ক্র্যাকড হিল বা ফাটা গোড়ালি নিয়ে চিন্তিত? ঘরোয়া উপায়েই হবে এর সল্যুশন!

ক্র্যাকড হিল বা ফাটা গোড়ালি নিয়ে চিন্তিত? ঘরোয়া উপায়েই হবে এর সল্যুশন!

crcked-heel

ক্র্যাকড হিল বা ফাটা গোড়ালি! খুব পরিচিত শব্দ, তাই নয় কি? শীতকালে এই শব্দটি আমাদের দৈনন্দিন জীবনের একটি অংশ হয়ে যায় রীতিমতো! পা ফাটা সবারই কম বেশি থাকে। কিন্তু শীতকালে এটি একটু বেশিই তীব্র হয়। কেন হয় এই সমস্যাটি জানা আছে কি? ব্যাপারটি যে সিজোনাল তা নয়। কিছু কমন ফ্যাক্টর আছে যেগুলো ক্র্যাকড হিল বা ফাটা গোড়ালির জন্য দায়ী। সেগুলো হচ্ছে বাড়তি ওজন, লং টাইম ধরে দাঁড়িয়ে থাকা, প্রোপার সাইজের জুতা না পড়া, ক্ষারযুক্ত সাবান ব্যবহার, শুষ্ক ত্বক এবং সঠিক যত্ন বা হাইজিনের অভাব। পাবলিক প্লেসে আমরা মাঝে মধ্যে প্রাণপণে চেষ্টা করি ক্র্যাকড হিল যেন কারো নজরে না পড়ে। এতো টেনশনের মাঝে না গিয়ে অল্প কিছু সময় দিলেই আমরা এর থেকে পরিত্রাণ পেতে পারি সহজেই। ফেইসের যত্ন রাখা যতটা গুরুত্বপূর্ণ, পায়ের ক্ষেত্রেও কিন্তু ব্যতিক্রম নয়। চলুন জেনে আসি গোড়ালি ফাটা সমস্যার ঘরোয়া সমাধান সম্পর্কে।

ক্র্যাকড হিল বা ফাটা গোড়ালি রিপেয়ার করবো কীভাবে?

১) টি ট্রি অ্যাসেনশিয়াল অয়েল এবং অলিভ অয়েল

টি ট্রির অ্যান্টি মাইক্রোবিয়াল প্রোপার্টি হিলকে খুব ভালোভাবে ক্লিন করে। আর অলিভ অয়েল ন্যাচারাল ময়েশ্চারাইজার হিসাবে কাজ করে ড্রাইনেস দূর করতে বেশ হেল্পফুল। এই দুইটির কম্বিনেশন ক্র্যাকড হিলের বেস্ট সল্যুশন। পরিমাণমতো অলিভ অয়েলের সাথে ২/৩ ফোঁটা টি ট্রি অয়েল ভালো করে মিশিয়ে পায়ে ম্যাসাজ করুন। আর এটি করার পূর্বে গরম পানিতে অবশ্যই পা ডুবিয়ে রাখুন। এতে খুব দ্রুত সুফল পাবেন।

২) আপেল সিডার ভিনেগার এবং লেমন জেস্ট

লেবুর খোসা কিন্তু ফেলনা নয়। কারণ এর অ্যান্টি ইনফ্ল্যামেটরি প্রোপার্টি স্কিনকে এক্সফোলিয়েট করে। ভিনেগার পা ফাটা কমায় লক্ষণীয়ভাবে আর দুটি একত্রে স্কিনকে নারিশ করে। তাই ক্র্যাকড হিল বা ফাটা গোড়ালি রিপেয়ার হয় খুব তাড়াতাড়ি। পানি এবং লেমন জেস্ট মিশিয়ে ফুটিয়ে নিন। পানি হালকা ঠান্ডা হয়ে আসলে তাতে ১ টেবিল চামচ ভিনেগার মিশিয়ে ১৫-২০ মিনিট পা ভিজিয়ে রাখুন। ব্যস, পায়ের গোড়ালিতে থাকা মৃত কোষ পরিষ্কার হয়ে ত্বক হবে কোমল ও সুন্দর।

৩) ভ্যাসলিন আর লেবুর রস

ক্র্যাকড হিল রিপেয়ার করতে ভ্যাসলিনের জুড়ি নেই। আর লেবুর রস ভিটামিন সি যুক্ত তাই নতুন সেল গ্রোথে সাহায্য করে। প্রথমে কুসুম গরম পানিতে পা ভিজিয়ে রাখুন ২০ মিনিটের জন্য। ধুয়ে শুকিয়ে নিন। ১ চা চামচ ভ্যাসলিনের সাথে ৩-৪ ফোঁটা লেবুর রস মিশিয়ে নিন। মিশ্রণটি পায়ে লাগিয়ে উলের মোজা পরে নিন। কয়েক ঘণ্টা পর হালকা কুসুম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। ভালো ফলাফল পেতে রেগুলার এই প্রসেস ফলো করুন।

