ব্রাইট স্কিন পেতে এবং ফিট থাকতে টারমারিক মিল্ক কীভাবে সাহায্য করে?

ব্রাইট স্কিন পেতে এবং ফিট থাকতে টারমারিক মিল্ক কীভাবে সাহায্য করে?

1

প্রতিদিনের ব্যস্ততায় ত্বকের হারিয়ে যাওয়া উজ্জ্বলতা ফিরিয়ে আনতে আমরা নানা ধরনের প্রোডাক্ট ব্যবহার করি। কিন্তু শুধু প্রোডাক্ট ব্যবহারই নয়, স্কিন ব্রাইট করতে এবং স্কিনের বিভিন্ন সমস্যা দূর করতে ডায়েটে রাখতে হবে প্রোপার নিউট্রিয়েন্টসযুক্ত খাবার ও ড্রিংকস। এমনই একটি ড্রিংক হচ্ছে টারমারিক মিল্ক অর্থাৎ হলুদ দুধ। এই ড্রিংকটি পান করায় কিন্তু ত্বকের ব্রাইটনেস খুব দ্রুত বাড়ে। আবার ফিট থাকতেও এটি বেশ হেল্প করে। আজকের আর্টিকেলে আমরা জানবো ব্রাইট স্কিন পেতে এবং ফিট থাকতে টারমারিক মিল্কের গুরুত্ব কতটুকু তা নিয়ে।

ব্রাইট স্কিন পেতে এবং ফিট থাকতে হলুদ কেন বেনিফিসিয়াল?

শত শত বছর ধরে হলুদকে হিলিং প্রোপার্টিজ আর কসমেটিক বেনিফিটসের জন্য ব্যবহার করা হচ্ছে। মসলা তো বটেই, বিউটি কেয়ার প্রোডাক্টে হলুদের ব্যবহার বেশ জনপ্রিয়। হলুদের হেলথ বেনিফিটস আসে মূলত কারকিউমিন থেকে। কারকিউমিন একটি বায়ো অ্যাক্টিভ কমপোনেন্ট। বায়োঅ্যাক্টিভ প্রোডাক্টের সরাসরি বোন (Bone) অর্থাৎ হাড়ের টিস্যুর সাথে বন্ডিং থাকে। এছাড়া কারকিউমিনে আছে অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি আর অ্যান্টি অক্সিডেন্ট প্রোপার্টিজ। এই উপাদানগুলোর কারণেই স্কিনের জন্য হলুদ অনেক বেশি বেনিফিসিয়াল।

ব্রাইট স্কিন পেতে হলুদের ব্যবহার

হলুদের অন্যান্য উপকার

শুধু স্কিন ব্রাইট করতেই নয়, স্কিনের অনেক সমস্যার সমাধান, এমনকি ব্যথাও কমায় এই হলুদ। চলুন জেনে নেই এর আর কী কী উপকার রয়েছে-

একনে স্পট রিমুভ করে

হলুদে থাকা অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি প্রোপার্টিজ একনে ও একনে স্পট রিমুভে বেশ ভালো কাজ করে। তাই ফেইস প্যাকে হলুদ ইউজ করলে সেটি কিন্তু একনে প্রন স্কিনে বেশ বেনিফিট দেয়। তবে যাদের অ্যালার্জির সমস্যা আছে, টারমারিক ব্যবহারের আগে অবশ্যই চিকিৎসকের সাথে পরামর্শ করে নেবেন।

ক্ষত সারাতে

হলুদে থাকা কারকিউমিন ইনফ্ল্যামেশন ও অক্সিডেশন কমায়, যার কারণে ত্বকের ক্ষত দ্রুত সারে। কোলাজেন বৃদ্ধিতেও হলুদ বেশ হেল্পফুল।

ইনফেকশনের বিরুদ্ধে ফাইট করে 

খুব কমন রোগ যেমন সর্দি, কাশি ঠান্ডার সমস্যা থাকলে তা দূর করতে হলুদের দুধ কিন্তু খুব উপকারী। হলুদে থাকা অ্যান্টি-ভাইরাল এবং অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল প্রোপার্টিজগুলো ইনফেকশনের বিরুদ্ধে ফাইট করতে সাহায্য করে।

পিরিয়ডের ব্যথা কমায় 

হলুদ দুধ যে শুধু রোগ সারাতে বা ত্বক উজ্জ্বল করতে সাহায্য করে তা নয়, মেয়েদের পিরিয়ডের ব্যথা কমাতেও এটি বেশ কার্যকরী। এই দুধ পানে বডি অনেকটাই রিল্যাক্স হয়। তাই যখন পিরিয়ডের ব্যথা শুরু হয়, তখন হালকা গরম দুধের সাথে হলুদ মিশিয়ে পান করুন।

পিরিয়ডের ব্যথা

ব্রাইট স্কিন পেতে হেল্প করে 

আমরা স্কিনকে ব্রাইট করতে, বয়সের ছাপ কমাতে অনেকভাবেই স্কিন কেয়ার করি, কিন্তু বডি যদি ভেতর থেকেই পরিষ্কার না থাকে, তাহলে ফেইসের ডালনেস থেকে শুরু করে একনে ব্রেকআউটস, বয়সের ছাপ দ্রুত ফেইস করতে হবে। এ জন্য ন্যাচারাল হলুদ বেশ হেল্পফুল। এ সমস্যাগুলো কমাতে অনেক অ্যান্টি-এজিং সাপ্লিমেন্টে হলুদের মেইন উপাদান কারকিউমিন ব্যবহার করা হয়।

