আন্ডারআর্মসের দুর্গন্ধ নিয়ে বিব্রত? ৪টি ঘরোয়া উপায়েই হবে লং লাস্টিং সল্যুশন!

আন্ডারআর্মসের দুর্গন্ধ নিয়ে বিব্রত? ৪টি ঘরোয়া উপায়েই হবে লং লাস্টিং সল্যুশন!

underarm

আমাদের মধ্যে এমন অনেকেই আছেন, যাদের ফিজিক্যাল অ্যাকটিভিটি যেমন ব্যায়াম বা গরমের সময়ে পাবলিক ট্রান্সপোর্টে যাতায়াত করার সময় এক্সেস সোয়েটিং বা ঘাম হয়। ঘাম তো খুবই স্বাভাবিক, কিন্তু সমস্যা হলো আন্ডারআর্মসের দুর্গন্ধ! এই ব্যাড স্মেল নিয়ে সারাদিন কাটাতে হলে কেমন লাগে বলুন তো? অনেকেই এতে খুব বিব্রতবোধ করেন, বিশেষত মেয়েরা। দু’টি উপায়ে করা যেতে পারে এই সমস্যার সমাধান। এক, আপনি নিয়মিত ডিওডোরেন্ট বা বডি স্প্রে ব্যবহার করতে পারেন। দুই, ঘরোয়া উপায়ে এর সমাধান খুঁজতে পারেন।

ডিওডোরেন্ট বা বডি স্প্রে খুব চট জলদি একটা সমাধান, এগুলো ইনস্ট্যান্টলি আপনাকে রিফ্রেশিং ফিল দেয়। কিন্তু এটা তো আসলে লং লাস্টিং কোনো সল্যুশন দেয় না। তাছাড়া নিয়মিত কেমিক্যালযুক্ত প্রোডাক্ট ব্যবহার করা অনেকেই প্রিফার করেন না। তাহলে প্রাকৃতিকভাবে আন্ডারআর্মসের দুর্গন্ধ কীভাবে দূর করবেন? চলুন জেনে নেই এখনই।

আন্ডারআর্মসের দুর্গন্ধ কেন হয়?

আমাদের শরীরের ব্যাড স্মেলের অন্যতম মূল কারণ এপোক্রাইন গ্ল্যান্ড। এটি সাধারণত থাকে প্রাইভেট এরিয়া, ব্রেস্টের চারপাশে, বগল ও কানে। কানের ও ব্রেস্টের চারপাশের এই গ্ল্যান্ডগুলো যথাক্রমে ইয়ার ওয়্যাক্স ও আফটার বেবি ডেলিভারি মিল্ক তৈরিতে সহায়তা করে থাকে। এই গ্ল্যান্ড বা গ্রন্থি থেকে যে ঘাম হয় তা প্রোটিন রিচ। কান ও ব্রেস্ট এরিয়া ব্যতিত (বিশেষ করে আন্ডারআর্মসে) এই গ্রন্থি থেকে যে ঘাম হয় তা খুব সহজেই ব্যাকটেরিয়া দ্বারা সংক্রমিত হয়। যখন ব্যাকটেরিয়ার প্রভাবে এই প্রোটিন ভাঙতে থাকে, তখনই দুর্গন্ধ শুরু হয়। এছাড়াও অতিরিক্ত ঘামের আরেকটা কারণ হতে পারে হাইপারহাইড্রোসিস, যেটার জন্য প্রয়োজন সঠিক চিকিৎসা।

আন্ডারআর্মসের দুর্গন্ধ

ঘরোয়া সল্যুশন

অ্যাপল সিডার ভিনেগার

অ্যাপল সিডার ভিনেগারে অ্যান্টি মাইক্রোবিয়াল বৈশিষ্ট্য আছে। এটি আন্ডারআর্মসের এনভায়রনমেন্টকে নিউট্রিলাইজ করে এবং যেসব ব্যাকটেরিয়া দুর্গন্ধ সৃষ্টি করে সেগুলোকেও কমিয়ে আনে। এর জন্যে আপনাকে যা করতে হবে তা হলো একটা ছোট তুলার বল অ্যাপল সিডার ভিনেগারে ভিজিয়ে সেটা দিয়ে দিনে দু’বার আন্ডারআর্মস এরিয়া মুছে নিতে হবে। একবার গোসলের পরে, আরেকবার রাতে ঘুমানোর আগে। ব্যস, খুবই সিম্পল প্রসেস কিন্তু খুবই ইফেক্টিভ।

অ্যাসেনশিয়াল অয়েল

বিভিন্ন ধরনের অ্যাসেনশিয়াল অয়েল আছে যেগুলো শরীরের দুর্গন্ধ দূর করতে দারুণ কাজ করে। চলুন জেনে নেই এমনই দু’টি ইফেক্টিভ অ্যাসেনশিয়াল অয়েল নিয়ে।

১) ল্যাভেন্ডার অ্যাসেনশিয়াল অয়েল 

ল্যাভেন্ডার অ্যাসেনশিয়াল অয়েল 

ল্যাভেন্ডার অ্যাসেনশিয়াল অয়েলের স্মেল এমনিতেই খুবই রিফ্রেশিং। সেই সাথে এতে আছে অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল প্রোপারটিজ। ল্যাভেন্ডার অ্যাসেনশিয়াল অয়েল বিভিন্ন ধরনের স্কিন ও হেলথ প্রবলেমের সল্যুশনে দারুণ কার্যকরী। আন্ডারআর্মসের দুর্গন্ধ পারমানেন্টলি দূর করতে এক গ্লাস পানিতে ৪/৫ ফোঁটা ল্যাভেন্ডার অ্যাসেনশিয়াল অয়েল মিশিয়ে নিয়ে দিনে দু’বার আন্ডারআর্মস এরিয়াতে স্প্রে করবেন অথবা কটন প্যাড দিয়ে অ্যাপ্লাই করে নিবেন।

