ঈদ পরবর্তী স্কিন কেয়ার | ৫টি ধাপে বাড়িতেই করে নিন ত্বকের যত্ন

ঈদ পরবর্তী স্কিন কেয়ার | ৫টি ধাপে বাড়িতেই করে নিন ত্বকের যত্ন

skincare

ঈদতো চলে গেল। ঈদের দিনগুলো বেশ সাজগোজের মাঝেই পাড় করেছি আমরা সবাই, তাই না? কিন্তু এর মাঝে আপনার ত্বকের যত্ন নিতে ভুলে যান নি তো? বাড়িতেই কিভাবে নিজের ত্বকের যত্ন ঠিকঠাক নেবেন, আজ চলুন তাই জেনে নেই ঈদ পরবর্তী স্কিন কেয়ার সম্পর্কে!

ঈদ পরবর্তী স্কিন কেয়ার যেভাবে করবেন

১) ক্লিনজিং

ঈদ পরবর্তী স্কিন কেয়ার এ ক্লিনজিং - shajgoj.com

বলার অপেক্ষা থাকে না, ত্বক পরিচর্যার রুটিনে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ হল ত্বক পরিষ্কার করা। মরে যাওয়া ত্বকের কোষ, ময়লা, জীবাণু ও ব্যাকটেরিয়া থেকে পরিত্রাণ পেতে হলে ত্বক সবসময় পরিষ্কার রাখতে হবে। এক্ষেত্রে প্রথমে বেবী-অয়েল, অলিভ-অয়েল অথবা ক্লিনজিং মিল্ক তুলোতে নিয়ে মুখের মেকআপ মুছে নিন। আপনার ত্বকের ধরনের জন্য উপযুক্ত যেকোনো ফেইসওয়াশ দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। মুখের ত্বকে সাবান ব্যবহার করবেন না। সাবানে প্রচুর পরিমাণে ক্ষার থাকে যা মুখের চামড়ার ক্ষতি করতে যথেষ্ট। আপনি ভেষজ জিনিস যদি চান তাহলে দুধ, দই / টক দই বা মধু ব্যবহার করতে পারেন। মুখ হালকা উষ্ণ পানিতে পরিষ্কার করবেন। কারণ, ঠাণ্ডা পানি জীবাণু ও ময়লা পরিষ্কারে তেমন কার্যকর না।

২) এক্সফোলিয়েট

ঈদ পরবর্তী স্কিন কেয়ার এ এক্সফোলিয়েট - shajgoj.com

ত্বকের সাথে সামঞ্জস্য রেখে ফেসিয়াল স্ক্রাব (facial scrub) নিন। হাতের আঙ্গুল, নরম স্পঞ্জ অথবা মুখের ব্যবহারের ব্রাশের সাহায্যে ১ থেকে ২ মিনিট ফেসিয়াল স্ক্রাব মুখে ধীরে ধীরে ম্যাসাজ করুন। খুব বেশি মাস্যাজ করবেন না, অত্যাধিক স্ক্রাবিং চামড়ার ক্ষতি করে। বিশেষ করে চোখের চারপাশের কোমল ত্বকে স্ক্রাবিং–এ সাবধানে ম্যাসাজ কারুন। গুঁড়ো আমন্ড বাদাম, মসু্র ডাল, আলুর পেস্ট ভেজষ স্ক্রাব হিসেবে খুব-ই ভালো।

৩) উপটান

ঈদ পরবর্তী স্কিন কেয়ার এর জন্য উপটান - shajgoj.com

স্ক্রাবিং-এর পর এক টুকরো বরফ নিন এবং তা পুরো মুখে এক/ দুই মিনিট হালকাভাবে লাগান। যা ত্বকের লোমকূপের মুখ বন্ধ করতে সাহায্য করবে সাথে স্ক্রাবিং-এর কারণে যদি মুখে লালচে ভাব দেখা দেয় তাও কমিয়ে দেবে। এবার আপনার পছন্দ মত ফেইস প্যাক/ ফেইস মাস্ক লাগান। ১৫-২০ মিনিট পর তা ফেইস ওয়াশ দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। ফেইস প্যাক/ ফেইস মাস্ক আপনার ত্বকের টানটান ভাব বজায় রাখতে সাহায্য করবে। চন্দন গুঁড়ো, মুলতানি মাটি, হলুদ বাটা ইত্যাদি যেকোনো কিছু দিয়ে বাড়িতেই আপনার পছন্দমতো ভেজষ ফেইস-প্যাক বানিয়ে নিতে পারেন।

৪) টোনিং এবং ময়েশ্চারাইজিং

সবশেষে ত্বকের ধরন মতো টোনার এবং তারপর ময়েশ্চারাইজার লাগিয়ে নিন। টোনার ত্বকের পিএইচ(pH)- এর মান বজায় রাখে। এটি ওয়াটার বেইজড হলে ভালো হয়। তৈলাক্ত ত্বকের জন্য টোনার-এর বদলে অ্যাস্ট্রিনজেন্ট ব্যবহার করুন।

একটি সুস্থ ত্বক মানেই হলো সবচেয়ে সুন্দর মুখ। সুতরাং ত্বকের পরিচর্যার ক্ষেত্রে আলসেমি একদম নয়!

 

ছবি- সংগৃহীত: সাজগোজ; সাটারস্টক

7 I like it
3 I don't like it
পরবর্তী পোস্ট লোড করা হচ্ছে...