মজবুত ও লম্বা চুল পেতে অ্যাভোকাডো অয়েলের ম্যাজিকাল সল্যুশন!

মজবুত ও লম্বা চুল পেতে অ্যাভোকাডো অয়েলের ম্যাজিকাল সল্যুশন!

3 (1)

সুন্দর ও স্বাস্থ্যোজ্জ্বল চুলের জন্য তেলের উপকারিতা ঠিক কতটা, সেটা আমরা সবাই জানি। সাধারণত আমরা নারকেল তেল, অলিভ অয়েল, ক্যাস্টর অয়েল এগুলোর সাথে ভালোভাবেই পরিচিত। কিন্তু অ্যাভোকাডো অয়েল ও অ্যাভোকাডো ফলের গুণাগুণ সম্পর্কে জানি কি? মজবুত ও লম্বা চুল পেতে অ্যাভোকাডো অয়েলের ম্যাজিকাল সল্যুশন অনেকেরই অজানা! চলুন আজ আমরা জেনে নিবো হেয়ার কেয়ারে অ্যাভোকাডো অয়েল ঠিক কতটা কার্যকরী আর কোন কোন উপায়ে এই তেলটি আপনি চুলের যত্নে ব্যবহার করতে পারেন। সেই সাথে অ্যাভোকাডো ফ্রুট দিয়ে দারুণ কিছু হেয়ার মাস্ক সম্পর্কেও আজ জানবো।

অ্যাভোকাডো অয়েল

অ্যাভোকাডো অয়েল তৈরি করা হয় ফ্রেশ অ্যাভোকাডো ফল দিয়ে কোল্ড প্রেসড পদ্ধতিতে। এই উদ্ভিজ্জ তেলে আছে প্রচুর পরিমাণে মনো ও পলি স্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিড, ফ্যাট সল্যুবল অ্যান্টি অক্সিডেন্ট, ভিটামিন এ, ডি, ই, পটাসিয়াম ও লেসিথিন।

এই তেল ব্যবহারের উপকারিতা

এই তেল একদম লাইট ওয়েট, ব্যবহার করা যায় নানা উপায়ে আর চুলের জন্য খুবই উপকারী। কোনো চিটচিটেভাব নেই, তাই অনেকেই এটি প্রিফার করে। এই তেল চুলে কীভাবে বেনিফিটস দেয়, সেটা আগে জেনে নেওয়া যাক!

১. চুল মজবুত করে

অ্যাভোকাডো অয়েলে আছে ওলিক অ্যাসিড ও মনো স্যাচুরেটেড ফ্যাট, যেটা চুলের গভীরে যেয়ে চুলে পুষ্টি যোগায়। লাইট ওয়েট হওয়ার কারণে খুব সহজেই স্ক্যাল্পে পেনিট্রেট করে। তাছাড়া এই ফ্যাটি অ্যাসিডের আরেকটি গুণ হলো, চুলকে মজবুত রাখার পাশাপাশি এটি ব্রেকেজ প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে। অর্থাৎ চুলের আগা ফাটা ও ভেঙে যাওয়া প্রিভেন্ট করতে এই তেল দারুণ কার্যকরী।

২. চুল পড়া কমিয়ে নিউ হেয়ার গ্রোথে সাহায্য করে

আমরা চুল নিয়ে সবচেয়ে বেশি যে সমস্যায় ভুগি সেটা হলো চুল পড়া। অ্যাভোকাডো অয়েলের একটি বিশেষ গুণ হলো এটি চুল পড়া কমিয়ে নতুন চুল গজাতে ভূমিকা রাখে। কেননা এতে আছে ভিটামিন ই, যেটি স্ক্যাল্পের ব্লাড সার্কুলেশন ইম্প্রুভ করে। আর এটি চুলের গোড়া শক্ত করে, ফলে চুল পড়ার পরিমাণ কমে যায়। হেয়ার রুট মজবুত করতে ভিটামিন ডি এর ভূমিকা অপরিসীম। সুতরাং ভিটামিন ই আর ডি এর উপকারিতা আপনি পাবেন একসাথেই, যদি অ্যাভোকাডো অয়েল দিয়ে স্ক্যাল্পে সঠিকভাবে ম্যাসাজ করেন!

