প্রোডাক্ট রিভিউ | স্কিনফুড প্রিমিয়াম টোম্যাটো হোয়াইটেনিং ইমালশান - Shajgoj



প্রোডাক্ট রিভিউ | স্কিনফুড প্রিমিয়াম টোম্যাটো হোয়াইটেনিং ইমালশান


অক্টোবর ১৪, ২০১৮



কোরিয়ান বিউটি প্রোডাক্টস নিয়ে আমার আগ্রহ মূলত আমার এক ফ্রেন্ড কোরিয়াতে পড়তে যাওয়ার পর ওর সোশ্যাল মিডিয়ায় দেয়া ছবিতে ওর স্কিনের ড্রামাটিক চেইঞ্জ দেখে শুরু হয়। ওর মোটামুটি স্টেটে থাকা স্কিন যখন ওয়াও টাইপের হয়ে গেলো তখন আমি মোটামুটি কনভিন্সড হয়ে গেলাম যে ও শিওর ছবিতে ফটোশপ করছে। কিন্তু ভুলটা ভাঙলো ও দেশে আসার পর। সামনাসামনি দেখে যখন জিজ্ঞেস করলাম, ও কী টাইপের প্রোডাক্ট ইউজ করছে, তখন ও বললো ও কে-বিউটির সেভেন স্টেপ স্কিনকেয়ার রুটিন ফলো করে। এইটা নিয়ে বিস্তারিতভাবে আরেকদিন লিখবো। আজকে চলে যাচ্ছি আমার রিসেন্টলি ইউজ করা একটা ওয়াও টাইপ কোরিয়ান বিউটি প্রোডাক্টের রিভিউতে, যেটা কম্বিনেশান (টি-জোন অয়েলি, বাকি ফেইস ড্রাই টু নরমাল) এবং অয়েলি স্কিনের অধিকারীদের জন্য চমৎকার একটা স্কিনকেয়ার প্রোডাক্ট। সেটা হলো স্কিনফুড প্রিমিয়াম টোম্যাটো হোয়াইটেনিং ইমালশান, যাতে আছে ২০% টমেটো এক্সট্র্যাক্ট, মাইল্ড হোয়াইটেনিং এবং স্কিন ব্রাইটেনিং ইফেক্ট।

 

আমার স্কিন টাইপ অয়েলি। কাজেই হেভি ময়েশ্চারাইজার কখনোই লাগানো হয় না। আর আমি জানি, অয়েলি স্কিন যাদের তারা ময়েশ্চারাইজার নিয়ে সবসময়ই একটু কনফিউশনে ভোগেন। কম্বিনেশান এবং অয়েলি স্কিনের জন্য ময়েশ্চারাইজারের চেয়ে হালকা, কিন্তু পানির চেয়ে সামান্য ভারী ধাঁচের স্কিনকেয়ার প্রোডাক্ট হলো ইমালশান (Emulsion)। ফেসিয়াল লোশন ধাঁচের। লোশন শুনে ঘাবড়ানোর কিছু নেই। এই ধরনের প্রোডাক্ট তৈরিই করা হয়েছে এমনভাবে যেন এটা একইসাথে স্কিনকে ময়েশ্চারাইজড রেখে স্কিনকে ব্রিদ (Breath) করার সুযোগ দেয়। এটা ছেলে এবং মেয়ে সবাই ব্যবহার করতে পারবে।