২) টি ট্রি অ্যাসেনশিয়াল অয়েল

আন্ডারআর্মসের দুর্গন্ধ দূর করতে টি ট্রি অ্যাসেনশিয়াল অয়েল দারুণ কার্যকরী। টি ট্রি অয়েলে আছে অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল ও অ্যান্টি ইনফ্ল্যামেটরি প্রোপারটিজ। এটি পোরস মিনিমাইজ করবে এবং ব্যাড স্মেল সৃষ্টিকারী ব্যাকটেরিয়ার উপদ্রব কমাতে হেল্প করবে। দুই ড্রপ টি ট্রি অ্যাসেনশিয়াল অয়েল এক গ্লাস পানিতে মিশিয়ে তুলার বলের সাহায্যে আন্ডারআর্মস এরিয়া মুছে নিবেন অথবা স্প্রে করে নিবেন। তবে টি ট্রি অয়েল খুব শক্তিশালী হওয়ার কারণে এটি ব্যবহার করার আগে প্যাচ টেস্ট করে নেওয়া উচিত। কারণ এই উপাদানটি ব্যবহারে অনেকেরই ত্বকে জ্বালাপোড়া হয়ে থাকে, বিশেষ করে ত্বক যদি সেনসিটিভ হয়।

 

অ্যালোভেরা জেল

অ্যালোভেরা জেলে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টি অক্সিডেন্ট। এতে আরও আছে হিলিং ও অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল প্রোপারটিজ। আন্ডারআর্মসের দুর্গন্ধ দূর করতে এই প্রাকৃতিক উপাদানটি অতুলনীয়। অ্যালোভেরার জুস শরীরকে ডিটক্সিফাই করে এবং দুর্গন্ধ সৃষ্টিকারী ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস করে। এর জন্য গাছের ফ্রেশ অ্যালোভেরা থেকে জেল বের করে পানিতে মিশিয়ে খেতে পারেন। পাশাপাশি অ্যালোভেরা জেল সরাসরি আন্ডারআর্মসে লাগালে ত্বকের রুক্ষতা, দাগ, প্যাচিনেস দূর হয়। আর অতিরিক্ত ঘামের কারণে যে দুর্গন্ধ হয়, সেটাও কমে আসবে। রাতে ঘুমানোর আগে আন্ডারআর্মস মুছে নিয়ে অ্যালোভেরা জেল সরাসরি লাগিয়ে রাখুন এবং সকালে ধুয়ে ফেলুন।

অ্যালোভেরা জেল

কোকোনাট অয়েল

আপনার আন্ডারআর্মসে কি ব্ল্যাক প্যাচেস আছে? নারকেল তেলে আছে মিডিয়াম চেইন ফ্যাটি এসিড, যা বেশ শক্তিশালী অ্যান্টি মাইক্রোবিয়াল এজেন্ট। এটি দুর্গন্ধ সৃষ্টিকারী ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস করার পাশাপাশি স্কিনের পিএইচ লেভেল ঠিক রাখতে সাহায্য করে। এতে আছে ভিটামিন ই, যা আন্ডারআর্মসের ডার্কনেস ও প্যাচিনেস কমাতে হেল্পফুল। গোসলের আগে আন্ডারআর্মসে নারকেল তেল লাগিয়ে রাখুন আধা ঘন্টা, এরপর ভালোভাবে শাওয়ার নিন। তবে ফাঙ্গাল ইনফেকশন থাকলে স্কিনে নারকেল তেল লাগাতে নিষেধ করা হয়।

এই ছিল আমাদের আজকের আলোচনা। তবে আন্ডারআর্মসের দুর্গন্ধ এড়াতে আরও কিছু কাজ করা আবশ্যক। যেমন- হাইজিন মেনটেইন করা, পরিষ্কার কাপড় পরিধান করা, প্রতিদিন গোসল করা ইত্যাদি। তবে এই সমস্যা যদি সাধারণ উপায়ে সমাধান না হয়, তাহলে বুঝতে হবে অন্য কোনো শারীরিক অসুবিধার কারণে এমনটা হচ্ছে যেক্ষেত্রে ডাক্তারের পরামর্শ নেওয়াই সঠিক সিদ্ধান্ত।

 

পারফিউম, বডি স্প্রে, ডিওডোরেন্ট, শাওয়ার জেল সবই পেয়ে যাবেন সাজগোজে। এক প্ল্যাটফর্মেই সেলফ কেয়ার ও পারসোনাল হাইজিনের সবকিছু পেয়ে যাচ্ছেন, তাও আবার ঘরে বসেই! অনলাইনে অথেনটিক প্রোডাক্ট কিনতে পারেন শপ.সাজগোজ.কম থেকে অথবা সাজগোজের ৪টি শপ- যমুনা ফিউচার পার্ক, বেইলি রোডের ক্যাপিটাল সিরাজ সেন্টার, উত্তরার পদ্মনগর (জমজম টাওয়ারের বিপরীতে) ও সীমান্ত সম্ভার থেকেও বেছে নিতে পারেন আপনার পছন্দের প্রোডাক্টটি।

ছবি- সাটারস্টক, সাজগোজ

2 I like it
0 I don't like it
পরবর্তী পোস্ট লোড করা হচ্ছে...