 

৩. ড্যানড্রাফ থেকে সুরক্ষা দেয়

খুশকি বা ড্যানড্রাফ, এমন একটি সমস্যা যেটি চুলের গোড়া দুর্বল করে আর চুল পড়ার হার বাড়িয়ে দেয়। অ্যাভোকাডো অয়েলে থাকা অ্যান্টি অক্সিডেন্ট আর লিনোলেয়িক অ্যাসিড শুধু খুশকিই নয়, স্ক্যাল্পের অন্যান্য সমস্যা প্রতিহতও করে।

৪. কোলাজেন বৃদ্ধিতে সাহায্য করে

স্বাস্থ্যোজ্জ্বল চুলের জন্য হেলদি স্ক্যাল্প খুবই জরুরি। এর জন্য প্রয়োজন স্ক্যাল্পে কোলাজেন বৃদ্ধি করা। এক্ষেত্রে অ্যাভোকাডো অয়েল কিন্তু দারুণ কাজ করে। এখন গবেষণাতেও প্রমাণিত যে এটি স্ক্যাল্পের কোলাজেন বৃদ্ধিতে সাহায্য করে।

মজবুত ও লম্বা চুল পেতে অ্যাভোকাডো দিয়ে চুল সাজিয়েছে একজন মেয়ে পিছে হালকা সবুজ ব্যাকগ্রাউণ্ড

৫. লম্বা চুলকেও রাখে ট্যাঙ্গেল ফ্রি

আমরা অনেকেই চাই খোলা চুলে স্টাইল করতে। কিন্তু বাইরের ধুলাবালি, পল্যুশন আর সূর্যের আল্ট্রা ভায়োলেট- রে এসব থেকে চুলকে রক্ষা করা যেন রীতিমতো যুদ্ধ! ড্যামেজড চুল রিপেয়ার করতে, ট্যাঙ্গেল ফ্রি রাখতে এই তেল দারুণ কাজ করে। যারা চুল বড় করতে চাইছেন, কিন্তু একটু লম্বা হলেই আগা ফেটে যাচ্ছে বা চুলের আগা দুর্বল হয়ে যাচ্ছে; তাদের জন্য এই তেলটি কিন্তু মাস্ট হ্যাভ!

৬. হেয়ার রাখে শাইনি

যদি আপনি অল্প এফোর্টে ন্যাচারালি শাইনি হেয়ার পেতে চান, তাহলে অ্যাভোকাডো অয়েল হতে পারে আপনার জন্য ম্যাজিকাল সল্যুশন। কারণ এতে থাকা ফ্যাটি অ্যাসিড হেয়ারে শাইনি লুক দেয়, আর চুলকে ময়েশ্চারাইজডও রাখে।

মজবুত ও লম্বা চুল পেতে অ্যাভোকাডোর মাস্ক

তেলের গুণগান তো করলাম, এখন আসি অ্যাভোকাডো ফল কীভাবে চুলের যত্নে ব্যবহার করবেন সেই বিষয়ে। হাতের কাছে থাকা সহজলভ্য কিছু উপকরণ দিয়েই আপনি বানাতে পারেন বিভিন্ন হেয়ার মাস্ক। এই ফলটি কিন্তু এখন সুপারশপে পাওয়া যায়। হেয়ার কেয়ার রুটিনে অ্যাভোকাডোর ব্যবহার আপনাকে দিবে ঘন, মজবুত চুল; ঠিক ম্যাজিকের মতো।

১) মেয়োনিজ, কলা ও অ্যাভোকাডো হেয়ার মাস্ক

মেয়োনিজে আছে ডিম ও ভিনেগার, যা চুল বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। আর অ্যাভোকাডোর ভিটামিন ডি নতুন হেয়ার ফলিকল তৈরিতে সাহায্য করে। কলা আর মধু চুলের ময়েশ্চার রিস্টোর করতে হেল্প করে।

একটি বাটিতে মেয়োনিজ, কলা এবং অ্যাভোকাডো হেয়ার মাস্ক

এজন্য আপনার লাগবে

  • ১ কাপ মেয়োনিজ
  • ১/২ কাপ পাকা মিডিয়াম সাইজের অ্যাভোকাডো
  • মধু ও একটা কলা

ব্যবহার বিধি

  • অ্যাভোকাডো ফল থেকে সিড বের করে স্মুথভাবে ম্যাশ করে নিন। তাতে মেয়োনিজ, কলা ও মধু মিশিয়ে ভালোভাবে মিক্স করে নিবেন, যাতে কোনো লাম্পস অবশিষ্ট না থাকে।
  • চুল ও স্ক্যাল্পে অ্যাপ্লাই করুন। শাওয়ার ক্যাপ দিয়ে ঢেকে রাখুন এবং ২০ মিনিট অপেক্ষা করুন।
  • মাইল্ড শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন, শেষে কন্ডিশনিং। সপ্তাহে ১/২ বার ব্যবহার করতে পারেন এই মাস্ক।

