ফেইস মিস্ট | ত্বকের ইন্সট্যান্ট হাইড্রেশনের জন্য দারুন একটি সল্যুশন!

ফেইস মিস্ট | ত্বকের ইন্সট্যান্ট হাইড্রেশনের জন্য দারুন একটি সল্যুশন!

a5

স্কিন কেয়ারে ক্লেনজিং, টোনিং, ময়েশ্চারাইজিং, সানস্ক্রিন এর কথা এখন আমরা সবাই জানি। কিন্তু এমনটা হয়েছে কি যে স্কিন কেয়ারের জন্য সব কিছু মেইনটেন করেও সারাদিন বাইরে থাকার ফলে বা এসিতে থাকার জন্য স্কিন ভেতর থেকে খুব শুষ্ক মনে হয়? যদি আপনার সাথেও এমনটা হয়ে থাকে, তাহলে আপনার স্কিনের জন্য প্রয়োজন এক্সট্রা হাইড্রেশন। তাই আজ এমন একটি বিষয় নিয়ে কথা বলবো আর সেটা হচ্ছে ফেসিয়াল বা ফেইস মিস্ট। চলুন দেরি না করে আমরা জেনে নেই ত্বকের যত্নে ফেইস মিস্ট কিভাবে কাজ করে।

ফেইস মিস্ট কী ?

ফেইস মিস্ট হচ্ছে একটি ওয়াটার বেসড স্কিন কেয়ার প্রোডাক্ট যা স্কিনকে খুব দ্রুত হাইড্রেট করার জন্য একটি সহজ উপায়। ফেইস মিস্ট দ্রুত এবং সহজে মেকআপ বা সানস্ক্রিন না সরিয়ে কিছু সেকেন্ডের মধ্যে ত্বককে তাত্ক্ষণিকভাবে পুনরায় হাইড্রেট এবং ময়েশ্চারাইজড করবে। হাইড্রেটেড থাকার জন্য আমাদেরকে অবশ্যই পানি পান করা উচিত, সেটা আমরা সবাই জানি।

ফেইস মিস্ট কিসের জন্য ব্যবহৃত হয় ?

সহজভাবে বলতে, স্কিনের ইনস্ট্যান্ট হাই্ড্রেশনের জন্য ফেইস মিস্ট ব্যবহৃত হয়। ধরুন আপনি অফিস কিংবা বাইরে আছেন এবং আপনি হয়তো কোনো ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করতে পারছেন না কিন্তু আপনার স্কিনে খুব আর্দ্রতাশুন্য অনুভব করছেন। সেসময় একটি ফেসিয়াল মিস্ট হতে পারে আপনার ভাল বন্ধু। যখনই আপনার স্কিন স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি শুষ্ক মনে হবে অর্থাৎ আর্দ্রতাশূণ্য মনে হবে তখন একটি ভালো ফর্মুলেটেড ফেইস মিস্ট স্প্রে করে নিলে আপনার স্কিন থাকবে হাইড্রেট ও সুন্দর।

এটি কিভাবে ব্যবহার করতে হয়?

দিনের বেলা বা যখনই স্কিন স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি শুষ্ক মনে হবে, তখন মুখ থেকে প্রায় ৬-৮ ইঞ্চি দূরে বোতলটি ধরে রাখুন এবং ২-৩ বার স্প্রে করুন, এক মিনিটের স্কিন মিস্ট শুষে নেবে। ব্যস! স্কিনকে ভালো রাখার জন্য সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন হাইড্রেশন।

ফেসিয়াল মিস্ট এবং টোনার কি এক জিনিস ?

না, টোনার এবং ফেসিয়াল মিস্ট এক জিনিস নয়, কাজ অনেকক্ষেত্রে এক রকম মনে হতে পারে। টোনার আমাদের স্কিন কেয়ার রুটিনে ক্লেনজিংয়ের পরের স্টেপে ব্যবহার করা হয়। পাশাপাশি টোনার স্কিনের পিএইচ ব্যালেন্স করে, আমাদের পোরসগুলো ক্লিন করে এবং স্কিন কেয়ারের নেক্সট স্টেপের জন্য স্কিনকে প্রিপেয়ার করে। কিন্তু ফেসিয়াল মিস্টের প্রধান কাজ হচ্ছে স্কিনকে ইনস্ট্যান্ট হাই্ড্রেশন দেয়া, দুটো ভিন্নভাবে আমাদের স্কিনে কাজ করে।

আমার পছন্দের ফেসিয়াল মিস্ট

আমার স্কিন অয়েলি এবং অতিরিক্ত আর্দ্রতাশূণ্য, বেশিরভাগ সময় আমাকে এয়ার কন্ডিশনার রুমে থাকতে হয়। আমি এমন কিছু চেয়েছিলাম যা আমার স্কিনকে ইন্সট্যান্ট ময়েশ্চারাইজড করবে, পাশাপাশি আর্দ্রতা দিবে। তাই ফেইস মিস্টই আমার ভরসা। তাই আজ আমার ব্যবহার করা কিছু পছন্দের ৪টি ফেসিয়াল মিস্ট নিয়ে কথা বলবো।

