লিপস্টিক লং লাস্টিং রাখার ৬টি সহজ ও কার্যকরী ট্রিকস!

লিপস্টিক লং লাস্টিং রাখার ৬টি সহজ ও কার্যকরী ট্রিকস!

লিপস্টিক লং লাস্টিং রাখার ৬টি সহজ ও কার্যকরী ট্রিকস

পছন্দের লিপস্টিকটি অ্যাপ্লাই করে চলে গেলেন ফ্রেন্ডদের সাথে আউটিং-এ। কিছুক্ষণ পরেই দেখলেন অর্ধেক গায়েব! কি মুশকিল! কোনোভাবেই লিপস্টিক লং লাস্টিং থাকছে না। জানি, এই সমস্যা অনেকেই ফেইস করেন। তাই আজকে আমরা আপনাদের দেখাবো লিপস্টিক লং লাস্টিং থাকার কিছু সহজ ও কার্যকরী ট্রিকস। চলুন তাহলে দেখে নেই সহজ ট্রিকসগুলো যা আপনার মেকআপ লুককে করবে পারফেক্ট!

লিপস্টিক লং লাস্টিং রাখার ট্রিকস 

বাইরে বের হলে একটু লিপস্টিক না লাগালেই যেন নয়! মেকআপ করতে পছন্দ করুন বা না করুন, নিজের কালেকশনে লিপস্টিক কিন্তু আছেই! বুলেট লিপস্টিক হোক বা লিকুইড, আজ জানাবো কিছু ইফেক্টিভ টিপস অ্যান্ড ট্রিকস যা সব ধরনের লিপস্টিককেই লং লাস্টিং রাখবে।

(১) সঠিক ফর্মুলা বেছে নিন 

লিপস্টিক কেনার আগে তার সোয়াচ করে নিন। লিপস্টিকটি আপনার হাতে লাগিয়ে একটু শুকিয়ে যাওয়ার সময় দিন। এবার একটা টোনার নিয়ে লিপস্টিকে লাগিয়ে হালকা ড্যাব করে নিন। দেখুন কালারটা কতটা ফেইড হচ্ছে। এই কাজটি আপনি লোশন দিয়েও করতে পারেন। এভাবে আপনি বুঝতে পারবেন লিপ কালার টেকসই হবে কি না!

(২) শুষ্ক ঠোঁটে লিপস্টিক অ্যাপ্লাই করবেন না

কখনও ফাটা ঠোঁটে লিপস্টিক অ্যাপ্লাই করবেন না। করলে আপনার ঠোঁটে ড্রাই আর প্যাচি ফিল হবে এবং আপনার লিপস্টিক গুঁড়া গুঁড়া হয়ে উঠে আসবে। শুষ্ক ঠোঁটে লিপস্টিক ব্যবহারের আগে ময়েশ্চারাইজিং লিপবাম দিয়ে ঠোঁট ময়েশ্চারাইজ করে নিন। তারপর কিছুক্ষণ অপেক্ষা করে লিপবাম মুছে ফেলুন টিস্যু দিয়ে। এবার লিপস্টিক অ্যাপ্লাই করুন। লিপস্টিক ক্র্যাক হয়ে যাওয়ার টেনশন আর থাকবে না!

(৩) লেয়ার তৈরি করুন

লিপস্টিকের পিগমেন্ট যদি ভালো না হয়, এই ট্রিকস ফলো করুন। প্রথমে লিপস্টিক অ্যাপ্লাই করে হালকা মুছে কালারটি ঠোঁটে বসতে দিন। এবার আরেকটি লেয়ার অ্যাপ্লাই করুন। এবার একটি টিস্যু দিয়ে ঠোঁট চেপে নিন এবং একটু পাউডার অ্যাপ্লাই করে নিন। তারপর আরেকটি লেয়ার লিপস্টিক লাগিয়ে নিন। দেখবেন বেশ ডিপ ও ভাইব্রেন্ট দেখাচ্ছে লিপ কালার!

(৪) লিপ লাইনার ব্যবহার করুন 

যদিও লিপ লাইনারের চল অনেক আগে থেকেই ঠোঁট আউটলাইন করতেই ব্যবহার করা হতো, কিন্তু ইদানিং আমরা একটু ডিফারেন্ট টেকনিকে লিপ লাইনার ব্যবহার করছি। লিপ লাইনার এখন ব্যবহার হচ্ছে ঠোঁটের বাড়তি অংশ ফিলিং-এর জন্য। ফুলার লিপ এখন ট্রেন্ডি। লিপস্টিক এর তুলনায় লিপ লাইনারের ফর্মুলেশন (Formulation) অনেক বেশি ম্যাট আর থিক হওয়ায় এটি লিপস্টিককে ছড়িয়ে যেতে দেয় না এবং প্রোপার শেইপও দেয়।

(৫) খাবার ঠিকভাবে নির্বাচন করুন 

আমরা সাধারণত সারাদিনের জন্য ওয়াটারপ্রুফ মেকআপ ব্যবহার করতে পছন্দ করি, তাই না? কিন্তু মজার ব্যাপার কি জানেন? যা ওয়াটারপ্রু তা-ই কিন্তু অয়েল সল্যুবল অর্থাৎ তেল লাগলেই রিমুভ হয়ে যাবে! তাই দাওয়াত, মিটিং বা আউটিং-এ তৈলাক্ত খাবার এড়িয়ে চলুন। খেলেও সাবধান থাকবেন। আর এক্ষেত্রে যদি লিপস্টিক উঠেও যায়, ওয়াইপস দিয়ে ক্লিন করে আবার অ্যাপ্লাই করে নিন।

(৬) লিপস এক্সফোলিয়েট করুন  

এক চামচ অলিভ অয়েল আর এক চামচ চিনি দিয়ে ঝটপট একটি লিপস্ক্রাব বানিয়ে নিন। এবার একটি টুথব্রাশে মিশ্রণটি নিয়ে ঠোঁট এক্সফোলিয়েট করে নিন। এতে আপনার ঠোঁটের ডেড সেলস উঠে গিয়ে ঠোঁট থাকবে স্মুথ আর সফট। তাই লিপস্টিক বসবেও ভালোভাবে। এখন মার্কেটে রেডিমেড লিপ মাস্ক ও লিপ স্ক্রাব পাওয়া যায়। সেগুলোও ট্রাই করতে পারেন।

ব্যস! এই কয়েকটি স্টেপস ফলো করলেই কিন্তু সারাদিন আপনার পছন্দের লিপস্টিক লাস্টিং করবে! আপনি চাইলে আপনার পছন্দমতো প্রোডাক্ট কিনতে পারেন অনলাইনে শপ.সাজগোজ.কম থেকে। সাজগোজের ৪টি শপ- যমুনা ফিউচার পার্ক, বেইলি রোডের ক্যাপিটাল সিরাজ সেন্টার, উত্তরার পদ্মনগর (জমজম টাওয়ারের বিপরীতে) ও সীমান্ত সম্ভার থেকেও বেছে নিতে পারেন আপনার পছন্দের প্রোডাক্টটি।

 

ছবি- সংগৃহীত: সাজগোজ

189 I like it
39 I don't like it
পরবর্তী পোস্ট লোড করা হচ্ছে...