সুইট অরেঞ্জ অ্যাসেনশিয়াল অয়েল এর বেনিফিটস জানা আছে তো? - Shajgoj

সুইট অরেঞ্জ অ্যাসেনশিয়াল অয়েল এর বেনিফিটস জানা আছে তো?

সুইট অরেঞ্জ অ্যাসেনশিয়াল অয়েল এর বোতল রাখা আছে বাদামি ব্যাকগ্রাউন্ডে

সুইট অরেঞ্জ অ্যাসেনশিয়াল অয়েল, এই অয়েলের কথা আমরা অনেকেই জানি না। যুগ যুগ ধরে এই অয়েল শুধু আরোমা থ্যারাপিতে ব্যবহার হয়ে আসছে না,সাথে স্কিন বা হেয়ার কেয়ারেও ব্যবহার হচ্ছে। আমি আজকে এমনই একটি অ্যাসেনশিয়াল অয়েল নিয়ে কথা বলবো যার একসাথে অনেকগুলো বেনিফিটস রয়েছে। যার নাম আমি আর্টিকেলের শুরুতেই নিয়েছিলাম, সেটি হল সুইট অরেঞ্জ অ্যাসেনশিয়াল অয়েল। এর গুনাবলি বলে শেষ করা যাবে না! স্কিন, হেয়ার কেয়ারের সাথে সাথে পারফিউম হিসাবে আর স্ট্রেস কমাতেও অনেক ভালো কাজ করে এই অ্যাসেনশিয়াল তেল।

প্রথমেই জেনে নিই অ্যাসেনশিয়াল অয়েল কী

তেলের বোতলের কথা চিন্তা করলেই আমরা ভাবি যে, বড় বা মিডিয়াম সাইজের কোন বোতলের মধ্যে তেল রয়েছে। কিন্তু, ছোট ছোট বোতলে “অ্যাসেনশিয়াল অয়েল” নামক যাদুকরি অয়েল পাওয়া যায়, তাই বা কয়জন জানে! বিভিন্ন গাছ, ফল বা ফুলের নির্যাস থেকেই অ্যাসেনশিয়াল অয়েল তৈরী করা হয়। গাছ, ফল বা ফুল থেকে ফ্লেভার বা অ্যারোমা সংগ্রহ করা হয়ে থাকে। ইউনিক অ্যারোমাই অ্যাসেনশিয়াল তেলের অন্যতম বৈশিষ্ট্য। অ্যাসেনশিয়াল অয়েলের রকমফের রয়েছে। যেমন- পেপারমিন্ট, ল্যাভেন্ডার, স্যান্ডেলউড, রোজমেরি, ক্যামোমাইল, ইলাং ইলাং, টি-ট্রি, লেমনগ্রাস, সুইট অরেঞ্জ। একেকটির ফ্লেভার ভিন্ন ভিন্ন হয়ে থাকে, তাই স্মেলেও ভিন্নতা পাওয়া যায়।

সুইট অরেঞ্জ অ্যাসেনশিয়াল অয়েল কী?

model with orange slice

সুইট অরেঞ্জ অয়েল সাইট্রাস সিনেনেসিসের রাইন্ড মানে খোসা থেকে বের করা হয়। অ্যাসেনশিয়াল অয়েল কোল্ড প্রেসিং পদ্ধতিতে তৈরি করা হয়, যা রাইন্ড থেকে তেল চেপে চেপে বের করা হয়। কখনও কখন কমলা গাছ থেকে পাতা এবং ফুল পাশাপাশি ব্যবহার করা হয়।

আমার পছন্দের সুইট অরেঞ্জ এসেনশিয়াল তেল হচ্ছে স্কিন ক্যাফের ১০০% ন্যাচারাল অ্যাসেনশিয়াল অয়েল-সুইট অরেঞ্জ। আমার স্কিনে বেশ কিছু দিন ধরেই একের পর এক ব্রণ দেখা দিচ্ছিলো। আমরা জানি, ব্রণ মানেই ব্রনের দাগ আর ব্রনের জেদি দাগ সহজে যেতে চায় না! আমি ফেইসমাস্ক হিসাবে  স্কিন ক্যাফের একনে কেয়ার মাস্ক ব্যবহার করেছিলাম। ভাবলাম অ্যাসেনশিয়াল অয়েল অ্যাড করি তাহলে এর রেসাল্ট আরও তাড়াতাড়ি পাবো।