২) অ্যাভোকাডো ও ডিমের মাস্ক 

ডিম এমন একটি উপাদান যেটি চুলের বৃদ্ধির জন্য ম্যাজিকের মতো কাজ করে। অ্যাভোকাডোর লেসিথিন চুলের ফলিকলকে নারিশমেন্ট প্রোভাইড করে। আর টকদই এই মাস্কে অ্যাড করতে পারেন, কেননা ড্রাই হেয়ারের যত্নে টকদই খুব ভালো কাজ করে। এই উপাদানগুলোর কম্বিনেশন নতুন চুল গজাতে হেল্প করার পাশাপাশি চুলকে রাখে শাইনি ও ময়েশ্চারাইজড।

অ্যাভোকাডো এবং ডিমের মাস্ক

যা যা লাগবে

  • অর্ধেকটা পাকা অ্যাভোকাডো
  • ১টা ডিমের কুসুম
  • টকদই

ব্যবহার বিধি

  • একটা বোলে ডিমের কুসুম খুব ভালোভাবে ফেটিয়ে নিন। টকদই অ্যাড করুন।
  • এখন অন্য একটি বোলে অ্যাভোকাডো ভালো করে ব্লেন্ড করে নিন। এখন তাতে ডিমের মিশ্রণ দিয়ে আবার ভালোভাবে মিশিয়ে নিন।
  • এবার স্ক্যাল্প থেকে শুরু করে সম্পূর্ণ হেয়ার লেন্থে অ্যাপ্লাই করে নিন।
  • স্ক্যাল্পে ম্যাসাজ করুন ১ মিনিট।
  • হালকা কুসুম গরম পানি দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। স্ক্যাল্প টাইপ অনুযায়ী শ্যাম্পু ব্যবহার করুন।

৩) অ্যাভোকাডো, কোকোনাট অয়েল ও অ্যাসেনশিয়াল অয়েলের মাস্ক

চুলের গ্রোথে আরেকটি উপকারী মাস্ক এটি। যারা চুল লম্বা রাখতে চান, তাদের জন্য এই প্যাকটি দারুণ কাজ করবে। কোকোনাট অয়েলের উপকারিতা তো জানাই আছে। সেই সাথে রোজমেরি অ্যাসেনশিয়াল অয়েল স্ক্যাল্প স্টিমুলেটর হিসেবে কাজ করে। চুল পড়া কমায় আর চুলকে হেলদিও রাখে। হেয়ার গ্রোথ বাড়াতে এই তেলের জুড়ি নেই।

অ্যাভোকাডো, কোকোনাট অয়েল এবং অ্যাসেনশিয়াল অয়েলের মাস্ক

উপকরণসমূহ দেখে নিন

  • একটি পাকা অ্যাভোকাডো
  • দুই টেবিল চামচ কোকোনাট অয়েল
  • ৪/৫ ফোঁটা রোজমেরি অ্যাসেনশিয়াল অয়েল

ব্যবহার বিধি

  • সবগুলো উপকরণ ব্লেন্ডারে এমনভাবে মিক্স করুন যাতে একটি স্মুথ ক্রিমি পেস্ট হয়।
  • ব্রাশ বা হাতের সাহায্য চুলে অ্যাপ্লাই করে নিন।
  • শাওয়ার ক্যাপ পরে নিন, এভাবে ৩০ মিনিট রাখুন।
  • শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন।

অ্যাভোকাডো অয়েলের ব্যবহার

হাতের কাছে অ্যাভোকাডো ফল নেই? তাতে কী, অ্যাভোকাডো তেল তো অ্যাভেইলেবল! বিভিন্ন DIY হেয়ার মাস্কের সাথে এই তেল ইউজ করা যায়। অ্যাভোকাডোর মাস্ক সম্পর্কে তো জানলাম, এখন জেনে নেই মজবুত ও লম্বা চুল পেতে অ্যাভোকাডো অয়েলের ব্যবহার নিয়ে।

