অলস মেয়েদের জন্য ইজি ওয়ার্কআউট | ৬টি ব্যায়ামের মাধ্যমে থাকুন ফিট!

অলস মেয়েদের জন্য ইজি ওয়ার্কআউট | ৬টি ব্যায়ামের মাধ্যমে থাকুন ফিট!

অলস মেয়েদের জন্য ইজি ওয়ার্কআউট

খুব সহজ, সোফা বা চেয়ার যেটাতেই বসে বা শুয়ে অথবা আধশোয়া হয়ে আছেন সেখান থেকে উঠুন। রানিং শু পরুন, বাইরে গিয়ে এক ঘণ্টা জগিং করে ফিরে আসুন। এক্সারসাইজ খতম! ইসস… বললেই হলো? অলস মেয়ের জন্য ওয়ার্কআউট নিয়ে কথা বলতে গেলে আসলে এমন কথাই শুনতে হবে। লেখাগুলো পড়েই যারা টায়ার্ড হয়ে গেছেন তাদের জন্য সহমর্মিতা। আপনারা হলেন আমার সিস্টার ইন আর্মস (sister in arms)। আমি সবসময়ই চেষ্টা করি ডায়েট-এর যে অংশে প্রতিদিন বিশ মিনিট এক্সারসাইজ করার কথা বলা থাকে সেটা সযত্নে এড়িয়ে যেতে। তারপর ডায়েট ট্রাই করে মনে মনে বলি- “আরেহ… কোন কাজই হয় না এসবে!” তো, আজ আমারই মতো অলস মেয়েদের জন্য এমন কিছু এক্সারসাইজ খুঁজে বের করলাম যাতে আমাদের টিভি সেট বা কাউচ থেকে খুব বেশি দূরে না যেতে হয় আর আরাম করেই রোজকার ব্যায়ামটা করে নেওয়া যায়। আসুন দেখে নেই, অলস মেয়েদের জন্য ইজি ওয়ার্কআউট কীভাবে করা যায়।

অলস মেয়েদের জন্য ইজি ওয়ার্কআউট 

১) সিঙ্গেল লেগ ব্রিজ

এই এক্সারসাইজ-টা আপনার উরুর ফ্যাট কমানো আর হিপ মাসল পোক্ত করার জন্য খুবই উপকারী। রেগুলার এটা করলে আপনার পেটের মাসল শক্ত হবে, যার ফলে কয়েক দিন পর পর ভুঁড়ি হয়ে যাবে না আর কোমরের দুই পাশে মেদ জমবে না। শুধু মনে রাখবেন কাঁধ পর্যন্ত পুরো অংশটাই যেন মেঝে বা বিছানা থেকে উঠে। প্রথম প্রথম পাঁচ সেকেন্ড করে ধীরে ধীরে সময় বাড়ান। এভাবে দশ বার করুন। এই হলো অলস মেয়ের জন্য ওয়ার্কআউট করার একটি উপায়।

অলস মেয়েদের জন্য ইজি ওয়ার্কআউট সিঙ্গেল লেগ ব্রিজ

২) লেগ রেইজেস

এবার অলস মেয়ের জন্য ওয়ার্কআউট করার আরেকটি উপায় বলি। এটাও বিছানায় শুয়েই করতে পারবেন। শুধু দুটো পা বিছানা থেকে ৪৫ ডিগ্রি আঙ্গেল-এ উঠিয়ে যতক্ষণ পারেন (পেটের মাসলে জ্বলুনি শুরু না হওয়া পর্যন্ত) ধরে রাখুন। পুরো ৪৫ ডিগ্রি না পারলে এক ফিট ওঠানোর চেষ্টা করুন। এটা আপনার পেটের চর্বি ম্যাজিক-এর মতো কমিয়ে দেবে। আর ভুঁড়ি বাড়তে দেবে না। ব্যায়াম করার অভ্যাস না থাকলে রেস্ট নিয়ে নিয়ে দশ বার করার চেষ্টা করুন।

