গরমে লং লাস্টিং মেকআপের জন্য দারুন কিছু হ্যাকস ও টিপস জেনে নিন

গরমে লং লাস্টিং মেকআপের জন্য দারুন কিছু হ্যাকস ও টিপস জেনে নিন

8 (2)

মেকআপ করতে আমরা কমবেশি সবাই পছন্দ করি। বাইরে বের হলে কাজল বা আইলাইলার দিয়ে চোখ সাজানো আর ঠোঁটে একটু লিপস্টিক না লাগালেই নয়, তাই না? কিন্তু গরমে মেকআপ করে কি খুব একটা শান্তি পাওয়া যায়? না! মেকআপ করলেই তো ফেইস অনেক ঘামে আর এর কারনে মেকআপটা লং লাস্টিং হয় না। এমন অভিযোগ অনেকের কাছেই শুনেছি। গরমে খুব হালকা মেকআপ করলেও অনেকসময় ঘেমে মেকআপ নষ্ট হয়ে যায়। বিশেষ করে আন্ডার আই, নাকের দুই পাশ, ঠোঁটের উপরে ও নিচে এবং কপালের জায়গাটা কেমন যেন দেখায়! এই প্রবলেম সল্ভ করতে দরকার একটু এক্সট্রা কেয়ার এবং কিছু মেকআপ হ্যাকস। তাহলে এখনই জেনে নিন গরমে লং লাস্টিং মেকআপের জন্য কার্যকরী কিছু টিপস ও হ্যাকস।

ফাউন্ডেশন ব্যবহার না করেও মেকআপ বেইস

ন্যাচারাল বা লাইট ওয়েট মেকআপ বেইসের প্রথম শর্ত হল স্কিনটোনের সাথে ম্যাচ করে লাইট ওয়েট ফাউন্ডেশন ব্যবহার করা। কিন্তু গরমে অফিস, ভার্সিটি অথবা আউটিংয়ে যাওয়ার সময় ফাউন্ডেশন ব্যবহারের পরিবর্তে যদি ফেইস পাউডার অথবা প্রেসড পাউডার ব্যবহার করা যায়, তাহলে কিন্তু ফেইস অনেকটাই কম ঘামে। তবে আমাদের স্কিনে কিছু স্পট থাকে, যা শুধু ফেইস পাউডার দিয়ে কভার করা যায় না। যদি ডার্ক সার্কেল, স্পট এবং পিগমেনটেশন থাকে, সেই জায়গাগুলোতে কন্সিলার দিয়ে ফিক্স করে নিয়ে এরপর ফেইস পাউডার দিয়ে বেইস করে নিতে হবে। তবে বেইস করার আগে কিছু টিপস মেনে চললে মেকআপ হবে ফ্ললেস এবং লং লাস্টিং।

বেইস মেকআপের আগে স্কিন প্রিপেয়ারিং

১। ফেইস ওয়াশ বা ক্লেনজার দিয়ে ভালোভাবে মুখ ওয়াশ করে নিয়ে আইস কিউব (বরফ) দিয়ে পুরো ফেইসে একটু রাব করে নিতে হবে। সবচেয়ে ভালো হয় পাতলা কাপড়ে আইস কিউব নিয়ে তারপর ফেইসে রাব করলে, এতে করে ফেইসে হার্শনেস ফিল হবে না।

এখন বলি আইস কিউব কেন রাব করে নিব ফেইসে! গরমে অনেকেরই দেখা যায় স্কিন লাল হয়ে যায় বা সেনসিটিভিটির কারনে ইরিটেশন বা অন্যান্য প্রবলেম দেখা দেয়। ফেইসে আইস কিউব রাব করে নিলে রেডনেসের প্রবলেমটা হয় না। এটা ছাড়া আরও একটা কারন আছে যেই কারনে আইস ম্যাসাজ খুবই কার্যকরী, আর সেটা হল আইস কিউব ফেইসে রাব করে নিলে স্কিনের পোর মিনিমাইজ হয়, এতে করে স্কিন সহজে অয়েলি হয়ে যায় না। পোরের ভিজিবিলিটি কম হলে মেকআপ ফ্ললেস দেখায়। ফলে গরমে মেকআপ বেইজ করে নেয়ার আগে আইস কিউব রাব করে নিলে স্কিনের অয়েলিনেস কম হয় এবং মেকআপটাও লং লাস্টিং হয়।