টারমারিক মিল্কের বেনিফিটস

হলুদের কী কী বেনিফিটস আছে সেটা তো জানা হলো। কিন্তু দুধের সাথে হলুদ মেশালে সেটি কীভাবে হেলথকে বেনিফিট দেয়? চলুন জেনে নেই তাহলে-

আর্থ্রাইটিস ও জয়েন্ট পেইনের ব্যথা কমায়

আর্থ্রাইটিস, ইনফ্ল্যামেশন ও জয়েন্ট পেইনের মতো সমস্যাগুলোর সমাধান করে টারমারিক মিল্ক। শরীরের বিভিন্ন জয়েন্ট ও মাসলকে ফ্লেক্সিবল করে এবং ব্যথা কমায় এই ড্রিংকটি।

লিভার ডিটক্স হিসেবে কাজ করে

বডির ভেতরে থাকা হার্মফুল টক্সিন দূর করতে টারমারিক মিল্ক বেশ কার্যকরী। টক্সিক উপাদানগুলো কমিয়ে লিভার ফাংশন ভালো রাখে এই হেলদি ড্রিংক।

বোন হেলথ ইমপ্রুভ করে

ক্যালসিয়ামের একটি চমৎকার উৎস এই টারমারিক মিল্ক। এই ড্রিংকটিতে প্রচুর পরিমাণে নিউট্রিয়েন্টস আছে, যা বোনকে হেলদি ও স্ট্রং রাখে। অস্টিওপোরোসিস ও বোন লসের সম্ভাবনাও কমায় এই ড্রিংক। এক কথায়, হেলথের জন্য এটি ম্যাজিকাল একটি ড্রিংক!

টারমারিক মিল্ক

টারমারিক মিল্ক বানাবেন যেভাবে

টারমারিক মিল্কের নানা বেনিফিটস সম্পর্কে তো জানা হলো। এবার চলুন জেনে নেই কীভাবে বানাবেন বেনিফিসিয়াল এই ড্রিংকটি।

যা যা লাগবে

  • গরম দুধ ২৫০ মিলি
  • হাফ চা চামচ হলুদ গুঁড়া বা পেস্ট
  • ব্ল্যাক পেপার এক চিমটি

হলুদে থাকা কারকিউমিন খুব ধীরে ধীরে বডিতে কাজ করে। কিন্তু এর সাথে যদি ব্ল্যাক পেপার মিশিয়ে দেওয়া হয় তাহলে দ্রুত ইফেক্টিভ রেজাল্ট পাওয়া যায়। কারণ ব্ল্যাক পেপারে থাকা পেপেরিন কারকিউমিনকে বডিতে দ্রুত কাজ করতে সাহায্য করে।

লক্ষ্য রাখুন কিছু বিষয় 

১) হলুদ গুঁড়া করার সময় যেন অন্য মশলার সাথে মিক্স না হয়ে যায় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। কারণ অনেকেই আমরা বাজারে গিয়ে হলুদ মরিচ গুঁড়া করি। এতে কিন্তু অন্য মশলা মিক্স হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। এমন হলে গুঁড়ার বদলে কাঁচা হলুদও নিতে পারেন।

২) প্রতিদিন বেসিক স্কিন কেয়ার মেইনটেইন করার পাশাপাশি হলুদের দুধ খাওয়া শুরু করুন, যা আপনার স্কিনকে করবে ভেতর থেকে গ্লোয়িং ও হেলদি। তবে যারা প্রেগনেন্ট বা নার্সিং মাদার অথবা যাদের এই উপাদানগুলোর কোনোটিতে অ্যালার্জি আছে, তারা ডায়েটে হলুদের দুধ অ্যাড করার আগে ডাক্তারের সাথে অবশ্যই পরামর্শ করে নিন।

এই তো জেনে নিলেন, হলুদের দুধ শরীরের জন্য কত উপকারী। প্রোপার স্কিন কেয়ার যেমন ইম্পরট্যান্ট ঠিক তেমনি শরীরে সব পুষ্টি থাকাও দরকার। আর স্কিন কেয়ার, হেয়ার কেয়ার, মেকআপের জন্য প্রয়োজনীয় সব প্রোডাক্টস শপ.সাজগোজ.কম এ পেয়ে যাবেন। যারা নিজেরা দেখে শুনে কিনতে চান, তারা সাজগোজের যেকোনো আউটলেট থেকে কিনে ফেলতে পারেন যেগুলো যমুনা ফিউচার পার্ক, সীমান্ত সম্ভার, বেইলি রোডের ক্যাপিটাল সিরাজ সেন্টার এবং উত্তরার পদ্মনগর (জমজম টাওয়ারের বিপরীতে) এ অবস্থিত।

 

 

ছবিঃ সাজগোজ, সাটারস্টক

10 I like it
0 I don't like it
পরবর্তী পোস্ট লোড করা হচ্ছে...