সৌন্দর্য চর্চায় 'ওয়ান অফ দ্যা বেস্ট ফেসিয়াল অয়েলস' - Shajgoj সৌন্দর্য চর্চায় 'ওয়ান অফ দ্যা বেস্ট ফেসিয়াল অয়েলস' - Shajgoj

সৌন্দর্য চর্চায় ‘ওয়ান অফ দ্যা বেস্ট ফেসিয়াল অয়েলস’

মার্চ ২২, ২০১৬

অনেক আগে নিজের হাতে আন্ডার আই ডার্ক সার্কেলের জন্য সিরাম আর ক্রিম বানাবার রেসিপি আপনাদের সাথে শেয়ার করেছিলাম। আর সেখানে অন্যান্য উপাদানের সাথে ইভিনিং প্রিমরোজ অয়েলের নামও ছিল। অনেক পাঠকই তখন জানতে চেয়েছেন, এটা কী? কোথায় পাওয়া যায়? এবং ত্বকের যত্নে কীভাবে এই তেল ব্যবহার করে।

    দেরিতে হলেও আজকের লেখায় আপনাদের সব প্রশ্নের উত্তর দেয়ার চেষ্টা করছি-

ইভিনিং প্রিমরোজ অথবাoenothera biennisগাছের প্রতিটা অংশই এডিবল এবং স্বাস্থ্য এবং সৌন্দর্য চর্চায় এর ব্যবহার হয়ে আসছে সেই প্রাচীনকাল থেকে। আর এই তেল একি সাথে খেয়ে বা টপিকালি অ্যাপ্লাই করে এর বিভিন্ন গুনাগুন পাওয়া যায়। কিন্তু আমাদের দেশে যে প্রিমরোজ অয়েলের অরাল সাপ্লিমেনটগুলো পাওয়া যায় সেগুলো ডাক্তাররা বিভিন্ন চর্মরোগ, মেয়েলী সমস্যার জন্য প্রেসক্রাইব করেন এবং প্রেস্ক্রিপশন ছাড়া এধরনের সাপ্লিমেনট খাওয়ার ফলাফল কখনই ভালো হয় না।

primrose flower
এই হচ্ছে ইভিনিং প্রিমরোজ …

চলুন দেখে নেই কীভাবে ত্বকের যত্নে ইভিনিং প্রিমরোজ তেল ব্যবহার করা যায়-

–   ইভিনিং প্রিমরোজ তেল একটি ভালো মানের ক্যারিয়ার অয়েল। মানে যারা বাদাম তেল/ অলিভ অয়েলের সাথে এসেনশিয়াল অয়েল মিশিয়ে ব্যবহার করেন তারা এটার সাথেও একইভাবে এসেনশিয়াল অয়েল মিক্স করে ত্বক এবং চুলের যত্নে ব্যবহার করতে পারবেন।

–   এই তেলে থাকা অত্যন্ত হাই ফ্যাটি এসিড, ওমেগা ৩ এবং ওমেগা ৬ লেভেল ত্বকের বিভিন্ন সমস্যার জন্য একে করে তুলেছে ওয়ান অফ দ্যা বেস্ট ফেসিয়াল অয়েলস…! এমন কি এটা অন্যান্য ফেসিয়াল অয়েল যেমন- পিওর বাদাম তেল অথবা আরগান অয়েল থেকে অনেক হালকা! যে কারণে অয়েলি স্কিনের জন্য এটা অন্যান্য তেল থেকে অনেক ভালো। এটার কনসিসটেনসি অ্যাভকাডো অয়েল অথবা রোজহিপ অয়েলের মতই লাইট, এবং স্কিনে অ্যাপ্লাই করার সাথে সাথেই ত্বকের গভির স্তরে গিয়ে ড্যামেজ সারিয়ে তোলার গুণের কারনে সব ধরণের অরগানিক ফেসিয়াল অয়েল রেসিপিতে ইভিনিং প্রিমরোজ অয়েলের ব্যবহার লক্ষণীয়…

–   নিয়মিত ব্যবহারে ইভিনিং প্রিমরোজ অয়েল ত্বকের একজিমা, অতিরিক্ত ড্রাইনেস, চামড়া ওঠা, ত্বকের রিঙ্কল এবং ফাইন লাইনস, চোখের কালচেভাব এবং চোখের নিচের রিঙ্কল কমাতে অনেক বেশি কার্যকরী।

–   এছাড়াও দীর্ঘদিনের ব্যবহারে ত্বকে সূর্যের ক্ষতিকর প্রভাব কমিয়ে তারুণ্য ধরে রাখার জন্যও ইভিনিং প্রিমরোজ অয়েলের অনেক সুনাম আছে।

–   অরেগন স্টেট ইউনিভারসিটির রিসার্চে দেখা গেছে যে, ইভিনিং প্রিমরোজ অয়েল ব্যবহারে প্রমানিতভাবে ত্বকের ইনফ্লেমেটরি ড্যামেজ কমে। যেমন-সানবার্ন, একজিমা ইত্যাদি।

কোথায় পাবেন ইভিনিং প্রিমরোজ অয়েল?