২। আইস কিউব রাব করে নিয়ে কিছুক্ষন পর ফেইস মিস্ট বা হাইড্রেটিং টোনার ফেইসে দিয়ে নিলে লং টাইম পর্যন্ত স্কিন থাকবে হাইড্রেটেড।

৩। এরপর স্কিন টাইপ অনুযায়ী একটা ময়েশ্চারাইজার অ্যাপ্লাই করে নিতে হবে। আর, এখন স্কিনটা বেইস করার জন্য একদম পারফেক্ট।

৪। আর দিনের বেলায় তো সানস্ক্রিন ইউজ করা মাস্ট। বেসিক স্কিন কেয়ার শেষে ত্বকের সুরক্ষার জন্য আপনার স্কিনের ধরন অনুযায়ী সানস্ক্রিন অ্যাপ্লাই করে নিন। লাইট ওয়েট, ম্যাট ফিনিশিং দেয় আর ত্বকের সাথে সুন্দরভাবে মিশে যায়, এমন সানস্ক্রিন গরমে ইউজের জন্য বেস্ট।

ফেইস পাউডার দিয়ে মেকআপ বেইস

স্কিন প্রিপেয়ার হয়ে গেলে স্কিনটোন অনুযায়ী কন্সিলার দিয়ে স্পট, ডার্ক সার্কেল হাইড করে নিতে হবে। এরপর স্কিনের শেড অনুযায়ী ফেইস পাউডার অ্যাপ্লাই করে নিন। এবার লুজ পাউডার ফেইসের টি- জোন ( T-zone) এ ভালোভাবে ড্যাব ড্যাব করে নিতে হবে। এতে করে ফেইসে যে অতিরিক্ত অয়েল প্রডিউস হয় তা কন্ট্রোলে থাকবে। অয়েলি স্কিনের জন্য এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ মেকআপ স্টেপ। ব্যস! মেকআপের বেইস রেডি হয়ে গেলো। লাইট ওয়েট হওয়াতে এই বেইস মেকআপ গরমে দীর্ঘ সময় পর্যন্ত একদম সেট থাকবে।

গরমে চোখের সাজ 

আই মেকআপ আপনার বিউটিকে অনেকটাই রিপ্রেজেন্ট করে। চোখের সাজের উপর অনেকক্ষেত্রেই পুরো মেকআপের আকর্ষণীয়তা নির্ভর করে। তবে গরমে চোখের সাজ যত সিম্পল রাখা যায় ততই ভালো। সিম্পল চোখের সাজের জন্য আই লাইনার বা কাজল এবং সাথে মাসকারা হতে পারে বেসিক আই মেকআপ আইটেম। দারুন কিছু হ্যাকস ফলো করলে আই মেকআপ থাকবে লং লাস্টিং। জেনে নিন সেগুলো-

১। আইব্রো আর্ট করতে ব্রো পমেড বা আইব্রো জেল ইউজ করলে তা ছড়ায় না সহজে। তাই গরমে ঘামলেও সমস্যা হবে না।

২। চোখে কাজল দিলে ছড়িয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। ওয়াটারপ্রুফ ও সোয়েটপ্রুফ কাজল বেছে নিতে পারেন, কাজল দিয়ে জাস্ট চোখের নিচে একটু পাউডার ডাস্টিং করে নিলে দীর্ঘ সময় পর্যন্ত সেটা সেট থাকবে, ছড়িয়ে যাবে না। কাজলের পরিবর্তে ভালোমানের আই লাইনার ইউজও করতে পারেন।

