বুলেট জার্নালিং | নিজেকে অধ্যাবসায়ী ও দক্ষ করে তোলার সেরা উপায় - Shajgoj

বুলেট জার্নালিং | নিজেকে অধ্যাবসায়ী ও দক্ষ করে তোলার সেরা উপায়

সার্কেডিয়ান রিদম ও প্রোডাক্টিভিটি

কেমন হয় যদি মাত্র ১০ মিনিটের একটি ছোট অভ্যাস আপনার জীবনযাত্রায় ইতিবাচক পরিবর্তন নিয়ে আসে?  বুলেট জার্নালিংয়ের নাম হয়তো অনেকেই শোনেন নি। প্রতিদিনের কাজের ট্র্যাক রাখার পাশাপাশি অতীতের কাজের সাথে বর্তমানের সমন্বয় ঘটাতে সাহায্য করা এবং ভবিষ্যতের কাজের অগ্রিম পরিকল্পনা গ্রহণ এর মূল উদ্দেশ্য। আপনার প্রাত্যহিক জীবনের অংশ হতে পারে এই অভ্যাসটি। আজ কথা বলবো বুলেট জার্নালিং নিয়ে।

বুলেট জার্নাল কী?

বুলেট জার্নাল হলো একটি নোট- যা সহজভাবে ব্যক্তিগত ও পেশাদার উদ্দেশ্যের জন্য ব্যবহৃত হয়। এটি অনেকটা ডায়েরিতে নোট রাখার মতোই একটি কাজ, কিন্তু সাধারণ জার্নালের চেয়ে কিছুটা আলাদা। বুলেট জার্নাল আপনি আপনার নিজের সুবিধামতো কাস্টমাইজ করে নিতে পারেন।

এটি একটি একক নোটবুক, যেখানে দৈনন্দিন কাজের সময়সূচী, অনুস্মারক, করণীয় কাজের তালিকা, ভাবনার বিষয়াবলী এবং অন্যান্য সাংগঠনিক কাজগুলিকে একসাথে সংরক্ষণ করে। বুলেট জার্নালে কাজের ট্র্যাক রাখতে, অ্যাপয়েন্টমেন্ট ও মিটিংগুলোর সময়সূচী রাখতে, প্রকল্পগুলো পরিচালনা করতে, নোট নিতে, কীভাবে সময় ব্যয় করা হচ্ছে তা ট্র্যাক করতে ব্যবহার করা যায়৷ নতুন অভ্যাস গড়ে তুলতেও সাহায্য করবে বুলেট জার্নাল। এমনকি কেউ কেউ বার্ষিক পর্যালোচনার লক্ষ্যগুলোর ট্র্যাক রাখতেও এটি ব্যবহার করেন৷ কীভাবে কাজের জন্য বুলেট জার্নাল ব্যবহার করা যায়, তার হাজার হাজার তথ্য রয়েছে।

কীভাবে ব্যবহার করবেন?

বুলেট জার্নালিং নিজের জীবনে ইতিবাচক পরিবর্তন আনার জন্য বেশ কার্যকরীভাবে কাজ করে। বুলেট জার্নাল ব্যবহার করার জন্য নিম্নলিখিত পদক্ষেপগুলি অনুসরণ করতে পারে-

প্রথম পৃষ্ঠা: জার্নালের প্রথম পৃষ্ঠাটি সূচীপত্র হিসেবে ব্যবহার করুন। এখানে আপনি আপনার জীবনের লক্ষ্য, একটি সংক্ষেপমূলক উদ্দেশ্য, অথবা মৌলিক তথ্য রাখতে পারেন।

বুলেটস বা ছবি সিম্বল ব্যবহার করুন: প্রতিটি কাজের জন্য বুলেটস বা ছবি সিম্বল ব্যবহার করুন। এটি আপনার নোট চিহ্নিত করতে সাহায্য করবে।

নিজের সৃজনশীলতার প্রকাশ করুন জার্নালে

মৌলিক একটি সিস্টেম তৈরি করুন: বুলেট জার্নালে একটি মৌলিক সিস্টেম তৈরি করুন যাতে আপনি আপনার নোটগুলো সহজেই বুঝতে পারেন। যেমন, বিভিন্ন বুলেটস বা ছবি সিম্বলগুলো ব্যবহার করে বিষয় বা ক্যাটাগরি তৈরি করতে পারেন।

দিনলিপি লেখা: প্রতিদিন সকল কাজ, উদ্দেশ্য ও অনুভূতি সম্পর্কে সংক্ষেপে নোট নিন। এটি আপনার অগ্রগতি মূল্যায়ন করতে সাহায্য করতে পারে এবং দৈনন্দিন জীবনে লক্ষ্য অটুট রাখতে সাহায্য করে।

