টক দইয়ের উপকারিতা | ৩ চর্চায় ১ সমাধান! - Shajgoj

টক দইয়ের উপকারিতা | ৩ চর্চায় ১ সমাধান!

ygt

টক দইয়ের উপকারিতার কথা যতই বলব ততই কম হবে। ব্যাক্তিগতভাবে টক দই আমার ত্বকে জাদুর মত কাজ করে। কম বেশি সবার বাইরে বের হতে হয়(গৃহিণী, সার্ভিস হোল্ডার, স্টুডেন্ট)। আজকাল সবার এক অভিযোগ রোদে পোড়া দাগ কীভাবে কমাবো? এটার একদম সহজ সমাধান টক দই। সাজগোজ এ অনেকেই ঘরে বসে টক দই বানানোর পদ্ধতি জানতে চেয়েছেন। আর আমার মতেও ঘরের টক দই বানিয়ে ব্যবহার করলে ভালো ফল পাওয়া যায়। টক দই এর কি কি উপকারিতা জানার আগে জেনে নিই ঘরে বসে কীভাবে টক দই বানাবেন।

[picture]

উপকরণ

  •  আধা লিটার দুধ ( জ্বাল দিয়ে ঘন করা )
  • আগের টক দই থাকলে ৩ টেবিল চামচ দই অথবা ৩ চামচ ভিনেগার অথবা ৩ চামচ লেবুর রস।

প্রস্তুত প্রণালী

সব মিশিয়ে একটি পাত্রে পরিষ্কার ডালের ঘুটনি দিয়ে ভালো করে ঘুটে সারারাত ঢেকে রেখে দিন। সকালে দই হয়ে যাবে। (ফ্রিজ এ দই কখনও পাতবেন না। ফ্রিজ এ ব্যাকটেরিয়া কাজ করতে পারে না)।

রূপচর্চায় টক দই

মুখের জন্য –

• রোদে পোড়া দাগ দূর করার জন্য ৫ চামচ টক দই, ১ চামচ চন্দন গুঁড়ো, ১ চামচ মসুর ডাল বাটা মিশিয়ে মুখ, হাত, পায়ে লাগিয়ে রাখুন। শুকালে ধুয়ে ফেলুন। ১ মাস এই মাস্কটি লাগিয়ে ফলাফল দেখুন। যাদের ত্বক শুষ্ক তারা মধু নিতে পারেন।

Applying on face

• ৩ চামচ টক দই, আধা চামচ কাঁচা হলুদ বাটা, ১ চামচ বেসন মিশিয়ে মাস্ক হিসেবে লাগান, ত্বক ফর্সা হবে।

• স্টবেরি ফল ২ টি এবং ৫ চামচ টক দই ব্লেন্ড করে মুখে মাস্ক হিসেবে লাগান। ত্বক অনেক ফ্রেশ হবে, ত্বকের কোলাজেন এর সমতা রাখবে, ব্রণ এবং ত্বকের দাগ দূর করবে, বলিরেখা কমাবে।

st and yg

চুলের জন্য –

টক দই, কলা, ডিম একসাথে ব্লেন্ড করে চুলে দিয়ে রাখুন আধা ঘণ্টা। তারপর শ্যাম্পু করে ফেলুন। এতে করে চুল পড়া কমবে, চুল নরম হবে, চুল তাড়াতাড়ি লম্বা হবে।

দেহের জন্য টক দই

health benefit

• দই দুধের থেকে তাড়াতাড়ি হজম হয়। যারা দুধ খেতে পারে না, তারা প্রতিদিন ৪/৫ চামচ টক দই খেতে পারেন।

• টক দই ওজন কমাতে সাহায্য করে। শরীরের মেদ বার্ন করে।

• দই এর ব্যাকটেরিয়াগুলো আমাদের দেহের জন্য অনেক ভালো। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। এই ব্যাকটেরিয়া কোলন ক্যানসার প্রতিরোধে সহায়তা করে।

• দই সব বয়সী লোকদের জন্য ভালো। একটি গবেষণায় দেখা গিয়েছে যারা প্রতিদিন ২ কাপ করে দই খায়, তাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বেশি।

• দই যেকোনো ব্যাকটেরিয়াল ফাংঙ্গাল ইনফেকশন থেকে রক্ষা করবে।

• দইয়ে আছে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম (৮ চামচ দই = ৪৫০ মিলি ক্যালসিয়াম)। দইয়ে আছে ভিটামিন সি এবং ডি।

• দই কোলেস্টেরল কমাতে সাহায্য করে।

ছোট টিপস- প্রতিদিন ২ /৩ চামচ দই খান। ভেতর থেকে ত্বক উজ্জ্বল হয়ে উঠবে, দেহে শক্তি পাবেন আশা করি পোস্টটি ভালো লাগবে। ধন্যবাদ।

ছবি – ক্যারিফিটনেস.কম, বাজ্যল.কম, জিনজিনফুডস.কম, মিনিজবিউটিজার্নি.ব্লগস্পট.কম

লিখেছেন – তাপসী

39 I like it
4 I don't like it
পরবর্তী পোস্ট লোড করা হচ্ছে...