অলস মেয়েদের জন্য ইজি ওয়ার্কআউট লেগ রেইজেস

৩) সিঙ্গেল লেগ সার্কেলস

কম্পিউটার-এর সামনে বসে থাকতে থাকতেই এক পা উপরে তুলুন, যাতে পা-টা মাটির সাথে সমতলে থাকে। এবার পা-টা পনেরো সেকেন্ড ক্লক ওয়াইজ আর পরের পনেরো সেকেন্ড অ্যান্টি ক্লক ওয়াইজ ঘুরান। এবার এই পা নামিয়ে অন্য পা দিয়ে রিপিট করুন। এই ব্যায়াম-টি আপনার হিপ মাসল ওয়ার্ম করবে আর ভারসাম্য বাড়াবে। আর আপনার পায়ের পেছনের চর্বি (কাফ মাসল-এর ফ্যাট) কমিয়ে পা-কে টোনড করবে।

৪) ওয়াল পুস আপ

বাথরুমে চুলে শ্যাম্পু দিয়ে বা ফেইস প্যাক দিয়ে অপেক্ষা করছেন? করে ফেলুন এই এক্সারসাইজ-টি। এটা ফ্লোর পুস আপ-এর মত কষ্টকর না, আবার হেলা ফেলা করার মতোও না। নিয়মিত এটা করলে আপনার হাতের আর কাঁধের ফ্যাট কমে আসবে। আর এটা প্র্যাকটিস করলেও আপনি পাবেন এক্সট্রা শক্তি। ভালো ফলাফলের জন্য যতক্ষণ সময় পাবেন করে যাবার চেষ্টা করুন।

ওয়াল পুস আপ

৫) আর্ম সার্কেলস

আপনার হাতে দশ সেকেন্ড সময় থাকলে আপনি যেখানে খুশি সেখানে যতবার খুশি এই ব্যায়ামটা ট্রাই করতে পারবেন। জাস্ট আপনার হাত দুটি দুপাশে মেলে ধরে ছোট ছোট সার্কেল-এ ঘুরান। বার বার ঘুরানোর ফলে এটা আপনার হাতের মাসল-কে করবে চর্বিবিহীন আর হালকা। যাদের হাত মোটা তারা আর যারা নতুন ব্যায়াম শুরু করেছেন তাদের জন্য এটা বেস্ট ব্যায়াম। ভালো ফলের জন্য এটা দিনের মধ্যে কয়েকবার রিপিট করার চেষ্টা করুন।

আরম সার্কেলস

৬) ব্যাক ক্রাঞ্চ

এবার আপনাকে একটু কষ্ট করে উপর হতে হবে। শুয়ে শুয়ে ল্যাপটপ ইউস করার সময় করুন এই এক্সারসাইজ-টি। শুধু আপনার পা দুটো বিছানার সাথে মিলিয়ে রেখে শরীরের উপরের অংশ যতটুকু পারেন উঠিয়ে ফেলুন, পাঁচ সেকেন্ড ধরে রাখুন। ব্যাক ক্রাঞ্চ আপনার পিঠের মাসল আর মেরুদণ্ডের জন্য খুবই ভালো ওয়ার্ক আউট। এটা আপনার পেট আর পিঠের চর্বি কাটাতেও উপকারী। দশবার করে করুন, আস্তে আস্তে সংখ্যা বাড়ান।

ব্যাক ক্রাঞ্চ

দেখলেনতো চরম আলসে হওয়া সত্ত্বেও কীভাবে শুয়ে বসে পুরো পা থেকে মাথা পর্যন্ত ওয়ার্ক আউট করে ফেলা যায়? তো এখন আসলে আর অজুহাত দেবার কিছু নেই। শুরুই করে দিন না আপনার ডেইলি ওয়ার্ক আউট!

 

ছবি- সংগৃহীত: সাটারস্টক

147 I like it
33 I don't like it
পরবর্তী পোস্ট লোড করা হচ্ছে...