এই বসন্তে অ্যালার্জি - Shajgoj এই বসন্তে অ্যালার্জি - Shajgoj

এই বসন্তে অ্যালার্জি

ফেব্রুয়ারী ৯, ২০১৫

সিজনাল অ্যালার্জি হলো বছরের কোন বিশেষ সময় বা ঋতুতে অ্যালার্জির প্রকোপ বেড়ে যাওয়া। এমনিতে যাদের ধুলাবালিতে অ্যালার্জি বা ডাস্ট অ্যালার্জি আছে, তাদের প্রায় সারা বছরই কষ্ট হয়। বসন্ত কালে এই ধরনের অ্যালার্জি আরও বেড়ে যায়। সাধারণত ফেব্রুয়ারী থেকে এপ্রিল পর্যন্ত এই সমস্যা থাকে।

কেন বসন্তকালে অ্যালার্জির সমস্যা বেশি হয়?

বসন্তকাল ফুলের ঋতু, সেটা আমরা সবাই জানি। যত প্রিয় ঋতুই হোক না কেন, যত আয়োজনেই বসন্ত বরণ করুন না কেন, এই ফুলই বসন্তের অ্যালার্জির কারণ। শীতের পর এ সময় গাছে নতুন পাতা আসে, ফুল ফুটতে শুরু করে, মুকুল আসে, নতুন ঘাস গজায়। এই ফুল ও ঘাসে থাকে পোলেন বা রেণু যা বাতাসে ভেসে বেড়ায় বা পোকামাকড়ের গায়ে লেগে ঘুরে বেড়ায়। এসব রেণু বাতাসে ভেসে বিভিন্ন স্থানে উদ্ভিদের বংশবৃদ্ধি করে। বসন্তকালে বাতাসে এই ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র পোলেন বা রেণুর সংখ্যা বেড়ে যায় যা আপনার চোখে, নাকে, চামড়ায় এমনকি নিঃশ্বাসের সাথে ফুসফুসেও প্রবেশ করতে পারে।। এটাই অ্যালার্জি বেড়ে যাবার প্রধান কারণ।

উপসর্গঃ

অ্যালার্জির উপসর্গ একেজনের একেক রকম হয়ে থাকতে পারে। সাধারণত সর্দি, হাঁচি, নাকে বা চোখে চুলকানি, নাক বন্ধ হয়ে থাকা, চোখ ফুলে যাওয়া, চোখ থেকে ক্রমাগত পানি পড়া ইত্যাদি হতে পারে। ক্ষেত্র বিশেষে জ্বর এবং অ্যাজমাও হতে পারে।

কী করবেন?

প্রথমে আপনাকে জানতে হবে আপনার সিজনাল অ্যালার্জি বা কোনো ধরনের অ্যালার্জি আছে কিনা। যে সময়ে আপনি বেশি অ্যালার্জির সমস্যায় ভুগছেন, সে সময় ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী রক্ত পরীক্ষা বা ত্বক পরীক্ষা করে জানা যেতে পারে আপনার সিজনাল অ্যালার্জি আছে কিনা, কোন ধরনের পোলেনে আপনার অ্যালার্জি হচ্ছে।

পোলেনযুক্ত বাতাস থেকে দূরে থাকতে কিছু পন্থা অবলম্বন করতে পারেন। যেমন-

  • আপনার বাসার জানালা, দরজা বন্ধ রাখুন এই সময়। বিশেষ করে যখন বাতাসের বেগ থাকে। বেশি বাতাস থাকলে বা দিনের কোন নির্দিষ্ট সময় অ্যালার্জি বাড়লে সেই সময়টা বাসায় থাকুন।
  • সকালবেলায় বাতাসে বেশি পোলেন থাকে। সম্ভব হলে সকালবেলা বাইরের কাজ কমিয়ে আনুন।
  • ভ্রমনের সময় গাড়ির জানালা বন্ধ রাখুন।
  • ঘাসের লন বা ফুলের বাগান এড়িয়ে চলুন।
  • বাইরে বা বারান্দায় কাপড় শুকালে তাতে পোলেন লেগে থাকতে পারে। তাই ভেজা কাপড় ওয়াশিং মেশিনে শুকিয়ে ফেলুন বা ঘরের ভেতর শুকান।
  • বাইরে বের হলে মাস্ক, সানগ্লাস ব্যবহার করুন।

যাদের সিজনাল অ্যালার্জির সমস্যা থাকে তাদের সাধারণত আরও কিছু অ্যালার্জির প্রকোপ দেখা দিতে পারে। যেমন- ডাস্ট অ্যালার্জি, পোষা প্রাণী বা পেট অ্যালার্জি। ঘরের অভ্যন্তরে এক ধরনের ক্ষুদ্র জীবাণু থাকে যা মাইট নামে পরিচিত। এটিও অ্যালার্জি সৃষ্টি করে। তাই অ্যালার্জির ব্যাপারে সচেতন থাকুন, এতে আপনার ভোগান্তি কমবে। সর্বোপরি, অ্যালার্জি নিয়ে ডাক্তারের সাথে আলোচনা করুন। আপনার বসন্ত শুভ হোক।

লিখেছেনঃ শান্তা সোহেলী ময়না

সুত্রঃ ইন্টারনেট

ছবিঃমিরর.কো.ইউকে