রোদেপোড়া কালচেভাব দূর করতে পাকা টমেটোর রসের কিন্তু এমনিতেই জুড়ি নেই। আমার যখনই সানট্যান হয়, আমি এমনিতেও প্রতিদিন নিয়ম করে মিনিট দশেক টমেটোর রস মুখ, হাত, পায়ে লাগিয়ে রাখতে চেষ্টা করি। তাই টমেটোর এক্সট্র্যাক্ট সমৃদ্ধ এই ইমালশান-টা আমার কেনার আগ্রহ হয়। আর তাছাড়াও আমি স্কিনফুডের প্রোডাক্টগুলো পছন্দ করি। ওদের থিম-টা আমার ভালো লাগে যে, ফুড নিউট্রিয়েন্টস-কে ওরা প্রোডাক্টে ডেরাইভ করে। আর ১৯৫৭ সাল থেকে যারা প্রোডাকশন শুরু করে এখনো পর্যন্ত মার্কেটে টিকে আছে, তাদের প্রোডাক্ট ভালোই হবার কথা, তাই না? আমি এই প্রিমিয়াম টোম্যাটো হোয়াইটেনিং ইমালশানের একটা বোতল শেষ করে দ্বিতীয় বোতল কেনার পর এই রিভিউ লিখতে বসেছি।

প্যাকেজিং

ছোট্ট প্লাস্টিকের বোতলে ১৪০ মিলি পরিমাণে আসে প্রোডাক্ট-টা। বোতলটার রঙ লালচে গোলাপি ধাঁচের, ঢাকনাটা সাদা রঙের, উপরের অংশটা পাকা টমেটোর রঙের মত। ঢাকনা ঘুরিয়ে বোতল খুললে বোতল কাত করে প্রোডাক্ট বের করা যায়। আমার পারসোনালি পাম্প টিউব বেশি পছন্দ। কিন্তু যারা ট্রাভেল করেন, তারা সহজেই ব্যাগে ক্যারি করতে পারবেন, সাইজ-টা ছোট্ট আর লিকেজ হবার কোনই চান্স নাই। যারা নিয়মিত নামাজ পড়েন, অফিস কিংবা ভার্সিটি-তে, প্রতিবার নামাজের পর কিন্তু ব্যাগ থেকে বের করে সহজেই এই ইমালশান অ্যাপ্লাই করে নিতে পারেন। উৎপাদনের তারিখ থেকে দেড় বছর পর্যন্ত এর মেয়াদ থাকে। আমার এবারের বোতলটায় যেমন দেখতেই পাচ্ছেন ম্যানুফ্যাকচারিং ডেট দেয়া আছে ০৩-০৪-২০১৮, আর এক্সপায়ারি ডেট দেয়া আছে ০২-১০-২০১৯।

প্যাকেজিং অব স্কিনফুড প্রিমিয়াম টোম্যাটো হোয়াইটেনিং ইমালশান

প্রোডাক্ট কনসিসটেন্সি, স্মেল এবং টেক্সচার

আগেই বলেছি, ইমালশান হলো লোশনের চেয়ে হালকা, কিন্তু পানির চেয়ে ভারী এরকম টেক্সচারের একটা জিনিস। স্কিনফুড টমেটো হোয়াইটেনিং ইমালশানের রঙটা সাদা এবং হাতে নিলে মনে হয়, পানির চেয়ে সামান্য ভারী একটা not too runny, মানে not too thick, not too thin, এ জাতীয় কিছু একটা হাতে নিয়েছি।  খুব মৃদু, কিন্তু মিষ্টি একটা গন্ধ আছে এর। আমি পারসোনালি গন্ধবিহীন অথবা মৃদু সুগন্ধের স্কিনকেয়ার প্রোডাক্ট ইউজ করতে পছন্দ করি। সুতরাং যাদের কড়া গন্ধ পছন্দ নয়, তাদেরও এটা ভালো লাগার কথা।