আমাদের দেশে এখনও যেখানে সেখানে এই তেল পাওয়া যায় না। আগে সবসময়ই অরগানিক কোল্ড প্রেসড তেল অর্ডার দিয়ে আনিয়ে নিতে হত। কিন্তু এখন সাফ্যায়ার রেগুলার এই তেল তাদের কালেকশনে রাখার ট্রাই করছে। কাজেই যারা নিজেদের স্কিন কেয়ার রুটিনে ইভিনিং প্রিমরোজ অয়েল অ্যাড করতে চান তারা ধানমণ্ডি রাইফেলস স্কয়ার অথবা যমুনা ফিউচার পার্কের স্যাফায়ার শো রুম থেকে অথবা হোম ডেলিভারিতে ইভিনিং প্রিমরোজ অয়েল কালেক্ট করতে পারেন।

Maple houstics এর পিওর ইভিনিং প্রিমরোজ অয়েলের দাম পড়বে ১৯৫০ টাকা।

primrose

কীভাবে ব্যবহার করবেন ইভিনিং প্রিমরোজ অয়েল-

এই তেল সবচেয়ে ভালো কাজ করবে ২৫ থেকে এর উপরের বয়সি একটু ড্যামেজড স্কিনে। যাদের স্কিন রোজকার ঝঞ্ঝাটে এতটাই ড্যামেজড হয়ে গেছে যে মুখের ফাইন লাইন্সগুলো নিয়ে কী করবেন ভেবে পাচ্ছেন না তারা আর কোন কিছু চিন্তা না করে ইভিনিং প্রিমরোজ ইউজ করা শুরু করতে পারেন। নিচে এই ফেসিয়াল অয়েল ইউজ করার কিছু পদ্ধতি বলে দিচ্ছি-

অয়েলি স্কিনের জন্য-

অয়েলি স্কিনের জন্য পিওর তেলই যথেষ্ট। প্রতি রাতে ভালোভাবে ফেস ক্লিন করে হাতে জাস্ট এক ফোঁটা তেল নিয়ে মুখে হালকাচাপড় দিয়ে দিয়ে লাগাবেন। কোনভাবেই ত্বকের স্কিনে টেনে বা ঘসে লাগানোর চেষ্টা করবেন না। এই তেলই আপনার নাইট ক্রিমের কাজ করবে।

ড্রাই স্কিনের জন্য

যাদের স্কিন অতিরিক্ত ড্রাই এবং সবসময় মুখের চামড়া টানটান লাগে এবং রিঙ্কল ফাইন লাইন্স নিয়ে ঝামেলায় আছেন তারা সবচেয়ে ভালো ফল পাবেন পিওর কাঠবাদাম তেলের সাথে প্রিমরোজ অয়েল ইউজ করলে।

১ ফোঁটা আমনড অয়েল এবং ১ ফোঁটা প্রিমরোজ অয়েল হাতের তালুতে নিয়ে দুই হাত ঘসে মুখের স্কিনে হালকা চাপড় দিয়ে তেল লাগিয়ে নিন।

অ্যান্টি রিঙ্কল ফেসিয়াল অয়েল রেসিপি

-১ টেবিল চামচ আমনড অয়েল

-১ টেবিল চামচ আভকাডো অয়েল

-১ চা চামচ ইভিনিং প্রিম রোজ অয়েল

-১ টি ভিটামিন ই ক্যাপ্সুলের তেল

সব একত্রে মিশিয়ে একটি অস্বচ্ছ বোতলে বা কৌটায় রেখে দিন এবং প্রতি রাতে ত্বকে ময়েশ্চারাইজার হিসেবে এটা ইউজ করুন। ত্বকের রিঙ্কল এবং ইরিটেসনের সমস্যায় ভালো ফল পাবেন। সাথে ত্বকের তারুণ্য বজায় থাকবে বহুদিন।

আন্ডার আই সিরাম হিসেবে

আগে চোখের নিচের কাল দাগের জন্য এই সিরামটি শেয়ার করেছিলাম। দেখে নিতে পারেন কীভাবে চোখের নিচের দাগ এবং ভাজ দূর করতে ইভিনিং প্রিমরোজ অয়েল ইউজ করতে হয়।

রোজকার ত্বকের যত্নে ইভিনিং প্রিমরোজ তেল অত্যন্ত উপকারি, এটা হালকা, ঝামেলা বিহীন, সাইড ইফেক্ট মুক্ত… পরিমানে লাগে খুবই অল্প এবং তারচেয়েও বড় কথা এটা কাজ করে!! তাই ট্রাই করে দেখতেই পারেন…

লিখেছেন – তাবাসসুম মুস্তারি মীম