যোগাযোগ ও সম্পর্ক: বুলেট জার্নালে কারো সাথে যোগাযোগের কারণ উল্লেখ করুন এবং সম্পর্ক লিখে রাখুন। এটি আপনার ব্যক্তিগত ও পেশাদার সম্পর্ক তৈরি করতে সাহায্য করতে পারে।

এই পদক্ষেপগুলো অনুসরণ করে, আপনি বুলেট জার্নাল একটি কার্যকর নোট হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন।

জার্নাল লেখার ধরন

জার্নাল লেখার অনেকগুলো ধরন রয়েছে, প্রতিটি তার উদ্দেশ্য ও পদ্ধতির সাথে সম্পর্কিত। উদাহরণ স্বরূপ  কিছু জার্নালের বিস্তারিত জানিয়ে দিচ্ছি।

১) ব্যক্তিগত জার্নাল

জার্নালিং হলো একটি ব্যক্তিগত ফর্ম বা আত্ম-প্রকাশ। এখানে কৃতজ্ঞতা বা দৈনন্দিন জীবনের মনের অবস্থার বিষয়গুলোও উল্লেখ করা হয়। এখানে আপনার প্রতিদিনের অভিজ্ঞতা নথিভুক্ত করতে পারেন, মানসিক স্বাস্থ্যের উন্নতি করতে কী করবেন বা কী করতে চাইছেন সেটিও রাখতে পারেন। ব্যক্তিগত জার্নাল নিয়মিত ট্র‍্যাকে রাখতে পারলে তা আপনার জন্য বেশ সহায়ক হবে।

২) ডায়েরি

একটি ডায়েরি হলো জার্নাল লেখার সবচেয়ে ঐতিহ্যবাহী রূপ, যেখানে একজন ব্যক্তি তার দৈনন্দিন অভিজ্ঞতা, চিন্তাভাবনা ও অনুভূতিগুলো একটি কালানুক্রমিক বিন্যাসে রেকর্ড করে।

৩) রিফ্লেকটিভ জার্নাল

জার্নাল লেখার এই ফর্মটি ব্যক্তিগত প্রতিফলন, আত্মদর্শন ও স্ব-বিশ্লেষণের উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে। প্রতিফলিত জার্নালিং আপনার চিন্তাভাবনাগুলো গভীরভাবে অন্বেষণ করে। অভিজ্ঞতার ব্যক্তিগত রেকর্ডও বলা যেতে পারে একে। অধ্যয়ন পদ্ধতিতে এই জার্নাল শিক্ষার্থীদের সমালোচনামূলক চিন্তাভাবনার দক্ষতা বাড়াতে সাহায্য করতে পারে।

৪) কৃতজ্ঞতা জার্নাল

যার প্রতি আপনি কৃতজ্ঞ, একটি কৃতজ্ঞতা জার্নাল নিয়মিতভাবে সেটি নথিভুক্ত করতে সাহায্য করে। এতে ইতিবাচক মানসিকতা বজায় থাকে। কৃতজ্ঞতা অনুশীলন করা একটি সুন্দর অভ্যাস, যা এই জার্নালের মাধ্যমে আপনি সহজেই করতে পারবেন।

৫) ভ্রমণ জার্নাল

ভ্রমণ জার্নাল অভিজ্ঞতা ও স্মৃতিকথাতে ভরপুর থাকে। এতে অ্যাডভেঞ্চারের মুহূর্ত, ভ্রমণযাত্রা সব নথিভুক্ত করা থাকে। ফটোগ্রাফ, টিকিট বা অন্যান্য স্মৃতিচিহ্ন সংরক্ষণ করেও ভ্রমণ জার্নাল বানানো যায় ।

৬) মুড জার্নাল

মুড জার্নালগুলো সময়ের সাথে সাথে একজন মানুষের আবেগ ও মানসিক অবস্থা লিপিবদ্ধ করার উপর ফোকাস করে। প্রতিদিনের চিন্তাভাবনা, মুড ও ট্রিগার ফ্যাক্টর রেকর্ড করার মাধ্যমে আপনি মানসিক অবস্থাও যাচাই করে নিতে পারবেন। তাছাড়াও এর মাধ্যমে সম্ভাব্য মানসিক চাপকে চিহ্নিত করে কার্যকরী ব্যবস্থাও গ্রহণ করতে পারে। মানসিক স্বাস্থ্যের চ্যালেঞ্জ, যেমনঃ উদ্বেগ বা বিষণ্নতা মোকাবেলার জন্য মুড জার্নালগুলো বিশেষভাবে সহায়ক হতে পারে, যেমন: উদ্বেগ বা বিষণ্নতা

