ত্বকের যত্নে স্টিম ফেসিয়াল - Shajgoj

ত্বকের যত্নে স্টিম ফেসিয়াল

facial-steam

ত্বকের সৌন্দর্য বজায় রাখতে ফেসিয়ালের গুরুত্ব অপরিসীম। ফেসিয়াল আপনার ত্বককে সজীব রাখে। বিভিন্ন ধরনের ফেসিয়াল হয়, ফেসিয়ালের মধ্যে স্টিম ফেসিয়াল ত্বকের জন্য খুবই উপকারী। কেননা উত্তপ্ত বাষ্প রোমকূপের মুখকে প্রসারিত করে। ফলে ধুলো ময়লা ও অবাঞ্ছিত তৈলাক্ত পদার্থ আটকে থাকা সব ময়লা পরিষ্কার হয়ে যায়। গরম পানির ভাপ মুখে নিলে ত্বকের রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধি পায় এবং এই ফেসিয়াল একটু মনযোগী হলে নিজে ঘরে বসেই করা সম্ভব।  স্টিম মানে ত্বকে গরম ভাপ নেয়া। ত্বকের যত্নে স্টিম নেয়ার বিষয়টি বহু আগে থেকেই প্রচলিত।

স্টিমের উপকারিতাঃ

বিভিন্ন পার্লারে এখন ফেসিয়াল স্টিম এর ব্যবস্থা রয়েছে। এতে উপকার অনেক। বিশেষ করে যাদের মুখে ব্রণ আছে তাদের জন্য এটি খুবই উপকারী। সপ্তাহে একদিন ৫/৭ মিনিট স্টিম যথেষ্ট।

– মুখে ময়লা জমেই সাধারণত ব্রণ হয়, আর স্টিম বা ভাপ নেয়ার ফলে ত্বকের ময়লা পরিষ্কার হয় ফলে ব্রণও কমে যায়।

-স্টিম ত্বকের রক্ত স্বঞ্চালন বাড়ায়।

-ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধিতে সহায়তা করে।

-অনেকের ত্বকে মৃত কোষ হয়, স্টিম ত্বকের মৃত কোষ নরম করে এবং ময়লা পরিষ্কার করতে সাহায্য করে।

স্টিম যেভাবে নিতে হবেঃ

একটি নির্দিষ্ট তাপমাত্রায় পানি ফুটিয়ে একে বাষ্প করা হয়। তারপর এর ভাপ নেয়া হয়। ত্বকে এই ভাপ নেয়ার প্রক্রিয়াকেই স্টিমিং বলে। স্টিম নেয়ার ফলে ত্বকে ঘামের সৃষ্টি হয় ও আর্দ্রতা বাড়ে। যা ত্বক নিমিষেই পরিষ্কার করে ফেলে। কেবল মুখের ত্বকেই না পুরো শরীরেই স্টিম নেয়া যায়। অনেকের বাসায় বাথ টাব আছে সেখানে গরম পানিতে স্টিম বাথ নিতে পারেন অথবা কোন স্টিম কক্ষে কিছু সময় থাকতে পারেন। বাড়িতে স্টিম নেয়ার জন্য পানি ফুটিয়ে নিন। একটি গামলায় পানি নিয়ে মুখটি বাষ্পের উপরে ধরুন, এবং একটি তোয়ালে দিয়ে মাথাটি ঢেকে দিন। এভাবে কিছুক্ষণ নিয়ে মুখ সরিয়ে ফেলুন। তারপর আবার একটু নিন। বাষ্পের খুব কাছে মুখ না নিয়ে সহ্যমাত্রা অনুযায়ী নিন। তবে এ সময় চোখ বন্ধ রাখুন।

আসুন জেনে নেই কী করে ঘরে বসে স্টিম ফেসিয়াল করা যায়ঃ

মাথার চুল পিছন দিকে আঁচড়ে বেঁধে ফেলুন। একটা বড় গামলায় অর্ধেকটা ফুটন্ত গরম পানি নিন। একটা বড় তোয়ালে পিঠের দিক থেকে মাথার উপরে টেনে গামলা ঢেকে দিন যাতে বাষ্প বেরিয়ে যেতে না পারে। অনেকটা তাবুর মত করে তোয়ালে দিয়ে ঝুঁকে পড়া মাথা সমেত গামলা ঢেকে দিন। চোখ দুটো বন্ধ করুন। মাঝে মাঝে তোয়ালে সরিয়ে শ্বাস নিবেন। চামচ দিয়ে মাঝে মাঝে পানি নাড়িয়ে দিলে বেশি করে বাষ্প উঠতে থাকবে। ১০ মিনিট ভাপ নিন। পানিতে আপনি ইচ্ছে করলে বিভিন্ন রকম প্রাকৃতিক উপাদান মিশাতে পারেন। যেমনঃ ২টি লেবুর রস অথবা খোসা, ২ চামচ থেঁতো মৌরি। ভাপ নেওয়া শেষ হলে ঠাণ্ডা পানির ঝাপটা দিয়ে মুখ ধুয়ে নিন। তোয়ালে দিয়ে মুছে নিন। সব শেষে ময়েশচারাইজার ক্রিম মেখে নিন। গামলার বদলে বেসিনের ফুটো বন্ধ করে করতে পারেন।

কিছু সতর্কতাঃ

-যাদের ত্বকে অ্যালার্জির প্রকোপ রয়েছে বা একটু নাজুক ধরনের তাদের জন্য এটি উপকারী নয়।

-ত্বকের ধরন বুঝে স্টিম নেয়া উচিত।

-সাধারণত একটু দূর থেকে অর্থাৎ ১২-১৫ ইঞ্চি দূরে থেকে স্টিম নেয়া ভালো।

-খেয়াল রাখবেন স্টিম যেন অনেকক্ষণ ধরে না নেয়া হয়। ৫/৭ মিনিট নিলেই হবে।

-প্রতিদিন স্টিম না নিয়ে সপ্তাহে একদিন নেয়া ভালো।

আমাদের দেহের সবচেয়ে স্পর্শকাতর অংশ হচ্ছে ত্বক। আমরা সবাই চাই সুস্থ, সুন্দর, পরিষ্কার, উজ্জ্বল ত্বক। আর এ জন্য প্রয়োজন নিয়মিত পরিচর্যা। পরিচর্যার প্রথম শর্ত ত্বক পরিষ্কার রাখা। ত্বক পরিষ্কার থাকলে এমনিতেই ত্বকের উজ্জ্বলতা ও স্নিগ্ধতা বজায় থাকে। ত্বকে ময়লা জমলে লোমকূপ বন্ধ হয়ে যায়। এতে ব্ল্যাকহেডস, হোয়াইট হেডস, ব্রণসহ নানা রকম সমস্যা হয়। তাই ত্বক পরিষ্কার রাখতে অনেকে স্টিম নিয়ে থাকেন।

লিখেছেনঃ রোজেন

ছবিঃ ব্লগ.সিডিএন.কম

0 I like it
0 I don't like it
পরবর্তী পোস্ট লোড করা হচ্ছে...