চটজলদি মোহনীয় চাহনি - Shajgoj

চটজলদি মোহনীয় চাহনি

women-eye-17

অভিব্যক্তি প্রকাশের সবচেয়ে সুন্দর মাধ্যম হচ্ছে চোখ।তাই তো কখনো আইলাইনার, আইশ্যাডো কিংবা মাশকারা দিয়ে চোখটাকে আরেকটু আকর্ষনীয় করে তোলার প্রচেষ্টা সবসময়ই করে থাকে সবাই।কিন্তু চোখের অভিব্যক্তি প্রকাশে চোখের পাপড়ির জুড়ি নেই। তাই চোখটাকে আরেকটু সুন্দর দেখানোর জন্য অনেকে আবার আলাদা ফেক আইল্যাশও লাগিয়ে থাকেন যা ঠিকমত লাগানো যেমন একদিকে কষ্টসাধ্য অন্যদিকে সময়সাপেক্ষ। তাছাড়া এসব পণ্য লাগানোর জন্য যে ধরনের আঠা ব্যবহার করা হয় তা চোখের জন্য বেশ ক্ষতিকর।

[picture]

কিন্তু তাই বলে তো চোখের সৌন্দর্যে কোন কমতি থাকা চলে না ।তাই আজকে আমরা এমন একটি পদ্ধতির কথা আপনাদের জানাবো যার মাধ্যমে কোন ধরনের ক্ষতি ছাড়া খুব সহজেই পেতে পারেন নজরকাড়া চোখ। আর সময়? মাত্র ২০ সেকেন্ড!

আইল্যাশ কার্লার চোখের পাপড়িকে উপরের দিকে বাঁকা করে আপনাকে করে তোলে আকর্ষনীয় চোখের অধিকারী। বর্তমানে এই যন্ত্রটির ব্যবহার সকল বয়সি নারীদের মধ্যেই দেখা যাচ্ছে। স্কুল, কলেজের শিক্ষার্থী থেকে শুরু করে কর্মব্যস্ত নারী, সকলের কাছেই সমান জনপ্রিয়।

বাজারে মূলত দুই ধরনের আইল্যাশ কার্লার পাওয়া যায়।

১.ম্যানুয়্যাল- এটি হাতের সাহায্যে ব্যবহার করা হয়। আকারে ছোট, তাই ব্যাগের অন্যান্য খুঁটিনাটি জিনিসপত্রের সাথে সহজেই নিয়ে নিতে পারেন।

২. ইলেকট্রিক- এটি ব্যাটারিচালিত। হিটিং কিংবা নন-হিটিং দুই ধরনের ইলেকট্রিক আইল্যাশ কার্লারই পাওয়া যায়। তবে চোখের নমনীয়তার কথা ভেবে হিটিং কার্লার ব্যবহার না করাই ভালো।

eye lash 1

আজকে আমরা ম্যানুয়াল আইল্যাশ কার্লার সম্পর্কে আপনাদের জানাবো।

এ ধরনের আইল্যাশ কার্লার সাধারণত স্টীলের তৈরি হয়ে থাকে। তবে কার্লারের যে অংশ চোখের সংস্পর্শে আসে সেখানে রাবারের পরত দেয়া থাকে যার ফলে চোখে কোন ধরনের আঘাত লাগার সম্ভবনা  থাকে না। তাই নিজে নিজে খুব সহজে ও কম সময়ে কাজের ফাঁকেই সেরে নিতে পারেন আইল্যাশ কার্লিং।

ব্যবহার পদ্ধতি:

  • নিচে প্রদর্শিত ছবির ন্যায় আইল্যাস কার্লারটি চোখের ওপর স্থাপন করুন।

eye lash 2

  • এবার হালকাভাবে নিচের অংশটিতে হাতের সাহায্যে চাপ দিন।

eye lash 3

  • ১০ সেকেন্ড এভাবে চাপ দিয়ে রাখুন।
  • এবার নিজেই লক্ষ্য করুন অভাবনীয় পরিবর্তন।

eye lash 4

  • অপর চোখের পাপড়িও একইভাবে কার্ল করুন।
  • কার্ল দীর্ঘস্থায়ী করার জন্য কার্লার ব্যবহারের পূর্বে হেয়ার ড্রায়ার দিয়ে হালকা গরম করে নিতে পারেন।

সাবধানতা:

  • কার্লার গরম করে নিতে চাইলে অবশ্যই দেখে নেবেন যাতে কার্লার খুব বেশি গরম না হয়।এতে চোখের ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে স্পর্শ করে দেখুন কতটা তাপ সহ্য করতে পারবেন।
  • কার্ল করার সময় বেশি জোরে চাপ দেয়া যাবে না। অসাবধানতাবশত বেশি জোরে চাপ দিলে চোখের পাপড়ি ছিড়ে যেতে পারে।
  • আইল্যাশ কার্লার পাপড়ির সাথে চেপে রাখার সময় খেয়াল রাখতে হবে যাতে হাত না নড়ে। এতে চোখে আঘাত লেগে চোখের ক্ষতি হতে পারে।

এটি বিভিন্ন দামে পাওয়া যায়। তবে চোখের সংবেদনশীলতার কথা মাথায় রেখে একটু ভালো মানের আইল্যাশ কার্লার কেনাটাই বুদ্ধিমানের কাজ হবে। ৬০০ থেকে ১০০০ টাকার মধ্যে যেকোন সুপারশপ বা শপিংমলে অনায়াসেই পেয়ে যাবেন। ভালো কোন অনলাইন শপ থেকেও অর্ডার দিয়ে কিনে নিতে পারেন আপনার কাঙ্ক্ষিত আইল্যাস কার্লার।

লিখেছেন – মুশরাত জাহান দোলা

ছবি –  ইউটিউব

0 I like it
0 I don't like it
পরবর্তী পোস্ট লোড করা হচ্ছে...