স্বল্প সময়ে ও অল্প খরচে ব্রাইটেনিং ফেসিয়াল করুন ঘরে বসেই

স্বল্প সময়ে ও অল্প খরচে ব্রাইটেনিং ফেসিয়াল করুন ঘরে বসেই

edit

কোনো দাওয়াত বা স্পেশাল অকেশনের আগে আমরা সবাই চাই আমাদের স্কিনে ইনস্ট্যান্ট গ্লো আসুক। আর সেজন্য পার্লারই একমাত্র ভরসা! যদি বলি সব সময় পার্লারে না গিয়ে ঘরে বসেই ব্রাইটেনিং ফেসিয়াল করে নিতে পারবেন, তাও মাত্র কয়েক মিনিটে- তাহলে কি আমার কথা বিশ্বাস করবেন? আর এই ফেসিয়াল হবে শুধুমাত্র ফ্রুট এক্সট্র্যাক্ট দিয়ে! আজ আপনাদের জানাবো এমন একটি ফেসিয়াল কিট সম্পর্কে, যেটি দিয়ে স্বল্প সময়ে ও অল্প খরচে ব্রাইটেনিং ফেসিয়াল করা যাবে ঘরে বসেই।

ঘরে বসে ফেসিয়াল কেন সেইফ?

ফেসিয়াল অনেক ধরনের আছে। তার মধ্যে ব্রাইটেনিং ফেসিয়াল সব সময়ই বেশ ডিমান্ডিং। আর এই ধরনের ফেসিয়ালের স্যাটিসফেকশন কাজ করে যখন রিফ্রেশ, ক্লিয়ার আর রেডিয়েন্ট স্কিন পাওয়া যায়। আগে আমরা অনেক ধরনের স্কিন কেয়ার ট্রিটমেন্টের জন্য পার্লারের উপর ডিপেন্ডেন্ট থাকলেও এখন কিন্তু সেলফ ডিপেন্ডেন্সি বেড়ে যাচ্ছে। এখন আপনি চাইলেই ঘরে বসে স্বল্প সময়ে ও অল্প খরচে মাত্র সহজ কয়েকটি স্টেপে ব্রাইটেনিং ফেসিয়াল করতে পারেন।

ঘরে বসে ফেসিয়াল করার আরও একটি কারণ অবশ্য আছে। পার্লারে কী ধরনের প্রোডাক্ট ইউজ করা হচ্ছে, সেগুলো আপনার স্কিনের জন্য হার্মফুল কিনা, আবার সেগুলোর ডেইট এক্সপায়ার্ড হয়ে গিয়েছে কিনা সেটাও আপনি জানেন না। আবার সুপরিচিত পার্লারগুলো থেকে সব সময় এক্সপেনসিভ ফেসিয়াল নেওয়াটাও পসিবল না। সব কিছু মিলিয়ে ঘরে বসে ফেসিয়াল কিটের সকল ইনগ্রেডিয়েন্টস সম্পর্কে জেনে নিজে নিজে ফেসিয়াল করাটাই আমার কাছে সেইফ মনে হয়। পানাম ব্রাইটেনিং ফেসিয়াল কিট

পানাম কেয়ার ফ্রুটি গ্লো ফেসিয়াল কিট 

সুপরিচিত পানাম ব্র্যান্ডের PANAM CARE Fruity Glow Facial Kit একটি ব্রাইটেনিং ফেসিয়াল কিট। এর মেইন ইনগ্রেডিয়েন্ট হিসেবে ইউজ করা হয়েছে ডিফারেন্ট ফ্রুট এক্সট্র্যাক্ট। যেমন- পেঁপে, পমেগ্রেনেট (বেদানা), স্ট্রবেরি, ওয়াটারমেলন (তরমুজ)।

ফ্রুট এক্সট্র্যাক্টগুলো কীভাবে স্কিনে বেনিফিট দেয়?

