মনের মত বিয়ের গিফট - Shajgoj

মনের মত বিয়ের গিফট

o-WEDDING-PRESENT-ETIQUETTE-facebook

এসে গেছে বিয়ের মৌসুম। পুরো শীতকাল জুড়েই এই সময়টা  বিয়ে-শাদীর ধুম লেগে থাকবে। আর আপনিও এই বিয়ের নিমন্ত্রণ কম পাবেন না। আমাদের বাংলাদেশিদের মধ্যে এই রেওয়াজ তো আছেই যে আত্মীয়, কাছের মানুষ, বন্ধু বা পরিচিত মানুষের জীবনের নতুন অধ্যায় শুরুর শুভ  আয়োজনে মনের মত উপহারসহ আমারা আমাদের শুভেচ্ছা জানিয়ে থাকি। বিয়ের নিমন্ত্রন আসলে প্রথমেই মাথায় আসবে কী উপহার দেওয়া যায়? আবার যাদের বিয়ে তারাও অনেক সময় একই রকম উপহার অনেক বেশি পান যা তাদের পুরোপুরি কাজেও লাগে না। তাই উপহার কেনার সময় নুতন যারা বিয়ে করতে যাচ্ছেন তাদের প্রয়োজন আর শখ মাথায় রেখেই উপহার কেনাটা ভালো।

[picture]

নুতন সংসারে তো সব কিছুই লাগবে যেমন ধরুন ওয়াটার ফিল্টার , ননস্টিক হাঁড়িপাতিলের সেট, হটপট, ব্লেন্ডার, জুসার, গ্রাইন্ডার, টোস্টার, রাইস কুকার, ভ্যাকুয়াম ক্লিনার, ইস্ত্রি কিংবা বিছানার চাদর, কুশন কভার, কম্বল, ফুল দানি, কার্পেট, ডিনার সেট, ইত্যাদি। ঘর সাজানর টুকিটাকি, পেইন্টিং, টেবিল লাম্প, ফটো ফ্রেম, কফি মগ সেট, ছুরি-কাঁটা-চামচের সেট এইগুলিও ভীষণ দরকারি ও মানানসই উপহার নুতন দম্পতিদের জন্য। কনের জন্য পারিজাত ডিজাইনের জুয়েলারি বক্স একটি সুন্দর উপহার ।

শাড়ি বা গয়না দেওয়ার চল অনেক আগে থেকেই চলছে। আপনার সামর্থ্য অনুযায়ী এই গিফট আপনি দিতেই পারেন। কাজের উপহার। এছাড়া আজকাল অনেক সুন্দর সুন্দর পার্স এসেছে মেয়েদের। তাই  পার্স, বা বিয়ের কনে যদি আপনার কাছের কেউ হয় তাহলে তার পছন্দের বিশেষ কোনো মেকআপ কিট খুব ভালো ও আনন্দদায়ক উপহার হবে। আপনি যদি বরের জন্য উপহার পছন্দ করেন তাহলে ঘড়ি বা পাঞ্জাবি খুব মানানসই গিফট। তবে পাঞ্জাবি কিনলে এমন কোথাও থেকে কেনা উচিত যাতে পরে দরকার হলে চেঞ্জ করে নিতে পারে তারা। আপনি গিফট রিসিটসহ আড়ং থেকে পাঞ্জাবি কিনলে মূল্য উল্লেখ থাকে না কিন্তু নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে চেঞ্জ করা সম্ভব। আবার আপনি সুটের কাপড়ও গিফট করতে পারেন যাতে পরে নিজেদের সময় আর সুযোগ মত নুতন বর বানিয়ে নিতে পারেন।  

 ইলেক্ট্রনিক সামগ্রীর মধ্যে অনেক কিছুই আপনি পছন্দ করতে পারেন। মোবাইল সেট, ক্যামেরা হতে পারে পারফেক্ট  গীফট। ডিজিটাল এ্যালবাম অল্প খরচের মধ্যে দারুন হয়।

 অফিস কলিগ বা বন্ধু হলে অন্য সব বন্ধু ও অফিস কলিগরা মিলে ভালো মানের এল.ই.ডি টেলিভিশন, মাইক্রোওয়েভ ওভেন, ওয়াশিং মেশিন, বা ঘরের ফার্নিচার  মানে এরকম বড় মানের গিফটও দেয়া সম্ভব।  আপনার শিক্ষক বন্ধু বা বান্ধবীর বিয়েতে একটি বিশেষ ডিজাইনের বুকশেলফও দেওয়া যেতে পারে আনন্দের সাথে।

নবদম্পতির মধুচন্দ্রিমার জন্য সবচেয়ে বেশি যা লাগবে তা হল টাকা। তাই এমন যদি হয় যে তাদের জন্য হানিমুনের টিকেট কেটে উপহার দিলেন –তবে কিন্তু তারা ভীষন খুশি হবেই।

সবশেষে বলব- নুতন সংসারে অনেক অনেক কিছুই লাগে। সবকিছুর তো আর লিস্ট দেয়া যায় না। তাই যারা নুতন জীবন শুরু করতে যাচ্ছে তাদের মনের মত জিনিষপত্র কেনার জন্য ক্যাশ টাকা  দেয়া না গেলেও আপনি প্রাইজবন্ড কিনে দিতে পারে। নুতন কাপল তাদের ইচ্ছামত খরচ করল বা জমিয়ে রাখল তাদের ইচ্ছে মত।

তবে পরিবারের সবাই আলাপ আলোচনা করে নিয়ে উপহার ঠিক করা যায় যাতে একই উপহার না হয়ে যায় আবার নুতন দম্পতিদের কাজেও লাগে।

তবে গিফট ভাউচার, গিফট কার্ড  আজকাল অনেকেই উপহার দিচ্ছেন বিয়েতে। ইলেকট্রনিক সামগ্রি, গিফট ভাইচার বা গিফট কার্ড, ঘর সাজানোর জিনিষপত্র উপহার সামগ্রীর অতুলনীয় বিয়ের গিফট হিসেবে।

ছবি –  হাফিংটনপোস্ট ডট কম

লিখেছেন –  রোকসানা আকতার 

8 I like it
6 I don't like it
পরবর্তী পোস্ট লোড করা হচ্ছে...