাইন ভ্যারাইটিজ-ও আছে।

২) আউট অফ সোল ( out of soul)

বর্ষাকালের জুতা হিসেবে জিগজ্যাগ সোল - shajgoj.com

এটাকে সবাই জুতার তলা হিসেবে চিনে। বর্ষার সময় প্লেন সোল ব্যবহার না করাই ভালো। কাদা-মাটি সহজে পরিষ্কার হয় না। জিগজ্যাগ সোল-গুলো কর্দমাক্ত এবড়োথেবড়ো রাস্তাগুলোতে চলাচলে খুবই কমফরটেবল (comfortable)।

 

৩) হিলস (Heels)

বর্ষাকালের জুতা হিসেবে ব্যালেন্স হিল ব্যবহার - shajgoj.com

মিডিয়াম বা ব্যালেন্স হিল (balance heel)-গুলো এই সময় এর জন্য খুবই পারফেক্ট। এই হিল-গুলো হাফ ইঞ্চির বেশি হয় না আর  আরাম।

দুটো ব্যাপার অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে-

  • বর্ষার সময় পেন্সিল হিল, বড় হিল, স্যন্ডেল, চপ্পল- এগুলো ব্যবহার না করাই ভালো। কারণ আমাদের শহরে পানি জমে একাকার হয়ে যায় রাস্তাগুলোতে। কখনো হাঁটু পানি তো কখনো কোমর পানি! পানির জন্য রাস্তাঘাট ভেঙে নষ্ট হয়ে যায়, গর্তের সৃষ্টি হয়। তাই পড়ে গিয়ে দুর্ঘটনার শিকার হওয়ার সমূহ সম্ভাবনা থাকে!
  • জুতা অবশ্যই দোকান দেখে বুঝে কিনতে হবে। অনেক সময় জুতা থেকে পায়ে ইনফেকশন (infection) বা অন্যান্য সমস্যা হতে পারে। এসব ওয়াটারপ্রুফ জুতাগুলো বাটা, এপেক্স, বে, ক্রিসেন্ট এসব শো-রুম এ পাওয়া যাবে। ভালো কোয়ালিটি-এর জুতা কেনাটা এজন্যই খুব জরুরী।

এখন বৃষ্টির কোন ঠিক-ঠিকানা নেই। যখন তখন নেমে আসে। বিশেষ করে ওয়ার্কিং টাইম-এ হলে প্রায় সবাই সমস্যায় পড়ে। এইতো এমন কিছু তথ্য জানা থাকলে প্রতিদিন চলাফেরার জন্য কেমন জুতা সিলেক্ট করতে হবে সে অনুযায়ী তা কিনতে সুবিধা হবে। তো বাদল ঝড় বৃষ্টি যাই থাকুক না কেন, থাকুন নিরাপদ ও ফ্যাশনেবল। আর ঐ যে সবসময় বলি-

‘’DO WELL,

LIVE WELL & DRESS REALLY WELL.’’

 

ছবি- সংগৃহীত: ইন্ডিয়ান ড্রেসেস.কম