নবজাতকের প্রসাধনী | কিভাবে শিশুর ৯টি কসমেটিকস ব্যবহার করবেন?

নবজাতকের প্রসাধনী | কিভাবে শিশুর ৯টি কসমেটিকস ব্যবহার করবেন?

নবজাতকের প্রসাধনী ব্যবহার করে তাকিয়ে আছে একজন নবজাতক

একজন নারীর জীবনে তার সন্তানের আগমন সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। আর একটি পরিবারে একটা নবজাতকের আগমন এতই সুখকর যা বর্ণনা করে  শেষ করা যায় না। বাড়িতে নতুন অতিথির আগমন উপলক্ষে বাবা-মা আগে থেকেই পূর্ব প্রস্তুতি নিতে থাকে। নবজাতকের যত্নের জন্য কতকিছুই না প্রয়োজন পড়ে তাদের মধ্যে নবজাতকের প্রসাধনী অন্যতম।

নবজাতকের ৯টি প্রসাধনী 

শিশুদের ত্বক খুবই নরম ও কোমল হয়। ষড়ঋতুর এই দেশে প্রকৃতিতে যে পরিবর্তন আসে, তা মানিয়ে নিতে শিশুদের বেশ কষ্টই পোহাতে হয়। শীত, গরম এই দুই ঋতুতেই চাই নবজাতকের আলাদা যত্ন। শিশুদের কোমল ত্বকের যত্ন নিতে অবশ্যই ভালো মানের নবজাতকের প্রসাধনী ব্যবহার করতে হবে। চলুন তবে জেনে নেই নবজাতকের প্রসাধনী সম্পর্কে!

১. বেবি ওয়েল

বাজারে নবজাতকের ব্যবহারের জন্য খুব ভালো মানের বেবি অয়েল বা তেল পাওয়া যায়। নিয়মিত অয়েল ম্যাসাজ করে দিলে শিশুর শরীরে রক্ত চলাচল ভালো হয় ও শিশুদের ভালো ঘুমও হয়। সেই সাথে অয়েল ম্যাসাজ শিশুর হাড় মজবুত ও শক্তিশালী করে তোলে। আর শীতকালে শিশুর জন্য অয়েল মেসেজ খুবই জরুরি।

শীতের দিনে শিশুদের গোসল করানোর আগে ভালো করে অয়েল ম্যাসাজ করে যদি শিশুকে গোসল করানো হয় তাহলে ঠান্ডাটা গায়ে বসে না আর ঠান্ডাও কম লাগে। তেল শিশুর ত্বকের শুষ্কতা, রুক্ষতাকে বিদায় করে শিশুর কোমল ত্বককে আরো মসৃণ ও নরম করে তোলে ও বিভিন্ন চর্মরোগ প্রতিরোধ করে। শিশুর ত্বককেও উজ্জ্বল করতে সাহায্য করে। তবে গরমে শিশুদের শরীরে তেল ম্যাসাজ বন্ধ রাখতে হবে। এক্ষেত্রে বডি লোশন ব্যবহার করতে হবে।

২. নবজাতকের প্রসাধনী বডি লোশন

বডি লোশন শিশুর ত্বককে আরো কোমল, নরম ও দীপ্তিময় করে তোলে। লোশন বিভিন্ন ধরনের ইনগ্রিডিয়েন্টের হয়। যেমন- মিল্ক, বাটার, হানি, আপেল ইত্যাদি। এর মধ্যে আপনার বেবির জন্য সঠিক লোশনটি বাছাই করে নিতে হবে এবং শিশুর অ্যালার্জি প্রবলেম থাকলে অবশ্যই বিশেষজ্ঞের পরামর্শ অনুযায়ী বডি লোশন ব্যবহার করতে হবে।

৩. নবজাতকের প্রসাধনী বেবি ক্রিম

বেবি ময়েশ্চারাইজিং ক্রিম শিশুদের জন্য অত্যন্ত প্রয়োজনীয় একটি জিনিস। আমরা অনেকেই শিশুদের মুখে বডি লোশন দিয়ে ফেলি। কিন্তু এটা একদমই ঠিক না। ক্রিমগুলো শুধু মাত্র শিশুদের মুখের কথা চিন্তা করে বানানো হয়ে থাকে। অনেক সময় দেখা যায় শীতকালে শিশুদের গাল ফেঁটে যায়। শিশুর মুখের ত্বক এতটাই কোমল যে শীতের রুক্ষতাকে সহ্য করতে না পেরে, খুব তাড়াতাড়ি ত্বক ফেঁটে যায়। তাই শিশুর মুখের ত্বককে ময়েশ্চারাইজ করতেই বানানো হয় এসব বেবি ক্রিম।