৭) ক্রিয়েটিভ জার্নাল

জার্নালিং সৃজনশীলতা বাড়াতে ও আত্ম-প্রকাশের জন্য একটি আউটলেট হিসেবে কাজ করে। সৃজনশীল জার্নালগুলো আপনার শৈল্পিক দক্ষতা, ধারণা ও অন্তর্দৃষ্টি বিকাশের একটি অনন্য উপায়। মনে করুন, আপনি একজন শিল্পী, লেখক, বা কেবল আপনার সৃজনশীল দিকটি খুঁজে বের করতে চাইছেন, সেক্ষেত্রে আপনার ভাবনার ট্র‍্যাক নিয়মিত লক্ষ্য করলেই নিজেকে জানতে ও বুঝতে পারবেন। কিছু ক্রিয়েটিভ জার্নাল সম্পর্কে আইডিয়া দিচ্ছি-

আর্ট জার্নাল: এই জার্নালগুলো ভিজ্যুয়াল আর্টকে লিখিত চিন্তাভাবনা ও প্রতিফলনের সাথে একত্রিত করে, যা আঁকাআঁকি বা পেইন্টিং, কোলাজ বা ফটোগ্রাফির মতো বিভিন্ন মাধ্যমে সৃজনশীলভাবে নিজেদের প্রকাশ করতে সাহায্য করে।

বুলেট জার্নালিং করছেন কি?

আইডিয়া জার্নাল: আইডিয়া জার্নালগুলো সৃজনশীল চিন্তাভাবনা, ব্রেইনস্টর্মিং সেশন ও অনুপ্রেরণার জন্য একটি সংগ্রহ পয়েন্ট হিসেবে কাজ করে। এগুলো উদ্ভাবনকে উত্সাহিত করে এবং ভিন্ন চিন্তাভাবনাগুলোকে সংযুক্ত করতে সহায়তা করে। এই জার্নাল শিল্পী, লেখক, উদ্যোক্তা বা যারা নিজেদের সৃজনশীল কাজকে ধরে রাখতে এবং লালন করতে চায় তাদের জন্য দরকারী হতে পারে।

সৃজনশীল লেখার জার্নাল: সৃজনশীল লেখার জার্নাল কল্পনাকে অন্বেষণ করতে এবং আপনার লেখার দক্ষতাকে পরিমার্জিত করতে সাহায্য করে। আপনি একজন ঔপন্যাসিক, কবি বা ব্লগার যে হোন না কেন, সৃজনশীল লেখার জার্নাল আপনার সৃজনশীল দক্ষতার বিকাশ করতে এবং আপনার নৈপুণ্যকে আরও উন্নত করতে সাহায্য করতে পারে। এই জার্নাল কোনো লেখক ব্রেনস্টর্মিং থেকে চরিত্রের স্কেচ পর্যন্ত নিজেদের সৃজনশীলতা গড়ে তুলতে এবং তাদের লেখার উন্নতি করতে একটি অপরিহার্য হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করতে পারে।

৮) স্ব-উন্নতি জার্নাল

জার্নালিং আপনাকে সংগঠিত, মনোযোগী ও অনুপ্রাণিত করতে সাহায্য করে। ব্যক্তিগত উন্নতি, পেশাগত সাফল্য বা স্বাস্থ্যকর জীবনযাত্রার জন্য চেষ্টা করতে চাইলে, কয়েক ধরনের জার্নাল রয়েছে যেগুলো আপনাকে আপনার লক্ষ্য অর্জনে সহায়তা করতে পারে:

বুলেট জার্নাল: বুলেট জার্নাল হলো একটি কাস্টমাইজড ব্যবস্থা যা পরিকল্পনা, নোট গ্রহণ ও লক্ষ্য নির্ধারণকে একত্রিত করে। মানুষকে সংগঠিত ও মনোযোগী হতে সাহায্য করার জন্য এটি ট্র্যাকার হিসেবে ব্যবহার করা যায়।

লক্ষ্য-সেটিং জার্নাল: এই জার্নাল ব্যক্তিগত বা পেশাদার লক্ষ্যগুলো সেট, ট্র্যাক ও প্রতিফলিত করার জন্য ফোকাস করে। সেই সাথে এটি মোটিভেশন ধরে রাখতে এবং সাফল্য অর্জনেও সহায়তা করে।

অভ্যাস ট্র্যাকার: অভ্যাস ট্র্যাকিং জার্নালগুলো স্বাস্থ্যকর জীবনযাত্রার মান উন্নয়নের জন্য প্রতিদিনের অভ্যাস, যেমন: ব্যায়াম, ঘুম বা পুষ্টিকর খাবার গ্রহণ ইত্যাদির ট্যাকিং রাখতে কাজ করে।