COSRX Low pH PHA Barrier Mist

এর মূল উপাদানগুলো হচ্ছে কোকোনাট এক্সট্রাক্ট রিচ ফ্যাটি অ্যাসিড ও ভিটামিন বি, যেটা স্কিনে খুব দ্রুত মিশে যায় এবং স্কিনকে ইনস্ট্যান্ট হাই্ড্রেশন দেয়। Gluconolactone(0.5%) এই উপাদানটি হচ্ছে পিএইচএ, অর্থাৎ পলি হাইড্রক্সসিড অ্যাসিড। এতে খুব জেন্টাল পিএইচএ আছে যা রিঙ্কেল, ফাইন লাইন, পিগমেন্টেশন কমাতে সাহায্য করে। Anise Fruit Extract এটি ড্যামেজ স্কিনের জন্য খুব ভালো একটি উপাদান। পাশাপাশি এই উপাদানটি অ্যান্টি-অক্সিড্যান্ট সমৃদ্ধ এবং স্কিনকে সফট ও স্মুদ করতে সাহায্য করে। Skullcap Root Extract স্কিন ব্রাইটেনিং করার একটি উপাদান। আমার ব্যবহার করা বেষ্ট একটি ফেসিয়াল মিস্ট এটি।

Puresh Soothing Toner Mist 

পিউরিশ মিস্টের মূল উপাদান হচ্ছে থানকুনি পাতা, যা অ্যান্টি-অক্সিড্যান্ট এবং অ্যামিনো অ্যাসিড সমৃদ্ধ, সেনসিটিভ ও পিম্পল-প্রবণ স্কিনের জন্য খুব ভালো একটি উপাদান। এটি স্কিন হাইড্রেট করার পাশাপাশি স্কিনকে সুদিং ইফেক্ট দেয়। এর অন্যান্য উপাদান স্কিনকে ময়েশ্চারাইজড করবে। পিউরিশ ফেসিয়াল মিস্ট প্যারাবেন ফ্রী, সিলিকন ফ্রী।

Kama Ayurveda Pure Rose Water

এই গোলাপ জল কান্নাজ গোলাপ থেকে তৈরি করা হয়, এই গোলাপ সাধারণত উত্তর ভারতে সাদা মাটিতে জন্মে থাকে। কান্নাজ গোলাপ স্কিনের জন্য অনেক বেশি উপকারি, কারণ এতে রোজ অয়েল বেশি পরিমানে থাকে। কামা আয়ুর্বেদা হাইপড একটি ব্র্যান্ড যেটা অলরেডি পপুলার হয়েছে তাদের পিউর ও অরগানিক প্রোডাক্ট দিয়ে, এর অনেক ভালো ভালো রিভিউ আছে। এটাও আমার পছন্দের একটি প্রোডাক্ট।

Plum Green Tea Revitalizing Face Mist

এটি বিশেষ করে তৈলাক্ত-মিশ্র প্রকৃতির স্কিনের জন্য তৈরি করা হয়েছে। এতে রয়েছে গ্রীন টি যা ব্রণ এবং দাগের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সহায়তা করে, ঘৃতকুমারী যা ত্বককে সুরক্ষা দেয়, জিনজার রুট যেটা অ্যান্টি-অক্সিড্যান্ট এবং অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি গুনাগুণ সমৃদ্ধ, ginkgo biloba যা ত্বকে পুষ্টি জোগাতে এবং ত্বকের ক্ষতির বিরুদ্ধে লড়াই করতে সহায়তা করে। এতে থাকা সব উপাদান নন স্টিকি, নন কমেডোজেনিক। আর ১০০% ভেগান, প্যারাবেন ফ্রি।

তাহলে এই ছিল আমার ব্যবহার করা ৪টি ফেসিয়াল মিস্ট নিয়ে অভিজ্ঞতা। যাদের স্কিন সারাদিন বাইরে থাকার জন্য বা এসিতে থাকার ফলে স্কিন ভেতর থেকে খুব শুষ্ক মনে হয় তারা অবশ্যই ব্যাগে একটা ফেসিয়াল মিস্ট ক্যারি করতে পারেন। এতে আপনি কোন ধরণের ঝামেলা ছাড়া স্কিনকে ইনস্ট্যান্ট হাই্ড্রেট করে নিতে পারবেন। আর অথেনটিক প্রোডাক্টের জন্য সাজগোজ তো আছেই আপনার পাশে।

ছবি- সাজগোজ

23 I like it
3 I don't like it
পরবর্তী পোস্ট লোড করা হচ্ছে...