পেঁপে- স্কিনের ইলাস্টিসিটি ইমপ্রুভ করে

পমেগ্রেনেট- পিগমেন্টেশন ও ডার্ক স্পট কমায়

স্ট্রবেরি- পোরস মিনিমাইজ ও ক্লিন করে

ওয়াটারমেলন- স্কিন টোন ব্রাইট করে

সরাসরি ফ্রুট এক্সট্র্যাক্ট দিয়ে তৈরি বলে এই ফেসিয়াল কিটটি স্কিনের জন্য একদম সেইফ। ইনস্ট্যান্ট ব্রাইট ও গ্লোয়ি লুক দেওয়ার সাথে সাথে এটি যেমন পিগমেন্টেশন ও সানট্যান কমাবে, তেমনই স্কিনে দিবে ম্যাক্সিমাম হাইড্রেশন।

প্যাকেজিং ও দাম

পানামের এই ফেসিয়াল কিটে আছে ৪টি টিউব। এই টিউবগুলোতে আছে ম্যাসাজ ক্রিম, স্ক্রাব, ফেইসপ্যাক ও ময়েশ্চারাইজার। একেকটি টিউবের ওজন ২৫ গ্রাম। হালকা গোলাপি রঙের এই কিটের প্যাকেজিংটি বেশ আই সুদিং।  আর এর ঘ্রাণও বেশ মাইল্ড। একটি কিট আপনি ইজিলি দুইবার ইউজ করতে পারবেন। কোন স্টেপের পর কোন স্টেপ সেটা যদি মনে না রাখতে পারেন তাহলে চিন্তার কিছু নেই। কারণ সবার বোঝার সুবিধার্থে টিউবের গায়ে ১, ২, ৩, ৪ নম্বর দেওয়া আছে।

পার্লারে প্রতিবার ফেসিয়াল করার খরচও কিন্তু অনেক। এত খরচ না করে একদম বাজেট ফ্রেন্ডলি এই ফেসিয়াল কিটটি ইউজ করতে পারেন। দাম হাতের নাগালে থাকায় স্টুডেন্টরাও ইজিলি এটি পারচেজ করতে পারবে।

কীভাবে ফেসিয়াল করবেন?

ম্যাসাজ ক্রিম

স্টেপ ১ঃ ম্যাসাজ ক্রিম

ফেসিয়াল করার আগে ফেইস ক্লিন করে নিন। এরপর ফেইসে ম্যাসাজ ক্রিম দিয়ে ধীরে ধীরে সার্কুলার মোশনে ২/৩ মিনিট ম্যাসাজ করুন। এ সময় আই এরিয়া অবশ্যই অ্যাভয়েড করতে হবে। ফেসিয়ালের এই স্টেপে ব্লাড সার্কুলেশন ইমপ্রুভ হয় বলে এটা গুরুত্বপূর্ণ একটি স্টেপ।

ম্যাসাজ ক্রিমে থাকা ফ্রুট এক্সট্র্যাক্টের বেনিফিট

এই ক্রিমে আছে পেঁপে ও বেদানার নির্যাস। পেঁপেতে আছে ‘প্যাপেইন’ নামে এক ধরনের এনজাইম যা কোলাজেন প্রোডাকশন বাড়ায়। ফলে স্কিনের ইলাস্টিসিটি ইমপ্রুভ হয় এবং প্রি ম্যাচিউর এজিং সাইনস ডিলে হয়। এতে আরও আছে ভিটামিনস ও অ্যান্টি-অক্সিডেন্টস, যা স্কিনের পিগমেন্টেশন কমিয়ে আনে। এছাড়া সানট্যান রিমুভ এবং স্কিন টোন লাইট করতেও পেঁপে বেশ হেল্প করে।

সার্কুলার মোশনে ম্যাসাজ

স্টেপ ২ঃ স্ক্রাব

অনেক পার্লারেই হার্শ স্ক্রাব ইউজ করা হয়, যার কারণে স্কিনে ইনফ্ল্যামেশন দেখা দেয়। কিন্তু এই স্ক্রাবের বিডসগুলো একেবারেই ছোট হওয়ায় কোনোরকম ইরিটেশন ছাড়াই স্কিনকে খুব জেন্টলি এক্সফোলিয়েট করে। ৪০-৪৫ সেকেন্ড সময় নিয়ে সার্কুলার মোশনে আস্তে আস্তে স্ক্রাবিং করুন। এতে ডেড সেলস রিমুভ হয়ে স্কিন হবে স্মুথ ও সফট।