ব্রণ ও ব্রণের দাগ কমানোর জন্য অনেক রিসার্চ করে আমি স্কিন ক্যাফের ১০০% ন্যাচারাল অ্যাসেনশিয়াল অয়েল-সুইট অরেঞ্জ সিলেক্ট করেছি। কারণ এতে কমলার নির্যাস ব্যবহার করা হয়েছে। রয়েছে প্রচুর পরিমাণের ভিটামিন সি যা পিগমেন্টেশন কমাতে অনেকটাই সাহায্য করে। তাছাড়া এই অয়েলটিতে ন্যাচারাল ইনগ্রেডিইয়েন্টের বেনিফিটস পাওয়া যায়। অ্যাসেনশিয়াল অয়েলটিতে অ্যান্টি-সেপটিক, অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি ও অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্যও রয়েছে।

এবার চলুন, স্কিন ক্যাফের ১০০% ন্যাচারাল অ্যাসেনশিয়াল অয়েল-সুইট অরেঞ্জের উপকারিতাগুলো দেখে নিই-

ত্বকের ক্ষেত্রে

  • ত্বকের বলিরেখা কমিয়ে আনে।
  • ব্রণ ও ব্রণের দাগ দূর করে।
  • ব্ল্যাকহেডস দূর করে।
  • ত্বকের হাইপারপিগমেন্টেশন কমায়।
  • ত্বককে ব্রাইট করে তুলে।
  • ত্বকের কোলাজেন বৃদ্ধিতে সাহায্য করে।

চুলের ক্ষেত্রে

  • খুশকি কমায়।
  • চুলের স্বাভাবিক বৃদ্ধি বজায় রাখে।
  • চুলের রুক্ষতা কমিয়ে চুলকে মসৃণ করে।

কীভাবে সুইট অরেঞ্জ অ্যাসেনশিয়াল অয়েল ব্যবহার করবেন?

ত্বক ও চুলের যত্নে যেভাবে এই অ্যাসেনশিয়াল তেল যে প্যাকগুলোতে ব্যবহার করি, ঐ প্যাকগুলোর ব্যবহারবিধি আপনাদের সাথে আমি এখন শেয়ার করছি।

ত্বকের জন্য 

  • স্কিন ক্যাফের একনে কেয়ার মাস্কের সাথে কয়েক ফোঁটা স্কিন ক্যাফে ১০০% ন্যাচারাল অ্যাসেনশিয়াল অয়েল-সুইট অরেঞ্জ মিশিয়ে নিই। এরপর প্যাকটি মিক্স করার জন্য পানি মিশিয়ে নিই। ১০ মিনিট প্যাকটি মুখে রেখে ধুয়ে ফেলি। এতে আমার ব্রণ ও টার দাগ কমে গিয়েছে।
  • ৫ ফোঁটা স্কিন ক্যাফের ১০০% ন্যাচারাল কোল্ড প্রেসড জোজোবা অয়েলের সাথে ১ ফোঁটা স্কিন ক্যাফে ১০০% ন্যাচারাল এসেনশিয়াল অয়েল-সুইট অরেঞ্জ মিক্সড করে পরিষ্কার ত্বকে ম্যাসাজ করে নিন। এতে ব্রণের দাগ দূর হবে, সাথে স্কিনও ময়েশ্চারাইজড থাকবে।

