ত্বক এবং চুলের যত্নে কফির ব্যবহার সম্পর্কে জানেন কি?

ত্বক ও চুলের যত্নে কফির ব্যবহার

Untitled-1

কফি পান করতে কে না ভালোবাসে?  ক্লান্তি দূর করে নিমিষেই আপনার মেজাজকে ফুরফুরে করে তুলতে পারে এক কাপ কফি। তবে সৌন্দর্য চর্চায়ও কফির ব্যবহার কিছু কম নয়। ত্বক এবং চুলের যত্নে কফির কিছু দারুণ কার্যকরী ব্যবহার হয়েছে। চলুন তাহলে দেখে নেই, ত্বক ও চুলের যত্নে কফির ব্যবহার সম্পর্কে।

ত্বক এবং চুলের যত্নে কফির ব্যবহার

ত্বককে এক্সফলিয়েট করতে 

ত্বককে এক্সফলিয়েট করতে কফি খুবই ভালো একটি উপাদান। কফি দিয়ে তৈরি স্ক্রাব ত্বকের ডেডসেল দূর করতে খুবই উপযোগী। কফি স্ক্রাব তৈরির জন্য একটি বাটিতে ২/৩ চামচ কফি নিয়ে নিন। এতে ১/২ চামচ ব্রাউন সুগার এবং অল্প পরিমাণ মধু কিংবা এলমান্ড অয়েল মিশিয়ে নেই।প্যাকটি তৈরি হয়ে গেলে আলতো হাতে ম্যাসাজ করুন। ১৫ মিনিট পর পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এতে ত্বকের উজ্জ্বলতা তো বাড়বেই সাথে ত্বক থাকবে সজীব।

ত্বক পরিস্কার করতে

১ চা চামচ কফির সাথে ১ চা চামচ লেবুর রস দিয়ে একটি পেস্ট তৈরি করুন। এবার কিছুক্ষণ মুখে রেখে দিন। ১৫ মিনিট পর ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এটি ত্বকের ময়লা দূর করে ত্বক পরিস্কার করতে সাহায্য করবে।

চোখের ফোলা ভাব ও কালো দাগ দূর করতে

চোখের ফোলা ভাব ও কালো দাগ দূর করতে কফি অত্যন্ত কার্যকরী ভূমিকা পালন করে। হাফ কাফ পানিতে ১ চা চামচ কফি মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করে তা চোখের পাতায় ও চোখের নিচে দিয়ে রাখুন চোখ বন্ধ করে। ৫ মিনিট পর তুলা ভিজিয়ে তুলে ফেলুন এবং পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। চোখের ফোলা ভাব কমবে ও চোখের নিচে কালো দাগ দূর হবে।

ব্রণ দূর করতে

কফিতে থাকা অ্যান্টি -অক্সিডেন্ট ও ভিটামিন ব্র এবং মেছতার দাগ দূর করতে সহায়ক ভূমিকা পালন করে। ২ চা চামচ কফির সাথে ১ চা চামচ মধু ও এক চিমটি হলুদ মিশিয়ে মুখে লাগান। শুকিয়ে গেলে পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।

ময়েশ্চারাইজারের কাজ

প্রাকৃতিক ময়েশ্চারাইজার হিসেবে কফি খুব দারুণভাবে কাজ করে। ২ চা চামচ কফির সাথে ২ চা চামচ অলিভ অয়েল মিশিয়ে মুখে লাগান। শুকিয়ে গেলে ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এটি ত্বককে কোমল ও উজ্জ্বল করবে।

পায়ের যত্নে

পায়ের সৌন্দর্য বর্ধনে কফি অত্যন্ত কার্যকর। আধা বালতি কুসুম পানিতে এক কাপ কফির গুঁড়া মিশিয়ে তাতে পা ডুবিয়ে রাখুন ১৫-২০ মিনিট। পায়ের গোড়ালি, পায়ের তালুতে ভালো করে ঘষুন। এতে পায়ের ফাটা দূর হয়ে পা কোমল হবে।

খুশকি দূর করতে

কুসুম গরম পানিতে ১ চা চামচ কফির সাথে ডিমের সাদা অংশ মিশিয়ে মাথার তালুতে লাগিয়ে ম্যাসাজ করুন। ১০-১৫ মিনিট পর চুল ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। নিয়মিত ব্যবহার করতে খুশকি দূর হবে সেই সাথে চুলও মসৃন হবে।

কন্ডিশনার হিসেবে

হাফ বাটি গরম পানিতে কফির লিকার তৈরি করে নিন। ঠান্ডা হলে এর সাথে ২ টেবিল চামচ লেবুর রস এবং অ্যালোভেরা জেল মেশান। শ্যাম্পু করার পর মিশ্রণটি মাথায় লাগান। ৫ মিনিট রেখে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এটি কন্ডিশনারের কাজ করবে এবং চুলকে রাখবে হেলদি।

চুলের কালার হিসেবে

চুলকে রঙিন করতে ও কফির জুড়ি নেই। প্রথমে কফির সাথে মেহেদি গুঁড়া মিশিয়ে হেয়ার প্যাক তৈরি করুন।  চুলে লাগিয়ে ১ ঘন্টা পর ধুয়ে শ্যাম্পু করে ফেলুন। এতে মেহেদির রঙের সাথে কফির খুব সুন্দর একটি কালার আসবে চুলে।

স্কিন ও হেয়ার কেয়ারের জন্য অথেক্টিক প্রোডাক্ট চাইলে আপনারা সাজগোজের দুটি ফিজিক্যাল শপ ভিজিট করতে পারেন। যার একটি যমুনা ফিউচার পার্ক ও অপরটি সীমান্ত স্কয়ারে অবস্থিত। আর অনলাইনে কিনতে চাইলে শপ.সাজগোজ.কম তো আছেই। সবাই ভালো থাকবেন, সুস্থ থাকবেন এবং নিয়মিত নিজের যত্ন নিতে অনীহা করবেন না।

ছবি- সাটারস্টক

43 I like it
3 I don't like it
পরবর্তী পোস্ট লোড করা হচ্ছে...