টেক্সচার অব স্কিনফুড প্রিমিয়াম টোম্যাটো হোয়াইটেনিং ইমালশান

কিভাবে ইউজ করি

ফেইসওয়াশ দিয়ে মুখ ধুয়ে আসার পর মুখ মুছে প্রথমে একটা কটন বল/প্যাডে টোনার নিয়ে পুরো মুখ মুছে নিয়ে, তারপর আমি মিনিট দুই-তিনেক পর সিরাম ইউজ করি। তার মিনিট তিনেক পর আমি এই ইমালশান-টা মোটামুটি একটা ছোট কয়েন সাইজের কোয়ান্টিটিতে নিয়ে পুরো মুখে, চোখের আশপাশের এরিয়া বাদে, আস্তে আস্তে অ্যাপ্লাই করে নেই। আলতো হাতে ট্যাপ করে করে লাগাই। কিছুক্ষণ পর প্রোডাক্টটা অ্যাবসর্ব হয়ে বেশ ম্যাটিফায়িং একটা ফিনিশ দেয়। সেই সাথে স্কিনটাকে খুব সফট আর স্মুদ একটা ফিল দেয়। এটা ইউজ করা স্টার্ট করার পর থেকে আমার স্কিনের যে চেইঞ্জটা এসেছে, আমার ফ্রেন্ড এবং কলিগরা সবাই সেটা নোটিস করেছে, এবং বলেছে। এটা মেখে যে আমি ফর্সা হয়ে গিয়েছি, তা কিন্তু না। আমার সানট্যান অনেকটা ইমপ্রুভ হয়েছে, আর সবচেয়ে বড় কথা আমার অ্যাকনে প্রন স্কিনে এটা স্যুট করে গিয়েছে, স্কিনকে সফট আর স্মুদ করেছে, নতুন করে কোন ব্রণ বের হয় নি। পুরোনো দাগগুলো অনেকটাই কমেছে।

আপনার স্কিন যদি ড্রাই হয়, তাহলে ইমালশান দেয়ার মিনিট খানেক পর আপনি একটা ময়েশ্চারাইজার ও ইউজ করতে পারেন। স্কিনফুড এরই প্রিমিয়াম টোম্যাটো হোয়াইটেনিং ক্রিম নামের আরেকটা প্রোডাক্ট আছে যেটা আমি গত শীতে ব্যবহার করেছিলাম। ঐ ক্রিমটা সব টাইপের স্কিনেই ইউজ করা যায়। সেটার রিভিউ আরেকদিন লিখবো।

চাইলে ইমালশান দিয়েই স্কিনকেয়ার রেজিম শেষ করতে পারেন। আমি সাধারণত স্কিনকেয়ারে প্রোডাক্ট লেয়ার করি। অর্থাৎ, আমি ইমালশান টা দেয়ার মিনিট দুয়েক পর ২-৩ ফোঁটা স্কিনক্যাফে ল্যাভেন্ডার এসেনশিয়াল অয়েল মিক্স করা ন্যাচার্স রিপাবলিক অ্যালোভেরা জেল ইউজ করি। এটা রাতের বেলা হলে। আর দিনের বেলা হলে ইমালশানের পর সানস্ক্রিন দেই।

মূল্য এবং রেটিং

এর দাম ১,৩০০/- টাকা। আমার জন্য এই প্রোডাক্ট-টা খুব ভালো কাজ করেছে এবং আমি আবারও এটা কিনবো। আমি একে ব্যক্তিগতভাবে রেটিং দিবো ৯.৫/১০। ০.৫ কম দিচ্ছি, কারণ আগেই বলেছি আমার পাম্প টিউব বেশি পছন্দ। নাহলে পুরো ১০ এ ১০ দিয়ে দিতাম।

প্রাপ্তিস্থান

আমি কিনেছি শপ.সাজগোজ.কম থেকে। তাদের ই-কমার্স ওয়েবসাইট ছাড়াও যমুনা ফিউচার পার্ক আর সীমান্ত স্কয়ারে রিটেইল স্টোরে প্রোডাক্ট আছে। তাছাড়াও তাদের ফেসবুক পেইজ থেকেও চাইলে অর্ডার প্লেস করতে পারেন। আমি সেকেন্ড বোতলটা ইন ফ্যাক্ট ডিসকাউন্টে ১,১৭০/- টাকায় কিনেছি।

চেষ্টা করবো সামনে আরো রিভিউ লিখতে, যদিও এখন সত্যিই খুব একটা সময় পাই না। যদি এটা পারচেইজ করে থাকেন, তাহলে আপনাদের এক্সপেরিয়েন্স কমেন্টে জানাতে পারেন। সবাই ভালো থাকবেন।

 

লিখেছেন : অর্থিয়া