৪. পেট্রোলিয়াম জেলি

শীতের সময়টাতে পেট্রোলিয়াম জেলি শিশুর জন্য খুবই উপকারি। শীতের শুষ্কতায় শিশুদের ঠোঁট ও হাত-পায়ের তালু বেশ রুক্ষ হয়ে ফেটে যায়। কাজেই পেট্রোলিয়াম জেলি ব্যবহারে আপনার শিশুর ত্বক কোমল থাকবে। শুষ্ক আবহাওয়াতেও শিশু থাকবে কোমল ও লাবণ্যময়। তবে গরমকালে এটির প্রয়োজন নেই। অতিরিক্ত ড্রাইনেস থাকলে ব্যবহার করা যেতে পারে।

৫. নবজাতকের প্রসাধনী হেয়ার অয়েল

নবজাতকের চুলের যত্নে অনেক ভালো মানের হেয়ার অয়েল বাজারে পাওয়া যায়। বিভিন্ন পুষ্টি গুণে সমৃদ্ধ হেয়ার অয়েল আপনার শিশুর মাথার ত্বকের সুরক্ষা করে এবং খুশকি ও ফুসকুড়ি থেকে শিশুর মাথার ত্বককে রক্ষা করে। সেই সাথে চুল বৃদ্ধি ও চুলের পুষ্টি যোগাতে দারুন কাজ করে।

৬. বেবি পাউডার

বাজারে শিশুদের ত্বকের উপযোগী অনেক ভালো মানের বেবি পাউডার আছে। কিন্তু; পাউডার লাগানোর আগে খেয়াল রাখতে হবে সেটা যেন অতিরিক্ত না হয়ে যায়। কারণ; শিশুর গলায় ও মুখে অতিরিক্ত পাউডার মাখলে; তা নিঃশ্বাসের সাথে নাকে গিয়ে শ্বাসকষ্ট হতে পারে। শিশুরা গরমে ঘেমে গেলে ত্বক স্যাঁতস্যাঁতে না হওয়ার জন্য শরীর ভালোভাবে মুছে খুবই সীমিত পরিমাণে পাউডার মাখা যাবে।

৭. বেবি শ্যাম্পু

শিশুদের মাথার ত্বক খুবই সেনসিটিভ। তাই তাদের চুলে খুব ভালো মানের বেবি শ্যাম্পু ব্যবহার করতে হবে। শিশুদের জন্য তৈরি বেবি শ্যাম্পুগুলো বানানো হয়েছে ‘No More Tears’ ফর্মুলা দিয়ে। এই শ্যাম্পু ব্যবহারে শিশুর চোখ জ্বালা করবে না। বেবি শ্যাম্পু কম ক্ষারযুক্ত। এ জন্য শিশুর মাথার ত্বকে আলতো করে পরিষ্কার করে এবং চুলকে নরম, সুস্থ ও সিল্কি করে।

একজন শিশু বেবি শ্যাম্পু ব্যবহার করে গোসল করতেছে

৮. বেবি সোপ

শিশুদের কোমল ত্বকের জন্য দরকার কম ক্ষারযুক্ত সাবান। বাজারে বিভিন্ন ব্র্যান্ডের বেবি সোপ পাওয়া যায় যা ব্যবহার করে কোনও রকম অ্যালার্জির প্রতিক্রিয়া ছাড়াই শিশুর ত্বকের সুরক্ষা নিশ্চিত করা যায়।

৯. বডি ওয়াশ

বডি সোপ ছাড়াও তরল আকারে তৈরি করা হয়েছে এই সাবান। সাবানের চেয়ে শিশুদের বডি ওয়াশটা ব্যবহার অনেকটা সুবিধাজনক। কারণ এগুলো অধিক ফেনা তৈরি করে এবং শিশুদের দ্রুত শরীর পরিষ্কার হয়ে যায়। বেবি সোপ বা বডি ওয়াশ কোনটাই তীব্র গন্ধযুক্ত হয় না। এগুলো সাধারণত মিষ্টি ও হালকা গন্ধের হয়।

নবজাতক শিশুর জন্য তৈরি এসব প্রসাধনী যেকোন শপিংমলেই পাবেন তবে মনে রাখবেন শিশুদের ব্যবহার্য এসব প্রসাধনী অবশ্যই বুঝে শুনে ভালো মানেরটা কিনবেন। নয়তো শিশুর কোমল ত্বক মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে যাবে।

ছবি- সংগৃহীত: theniqabgirl, azureedge.net

75 I like it
8 I don't like it
পরবর্তী পোস্ট লোড করা হচ্ছে...