স্ক্রাবে থাকা পমেগ্রেনেট ও স্ট্রবেরির বেনিফিট

এই স্ক্রাবে আছে পমেগ্রেনেট ও স্ট্রবেরি এক্সট্র্যাক্ট। স্ট্রবেরি এক্সট্র্যাক্ট এর এক্সফোলিয়েটিং প্রোপার্টিজ পোরস ক্লিন করে টাইট করতে হেল্প করে। ডার্ক স্পট ও পিগমেন্টেশন কমাতে হেল্প করে পমেগ্রেনেট।

ফেইস প্যাক

স্টেপ ৩ঃ ফেইস প্যাক

ফেসিয়ালের এই স্টেপটি বেশ রিল্যাক্সিং। এই ফেইস প্যাকে আছে তরমুজ ও পেঁপের নির্যাস। পুরো ফেইসে ইভেনলি প্যাক অ্যাপ্লাই করার পর শুকিয়ে আসলে কুসুম গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। ইনফ্ল্যামেশন ও রেডনেস রিডিউস করে স্কিনে ব্রাইটেনিং ও গ্লোয়িং ইফেক্ট দেয় এই প্যাকটি।

ফেইস প্যাকটি কেন অ্যাসেনশিয়াল?

তরমুজে আছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি, গ্লুটাথিওন ও লাইকোপিন। এই পাওয়ারফুল স্কিন ব্রাইটেনিং কমপোনেন্টগুলো স্কিনকে ভেতর থেকে ন্যাচারালি ব্রাইট করতে হেল্প করে। পেঁপেতে থাকা ন্যাচারাল স্কিন ব্লিচিং প্রোপার্টিজ স্কিন টোন লাইট ও একনে প্রিভেন্ট করতে হেল্প করে।

ময়েশ্চারাইজার

স্টেপ ৪ঃ ময়েশ্চারাইজার

ফেসিয়ালের ফাইনাল স্টেপ ময়েশ্চারাইজার। এতে আছে ওয়াটারমেলন ও স্ট্রবেরি এক্সট্র্যাক্ট। লাইট ওয়েট ও ক্রিমি টেক্সচারের এই ময়েশ্চারাইজারটি স্কিনে সুদিং ফিল দেয়। অল স্কিন টাইপের জন্য এটি স্যুইটেবল। ওয়াটারমেলনে প্রচুর পরিমাণে পানি আছে। যার কারণে স্কিন এক্সট্রিমলি হাইড্রেটেড থাকে।

এই তো জেনে নিলেন, মাত্র ৪টি স্টেপ ফলো করে কয়েক মিনিটেই কীভাবে ফেসিয়াল করা যাবে তার উপায়! ব্রাইট, গ্লোয়িং ও হেলদি স্কিনের জন্য এই ফেসিয়াল কিটটি মাসে দুইবার ব্যবহার করতে পারেন।

আমার এক্সপেরিয়েন্স

আমার স্কিন টাইপ ড্রাই। সেজন্য ইউজ করার আগে শিওর হয়ে নিয়েছিলাম কিটটি অল টাইপ স্কিনের জন্য স্যুইটেবল কিনা। এটি ইউজ করার পর আমার যা মনে হয়েছে-

১) স্কিন বেশ ভালোভাবে এক্সফোলিয়েট হয়েছে।

২) সান ট্যান অনেকটাই কমে এসেছে।

৩) স্কিন টোন আগের চেয়ে বেশ ব্রাইট লাগছে।

 

এই তো জানিয়ে দিলাম আমার এক্সপেরিয়েন্স। পানামের আরও একটি হারবাল গ্লো ফেসিয়াল কিট আছে। স্কিন টাইপ অনুযায়ী সেটাও ইউজ করতে পারেন। স্কিন ও হেয়ারকেয়ার সহ মেকআপ রিলেটেড অথেনটিক যে কোনো প্রোডাক্ট কেনার জন্য আমার ভরসার জায়গা সাজগোজ। অনলাইনে শপ.সাজগোজ.কম থেকে অথবা সাজগোজের চারটি ফিজিক্যাল শপ- যমুনা ফিউচার পার্ক, সীমান্ত সম্ভার, বেইলি রোডের ক্যাপিটাল সিরাজ সেন্টার এবং উত্তরার পদ্মনগর (জমজম টাওয়ারের বিপরীতে) থেকেও কিনতে পারেন আপনার পছন্দের প্রোডাক্টটি।

ছবিঃ সাজগোজ

6 I like it
0 I don't like it
পরবর্তী পোস্ট লোড করা হচ্ছে...