৪) হলুদ এবং যষ্টিমধু

Licorice বা যষ্টিমধু অত্যন্ত উপকারী প্রাকৃতিক উপাদান যাতে আছে Glycyrrhizin যা অ্যান্টি ইনফ্ল্যামেটরি এবং অ্যান্টি মাইক্রোবিয়াল এলিমেন্ট হিসাবে কাজ করে। হলুদের অ্যান্টি অক্সিডেন্ট প্রোপার্টি স্কিনকে উজ্জ্বল করে। সেই সাথে স্কিনের ইচিং ও ইরিটেশন কমায়। আর অ্যান্টি সেপটিক গুণাগুণ থাকায় ফাটা হিলের ক্ষত সারিয়ে তোলে। সামান্য হলুদের গুড়া এবং পরিমাণমতো লিকোরিস পাউডার পানি দিয়ে মিশিয়ে পেস্ট বানিয়ে নিন। তারপর পায়ের তলায় কিছুক্ষণ ম্যাসাজ করে ধুয়ে ফেলুন।

৫) অ্যালোভেরা জেল এবং গ্লিসারিন

অ্যালোভেরা জেল যে কতটা উপকারী সেটা লিখে শেষ করা যাবে না। ড্রাইনেস এবং পা ফাটা কমাতে এটি সাহায্য করে কারণ এটি ন্যাচারাল ময়েশ্চারাইজার হিসাবে কাজ করে। ঠিক তেমনি গ্লিসারিনও ত্বককে কোমল রাখে। ২ টে. চা. অ্যালোভেরা জেল আর ১ টে.চা. গ্লিসারিন মিশিয়ে নিন। পা গরম পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। মুছে নিয়ে মিশ্রণ লাগিয়ে ভালোভাবে ম্যাসাজ করুন এবং ধুয়ে ফেলুন। অথবা রাতে শোয়ার পূর্বে পা মুছে একটু ঘন করে অ্যালোভেরা জেল লাগিয়ে কটন মোজা পরে নিন। সকালে উঠে কুসুম গরম পানি দিয়ে পা ধুয়ে ফেলুন।

৬) রাইস ফ্লাওয়ার, মধু এবং ভিনেগার

ত্বকের যত্নে মধু দারুণ উপকারী, স্কিনকে ময়েশ্চারাইজ করে প্রাকৃতিকভাবেই। রাইস ফ্লাওয়ার স্কিনকে এক্সফোলিয়েট করে। ভিনেগার ডেড সেল পরিষ্কার করে। স্ক্র্যাব পেস্ট করুন ৩ টে.চা. রাইস ফ্লাওয়ার, ১ চা. চামচ মধু এবং ২-৩ ফোঁটা ভিনেগার দিয়ে। ১০ মিনিট হালকা গরম পানিতে পা ডুবিয়ে রাখুন। পরে ঐ পেস্ট দিয়ে ম্যাসাজ করুন এবং ধুয়ে ফেলুন। ভালো ফল পেতে সপ্তাহে ২/৩ বার করুন। আর বাসায় যদি শুধু মধু থাকে তাহলে টাবে পানি গরম করে তাতে প্রয়োজনমতো মধু মিশিয়ে নিন। ঝামা পাথর দিয়ে পায়ের তলা পরিস্কার করুন। তারপর পা মুছে ময়েশ্চারাইজার লাগান। এটি রাতে ঘুমানোর পূর্বে রেগুলার করলে ভালো ফল পাবেন।

৭) পাকা কলা

হেয়ার ও স্কিন কেয়ারে পাকা কলার ব্যবহার তো নিশ্চয়ই অনেক শুনেছেন! ক্র্যাকড হিল ঠিক করতে কলা ব্যবহারের কথা শুনেছেন কি? এতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন আছে, স্কিনে নারিশমেন্ট যোগাতে যেগুলো অতুলনীয়। আর এটি স্কিনকে হাইড্রেট ও সফট করে তোলে। পাকা কলা ভালো করে ম্যাশ করে সম্পূর্ণ পায়ে লাগিয়ে হালকা করে রাব করুন। ২০ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন। চাইলে দুধ অ্যাড করতে পারেন। এটি প্রাকৃতিক ক্লেনজারের কাজ করে থাকে।

হাতের কাছে থাকা উপাদানগুলি দিয়ে সহজেই আপনি ক্র্যাকড হিল বা ফাটা গোড়ালি থেকে পরিত্রাণ পেতে পারেন। ব্যস্ত জীবন থেকে একটু সময় নিয়ে পায়ের যত্ন নিতে ভুলবেন না। আর আমাদের দৈনন্দিন জীবনে এখন এত সুযোগ সুবিধা। পানি গরম করা তো এখন ২ মিনিটের ব্যাপার। শুধু দরকার আপনার নিজের প্রতি একটু যত্নশীল হওয়া।অথেনটিক প্রোডাক্টস কিনতে চাইলে সাজগোজের দুটি ফিজিক্যাল শপ যার একটি যমুনা ফিউচার পার্ক ও অপরটি সীমান্ত সম্ভারে অবস্থিত, সেখান থেকে কিনতে পারেন আর অনলাইনে কিনতে চাইলে শপ.সাজগোজ.কম থেকে কিনতে পারেন।

ছবি- সাটারস্টক, সাজগোজ

6 I like it
2 I don't like it
পরবর্তী পোস্ট লোড করা হচ্ছে...