দীর্ঘ বিরতি কাটিয়ে কাজে ফিরছেন? মাথায় রাখুন কিছু বিষয় - Shajgoj দীর্ঘ বিরতি কাটিয়ে কাজে ফিরছেন? মাথায় রাখুন কিছু বিষয় - Shajgoj

দীর্ঘ বিরতি কাটিয়ে কাজে ফিরছেন? মাথায় রাখুন কিছু বিষয়

এপ্রিল ২৭, ২০১৭

আমাদের জীবন সরলরেখায় চলে না, একই ছকে বাঁধা পড়ে কেটে যায় না একটা জীবন । সবকিছুতেই বাধা পড়তে পারে, আসতে পারে বিরতি । সেই বাধায় জীবনকে তো বাঁধা পড়তে দেয়া যায় না । বিরতি কাটিয়ে ফিরে আসা লাগে জীবনের মূল ধারায়।

এমন বিরতি আসতে পারে আমাদের কাজের ক্ষেত্রেও। দীর্ঘ সময়ও একটা মানুষ কাজকর্মের বাইরে থাকতে পারে । কিন্তু গোটা জীবন তো কর্মহীন থাকা চলে না, এক না এক সময় আবার ফিরে আসতে হয় কাজের জগতে । তখন কিছু বিপত্তিও দেখা দেয় স্বাভাবিকভাবেই । জড়তা থেকে যায়, নতুন করে কাজের সাথে মানিয়ে নিতে সমস্যা তৈরি হয় । সবকিছু সামলেই ধীরে ধীরে নিজেকে আবার গুছিয়ে নেয়া লাগে।

নিজের কথাই বলি, আমি সাজগোজের জন্য লিখছি বেশ অনেকদিন হয় । শখের কাজটাকে নিয়মিত চর্চায় রাখতেই এখানে লেখার শুরু আমার । এই সময়টায় বড়সড় বিরতিও এসেছে। নিজের স্বাভাবিক জড়তাকে প্রশ্রয় দিতে গিয়ে লেখালেখি ভুলতেই বসেছিলাম প্রায় । ভাবছি ঠিকই যে লেখা আবার শুরু করবো, জলদিই কাগজ-কলম নিয়ে বসবো, কিন্তু লেখা আর হয় না । ভীষণ অবাধ্য জড়তা পেয়ে বসে । শখের কাজ হলেও তাতে এমন বাড়াবাড়ি রকম বিরতি আসতে দিতে নেই যদি না কোন গুরুতর কারণ থেকে থাকে। কাজে আলসেমি লাগতেই পারে । সেটা কাটানোর চেষ্টাও নিজের করতে হয়। অল্পস্বল্প করে হলেও নিজেকে কাজের মাঝে ধরে রাখা উচিত। তাতে আলসেমিটা খুব বেশি পেয়ে বসে না । মনে রাখবেন, বাজে অভ্যাসকে যতো সুযোগ দেবেন ততোই মাথায় চড়ে বসবে ।

কোন কাজই তো পুরোপুরি আপনা থেকে হয়ে যায় না । সেটা করার সামান্যতম চেষ্টাটুকু করা চাই । মাথায় ভাবনা গিজগিজ করতেই পারে, সেটা যতক্ষণ না কাজে পরিণত করছেন ততোক্ষণ তার মূল্য নেই । তাই ভেবে ভেবে বেলা পার না করে কাজ নিয়ে বসুন । আর নতুন কাজের চিন্তা দুম করেই মাথায় খেলে যাবে ধরে না নিয়ে মাথাটাকে খাটান, নিজে থেকে ভাবুন। অনেকদিন একটা কাজ না করলে ছোটখাটো বিষয়গুলিও ভুলে যেতে পারি আমরা। তাই চর্চা রাখুন । ঝালিয়ে নিন সবকিছুই ।

একটা কাজ এখন করতে ভালো লাগছে না, তা হতেই পারে । তুলে রাখুন । খানিক বাদে করতে বসুন আবার, কিংবা কয়েকদিন পর । এই ভালো না লাগার বিষয়টা আরো বেড়ে গেলে কিন্তু ঝামেলা । কাজ ভালো না লাগার স্বভাবকে রোগ হয়ে যেতে দেয়া যাবে না । কাজের ধরণ পাল্টে নিন, সম্ভব হলে পাল্টে নিন কাজে কাজের সময়ও । ভালো না লাগার অনেক কারণ থাকতে পারে । কারণ খুঁজে বের করুন, শুধরে ফেলুন সেটা আর তারপর কাজে মন দিন নতুন করে ।

নিজের কর্মজীবনে মোটেও সন্তুষ্ট নন আপনি । বিরতি নিয়েছিলেন সেই কারণেই । এখন আর আগের সেই কাজের জগতে ফিরতে মন টানছে না । দিনকে দিন জড়তা আর হতাশা বাড়ছে বরং । তবে একবার ভেবে দেখুন, ওই কাজেই ফিরে গিয়ে জোর করে নিজেকে মনযোগী করে তুলতে পারবেন? জীবন কাটানো সম্ভব সেভাবে? উত্তরটা “না” হবার সম্ভবনাই বেশি হলে বদলে ফেলুন কাজের ক্ষেত্র । পেশা পরিবর্তন খুব জটিল কিছু নয় যদি ভেবেচিন্তে হিসেব করে কাজটা করা যায় । তাছাড়া আগের কাজ নিয়ে টানা হতাশা খুব সহজেই আপনাকে নতুন কাজের প্রতি আগ্রহী করতে পারে ।

দীর্ঘ বিরতির সময়টা যেমনি কাটিয়েছেন, কাজে ফিরলে তাতো আর চলবে না । দুপুর গড়ানো আয়েশি ঘুমকে বিদায় জানাতে হবে । সকালের নাস্তা হিসেবে দুপুরের খাবার আর পাবেন না । ভোর দেখে ঘুমোতে যাবার দিনও হারিয়ে যাবে আবার । এসবের প্রস্তুতি চাই আগে থেকেই । হাস্যকর লাগলেও সত্যি, এসব অভ্যাস আমাদের চট করে যেতে চায় না । টানা দুই মাস যখন আপনি দশটা বাজিয়ে ঘুম থেকে উঠবেন, তারপর হুট করে একদিন ভোর ছয়টায় উঠতে হলে বিপদে পড়বেন বৈকি ।

বিরতি খারাপ কিছু নয় । তবে বিরতি কাটাতে না পারাটা ভালো কিছু না অবশ্যই । তাই কখনো কাজে বিরতি নিলে সেই বিরতির পর নতুন উদ্যমে ফিরে আসার প্রত্যয়টাও থাকা চাই ।

ছবি – ইন্সপিরিয়েশনফিড ডট কম
লিখেছেন – মুমতাহীনা মাহবুব