৩। মাসকারা অ্যাপ্লাই করার আগে আই ল্যাশে একটু পাউডার দিয়ে তারপর মাসকারা দিলে ল্যাশগুলো দেখতে খুব সুন্দর লাগে এবং গরমে সহজে সেটা নষ্ট হয় না।

লিপস্টিক ছড়িয়ে যাওয়া প্রতিরোধে করণীয় 

গরমে অনেকেরই দেখা যায় লিপস্টিক ছড়ায়ে যায়, ঠোঁটের চারপাশ ঘেমে লিপস্টিক আস্তে আস্তে উঠে আসে। তাহলে কীভাবে লিপস্টিক লং টাইম পর্যন্ত ঠিক রাখা যায়? এটাই তো ভাবছেন, তাই না? কিছু হ্যাকস মেনে চললে কিন্তু গরমেও লিপস্টিক ঠিকঠাকমতো ক্যারি করা যাবে।

১। সপ্তাহে ১-২ দিন মধু, চিনি আর লেমন জুস মিক্স করে নিয়ে লিপ স্ক্রাব করে নিতে হবে। এতে করে লিপ স্মুথ এবং সফট হবে। ফলে লিপস্টিক ঠোঁটে ঠিকমতো বসবে এবং ক্র্যাক হবে না।

২। লিপস্টিক দেয়ার পর ঠোঁটের উপর টিস্যু পেপার দিয়ে এর উপর পাউডার ব্রাশ দিয়ে হালকা করে একটু পাউডার পাফ করে নিলে লিপস্টিকের স্টিকি ভাবটা থাকে না, ম্যাট লুক দেয় এবং গরমে ঘেমে ছড়িয়ে যায় না।

সবশেষে মেকআপ ফিক্স করার জন্য সেটিং স্প্রে

যখন আমরা মেকআপ করে বাহিরে যাই, তখন ফেইস ঘেমে যা যা ফেইসে অ্যাপ্লাই করি সবকিছু কেমন যেন এদিক সেদিক হয়ে যায়! আর দেখতে আনইভেন লাগে। এজন্য সেটিং স্প্রে অথবা মেকআপ ফিক্সার পুরো ফেইসে স্প্রে করে নিলে ৫-৬ ঘণ্টা পর্যন্ত মেকআপ ফিক্স থাকে। গরমে মেকআপের সাথে সেটিং স্প্রে মিস করলে কিন্তু চলবে না!

শেষে একটা কথা বলতে চাই, স্কিন ব্যারিয়ার যত স্মুথ হবে, মেকআপ ততই ফ্ললেস হবে। মানে আপনার স্কিন যদি সুন্দর হয়, তাহলে মেকআপ ভালোভাবে বসবে। তাই বেসিক স্কিন কেয়ার রুটিন মেনে চলুন, ত্বকের যত্ন নিন। আর গরমে পর্যাপ্ত পরিমানে পানি খেতে হবে তাহলে বডি এবং স্কিন হাইড্রেটেড থাকবে সবসময়। তাছাড়া যাদের গরমে স্কিন ডিহাইড্রেটেড হয়ে যায়, তারা স্কিনে কিছুক্ষণ পর পর হাইড্রেটিং মিস্ট বা রোজ স্প্রে দিয়ে নিলে স্কিন রেফ্রেশিং থাকবে।

তো, এই ছিল আজকের টিপস ও হ্যাকস। মেকআপ প্রোডাক্টস সবই পেয়ে যাবেন সাজগোজে। অনলাইন কিংবা আউটলেট, আপনার সুবিধামতো কিনতে পারবেন। সাজগোজের দু’টি ফিজিক্যাল শপ রয়েছে যা যমুনা ফিউচার পার্ক ও সীমান্ত সম্ভারে অবস্থিত। এছাড়া অনলাইনে কিনতে চাইলে শপ.সাজগোজ.কম থেকে কিনতে পারেন।

ছবি- সাজগোজ

54 I like it
9 I don't like it
পরবর্তী পোস্ট লোড করা হচ্ছে...