১) অয়েল ম্যাসাজে

চুলের গোড়া শক্ত করার জন্য অয়েল ট্রিটমেন্ট একটি বেস্ট সল্যুশন। আর তাতে যদি অ্যাভোকাডো অয়েল ব্যবহার করা হয়, তাহলে তো কথাই নেই! অ্যাভোকাডো অয়েল ক্যারিয়ার অয়েল হিসাবে কাজ করে। অর্থাৎ এটি অ্যাসেনশিয়াল অয়েলের এর কার্যকারিতা বাড়িয়ে দেয়। ফলে চুল হয় ঘন ও মজবুত। চুল অনুযায়ী পরিমাণমতো অ্যাভোকাডো অয়েল নিয়ে পছন্দের অ্যাসেনশিয়াল অয়েল কয়েক ফোঁটা মিশিয়ে ম্যাসাজ করুন। চিটচিটে ভাব না থাকায় এই তেলটি আমার খুবই পছন্দের।

২) হেয়ার কন্ডিশনিংয়ে

জেনে অবাক হবেন, এই তেলটি দিয়ে ডিপ কন্ডিশনিং মাস্ক বানিয়ে নেওয়া যায়। চলুন জেনে নেই এর জন্য কী কী লাগবে-

১. দুই টেবিল চামচ অ্যাভোকাডো অয়েল

২. একটি কলা

৩. এক টেবিল চামচ মধু

৪. দুই টেবিল চামচ অ্যালোভেরা জেল

৫. পরিমাণমতো চায়ের লিকার

ব্যবহার বিধি

প্রথমে উপকরণগুলো মিশিয়ে নিয়ে স্মুথ পেস্ট বানিয়ে নিন। সম্পূর্ণ চুলে ভালোভাবে অ্যাপ্লাই করে নিয়ে কমপক্ষে ২০ মিনিট রাখুন। আর ভালো ফল পেতে চাইলে মোটামুটি ১ ঘন্টার মত রাখলেই হবে। হালকা কুসুম গরম পানি আর শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

মজবুত ও লম্বা চুল পেতে অ্যাভোকাডো

এতক্ষণে আপনারা জেনে নিয়েছেন, মজবুত ও লম্বা চুল পেতে অ্যাভোকাডো অয়েলের ম্যাজিকাল সল্যুশন সম্পর্কে! কতভাবে এটি আপনার চুলের জন্য বেনিফিসিয়াল, সেটাও জানা হয়ে গেলো। আমরা যখন ডায়েটে পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ ফল অ্যাড করি, তখন তার ফলাফল কিন্তু চুল এবং ত্বকেও দেখা যায়। সেক্ষেত্রে ফলাফল দ্বিগুণ হবে যদি সেটা বাহ্যিকভাবেও আমরা ব্যবহার করি। চুলের যত্নে এই তেলটি এখন আমার হলিগ্রেইল প্রোডাক্ট। আমি হেয়ার প্যাক, অয়েল ম্যাসাজ সবভাবেই অ্যাভোকাডো অয়েল ইউজ করি।

 

স্কিন ক্যাফে ন্যাচারাল অ্যাভোকাডো অয়েল আমি পেয়েছি সাজগোজে। অথেনটিক প্রোডাক্টস কিনতে আপনারা চাইলে সাজগোজের ফিজিক্যাল শপ- যমুনা ফিউচার পার্ক, মিরপুরের কিংশুক টাওয়ার, ওয়ারীর র‍্যাংকিন স্ট্রিট, ইস্টার্ন মল্লিকা, বসুন্ধরা সিটি, বেইলি রোডের ক্যাপিটাল সিরাজ সেন্টার, উত্তরার পদ্মনগর (জমজম টাওয়ারের বিপরীতে), সীমান্ত সম্ভার, চট্টগ্রামের খুলশি টাউন সেন্টার থেকেও বেছে নিতে পারেন আপনার পছন্দের প্রোডাক্টটি আর অনলাইনে কিনতে চাইলে শপ.সাজগোজ.কম থেকে কিনতে পারেন।

ছবি- সাটারস্টক, সাজগোজ

19 I like it
3 I don't like it
পরবর্তী পোস্ট লোড করা হচ্ছে...