ফিটনেস জার্নাল: ফিটনেস জার্নাল মানুষের ব্যায়ামের রুটিন ট্র্যাক, পরিকল্পনা গ্রহণ ও সেটি বাস্তবায়ন করতে সহায়তা করে। এতে ওয়ার্কআউট, অগ্রগতি ও ফিটনেস সম্পর্কিত ব্যক্তিগত লক্ষ্যগুলো তালিকাভুক্ত থাকে।

লক্ষ্য স্থির করতে জার্নালিং বেশ ভালো কাজ করে

নিয়মিত বুলেট জার্নালিং অভ্যাস গড়ে তোলার জন্য টিপস

১) একটি ছোট টাইম ব্লক দিয়ে শুরু করুন। যেমন: প্রতিদিন পাঁচ মিনিট বা একটি সাপ্তাহিক লেখার সময় নির্ধারণ করুন। ধীরে ধীরে আপনার সেশনের সময়কাল বাড়ান।

২) ক্যালেন্ডারে আপনার বুলেট জার্নালিং সময় নির্ধারণ করুন। জার্নালিং করার সময়কে ক্যালেন্ডার বা পরিকল্পনার শিডিউল হিসেবে বিবেচনা করে তা নিজের একটি অ্যাপয়েন্টমেন্ট হিসেবে বিবেচনা করুন। এটি আপনাকে আপনার অনুশীলনকে অগ্রাধিকার দিতে সাহায্য করতে পারে এবং নিশ্চিত করতে পারে যে আপনি প্রতিদিন বা সপ্তাহে, এমনকি ব্যস্ত দিনেও এটির জন্য সময় দিয়েছেন। নিজেকে দায়বদ্ধ রাখতে এলার্ম সেট করুন এবং আপনার প্রতিশ্রুতিতে লেগে থাকতে অনুপ্রাণিত করুন।

৩) জবাবদিহিতার ব্যবস্থা রাখুন। আপনার লক্ষ্যগুলো এমন একজন বন্ধু বা পরিবারের সদস্যের সাথে ভাগ করুন, যিনি আপনার কাছে জবাবদিহিতা চাইতে পারেন এবং আপনাকে উত্সাহ এবং সহায়তা প্রদান করতে পারেন।

কীভাবে এটি আপনার জীবনকে সহজ করে তুলবে?

দেখুন, এই বুলেট জার্নাল আপনি নিজের হাতে লিখছেন। লেখার সময় আপনি যখন কোনো বিষয়ে চিন্তা-ভাবনা করেন, সে সময় মস্তিষ্ক সংকেত পায় যে কাজটি জরুরি এবং তা বাস্তবায়ন হওয়াও জরুরি। এছাড়া লেখা রেকর্ড থাকলে এবং দিনের শুরুতে সেদিনের কাজের তালিকায় চোখ বুলিয়ে নিলে সিদ্ধান্ত নেওয়াও সহজ হয়। তাছাড়াও আপনার ডেইলি টাস্কেরও রেকর্ড থাকছে, ফলে আপনি নিজের ভুল বিশ্লেষণ এর সুযোগও পাচ্ছেন।

আবার আমাদের প্রতিদিন কত আইডিয়া মাথায় আসে। হয়তো দারুণ কিছু আইডিয়া আমরা নিজের অজান্তেই ভুলে যাই! যদি লিখে রাখেন, তাহলে মনে রাখার কষ্ট করতে হবে না। সবকিছু মনে রেখে কাজ করতে গেলে অনেক বেশি জটিল মনে হয়। বুলেট জার্নালের মাধ্যমে জীবন অনেকটাই সহজ হয়ে যাবে। দেখবেন এতে স্ট্রেসও কমে আসবে।

আশা করি বুঝতে পারছেন, বুলেট জার্নালিং করার অভ্যাস নিজেকে সঠিকভাবে মূল্যায়ন করতে সাহায্য করবে। শেষে বলতে চাই, আগের চেয়ে পরিশ্রমী, অধ্যাবসায়ী ও দক্ষ হয়ে উঠতে নিয়মিত জার্নালিং এর অভ্যাস তৈরি করে ফেলুন। নিজের সাফল্য সেলিব্রেট করুন, মাইলফলক বা অর্জন উদযাপন আপনাকে অনুপ্রাণিত করতে এবং আপনার অনুশীলনে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ থাকতে সহায়তা করতে পারে। নিজের লক্ষ্য অর্জনের পথে এগিয়ে চলুন এবং নিজের মোটিভেশন ধরে রাখুন। আজ এই পর্যন্তই, ভালো থাকবেন।

ছবিঃ সাটারস্টক, সাজগোজ

 

 

3 I like it
0 I don't like it
পরবর্তী পোস্ট লোড করা হচ্ছে...