চুলের জন্য

সুইট অরেঞ্জ অ্যাসেনশিয়াল অয়েলের সাথে প্যাক

আমি স্কিন ক্যাফে ১০০% ন্যাচারাল কোল্ড প্রেসড কোকোনাট অয়েলের সাথে কয়েক ফোঁটা স্কিন ক্যাফে ১০০% ন্যাচারাল অ্যাসেনশিয়াল অয়েল-সুইট অরেঞ্জ মিক্সড করে নিই। এরপর হালকা করে স্ক্যাল্পে ম্যাসাজ করে নিই। নিয়মিত এই প্রসেস ফলো করে আমার খুশকি অনেকটাই কমে গিয়েছে। এছাড়াও যেকোনো মাস্কের সাথেও এই অয়েল মিক্সড করে নিতে পারেন। এতে কিন্তু মাস্কের কার্যকারিতা বাড়িয়ে দিবে। স্মেল খুবই রিলাক্সিং। সুইট অরেঞ্জ অ্যাসেনশিয়াল অয়েল আমার স্ট্রেস কমাতে অনেক হেল্প করে।

বোনাস টিপস!

  • গোসল করার সময় যদি পানিতে কয়েক ফোঁটা সুইট অরেঞ্জ অ্যাসেনশিয়াল অয়েল মিক্সড করে নিন, দেখবেন খুব ফ্রেশ লাগছে।
  • যাদের ঠোঁট অনেক ড্রাই, এই অ্যাসেনশিয়াল অয়েলটি দিয়ে হালকা করে ম্যাসাজ করুন। এতে ঠোঁট অনেক ময়েশ্চারাইজড হয়ে থাকবে।
  • হাতের কাছে কোন পারফিউম না থাকলে অ্যাসেনশিয়াল অয়েল কয়েক ফোঁটা অ্যাপ্লাই করে নিন। পারফিউমেরও কাজ করে অ্যাসেনশিয়াল অয়েল।

প্যাকেজিং

প্রথমেই বলেছিলাম অন্য অয়েলের মত এসেনশিয়ালের বোতল বড় হয় না। খুব ছোট ১০মিলিমিটারের কাঁচের বোতলে এই অয়েলগুলো প্রিজার্ভ করা হয়।

কেন আমার স্কিন ক্যাফে ১০০% ন্যাচারাল অ্যাসেনশিয়াল অয়েলসুইট অরেঞ্জ পছন্দ?

একটি সুইট অরেঞ্জ অ্যাসেনশিয়াল অয়েলের বোতল

যেহেতু, এই অয়েলটি যেহেতু আমার ব্রণ ও ব্রণের দাগ কমিয়ে এনেছে তাই অয়েলটি আমার ভালো লাগার অন্যতম কারন। স্কিন ক্যাফের ব্র্যান্ডটি কিন্তু আমার অনেক পছন্দের একটি ব্র্যান্ড। এই ব্রান্ডের উৎপাদনকারী দেশ আমাদের নিজেদের দেশ বাংলাদেশ, ভাবা যায়! স্কিন ক্যাফের কয়েক ধরণের অ্যাসেনশিয়াল অয়েল রয়েছে। সাথে তেল ও বিভিন্ন মাস্ক রয়েছে। সুইট অরেঞ্জ অ্যাসেনশিয়াল অয়েলের অরিজিন হলো ই এস এ।

স্কিন ক্যাফের প্রোডাক্টগুলো সাজগোজে পেয়ে যাবেন। অথেনটিক স্কিন কেয়ার ও হেয়ার কেয়ার প্রোডাক্ট কিনতে আমার সবসময়ের ভরসা হলো শপ.সাজগোজ.কম। অনলাইনে অর্ডার করে ঘরে বসেই প্রোডাক্ট হাতে পেয়ে যাই। তাছাড়া সাজগোজের দুইটা আউটলেট আছে, যেটা যমুনা ফিউচার পার্ক আর সীমান্ত সম্ভারে অবস্থিত। এছাড়া চাইলে আমার মত সাজগোজের অ্যাপস থেকেও প্রোডাক্ট কিনতে পারেন কোন ঝামেলা ছাড়াই। তাহলে আজ এই পর্যন্তই। ভালো থাকবেন, সুস্থ থাকবেন।

1 I like it
0 I don't like it
পরবর্তী পোস্ট লোড করা হচ্ছে...