হবু কনের হেয়ার কেয়ার | স্বাস্থ্যোজ্জ্বল চুল পেতে খেয়াল রাখুন ৭টি বিষয়

হবু কনের হেয়ার কেয়ার | স্বাস্থ্যোজ্জ্বল চুল পেতে খেয়াল রাখুন ৭টি বিষয়

2

পুরোদমে চলছে বিয়ের মৌসুম। অনেকেই বিয়ের পিঁড়িতে বসতে যাচ্ছেন এ বছর, তাই না? বিয়ের মেকআপ, ড্রেস, ইভেন্ট ডেকোরেশন, ফুড, ইনভাইটেশন এসবের মধ্যে নিজের যত্নের কথা ভুলে যাচ্ছেন না তো? সেদিন আপনি-ই কিন্তু অনুষ্ঠানের মধ্যমণি! তাই নিজের যত্ন যেমন স্কিন, হেয়ার, হেলদি ডায়েট ইত্যাদিতে নজর দেওয়া কিন্তু মাস্ট। তাই বিয়ের আগ থেকেই সেলফ কেয়ারটাও শুরু করে দিতে হবে। আর আজকের আর্টিকেল হবু কনের হেয়ার কেয়ার নিয়ে। কীভাবে বিয়ের আগে নিজের চুলের যত্ন নিতে পারেন, সে সম্পর্কেই জানাবো আজকে।

হবু কনের হেয়ার কেয়ার

বিয়ে মানে আনন্দ, ভয়, টেনশন, উত্তেজনা, কাজের চাপ! ঠিক বললাম তো? যতই কাজ থাকুন না কেন, সময় করে নিজের যত্ন নিতে ভুলবেন না! তো চলুন আর কথা না বাড়িয়ে জেনে নেই বিয়ের আগে হবু কনের চুলের যত্নের বিষয়ে।

১. হেয়ার প্রবলেম বুঝে ট্রিটমেন্ট শুরু করুন

এক এক জনের চুলে এক এক ধরনের সমস্যা থাকতে পারে। যেমন কারো চুল পড়ার সমস্যা, তো কারো খুশকির সমস্যা! আবার কেউ পাতলা চুল নিয়ে অস্বস্তিতে ভোগেন। তাই তো সমস্যা বুঝে সে অনুযায়ী সমাধান বের করতে হবে। চুল পড়ার সমস্যা থাকলে বডিতে হরমোনাল কোনো সমস্যা আছে কিনা বা দুশ্চিন্তার জন্য এটা হচ্ছে কিনা সেটা দেখুন এবং সেই অনুযায়ী বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিতে পারেন। ন্যাচারাল ইনগ্রেডিয়েন্টস যেমন অ্যালোভেরা জেল, জবা ফুলের গুঁড়ো, ক্যাস্টর অয়েল, সিসেমি অয়েল ইত্যাদি ব্যবহার করতে পারেন।

আগা ফাটা চুল

খুশকির সমস্যা থাকলে ভালো মানের অ্যান্টি ড্যানড্রাফ শ্যাম্পু ইউজ করা শুরু করুন। এক্ষেত্রে বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নেওয়াটাই বেস্ট, যেহেতু বিয়ের আগে আপনার হাতে সময় বেশি নেই। এছাড়াও নিজের ব্যবহৃত জিনিস যেমন পিলো, টাওয়েল, চিরুনি, ব্যান্ড ইত্যাদি সবসময় পরিষ্কার রাখবেন।

২. ফ্রিজি হেয়ার রিপেয়ারে ব্যবহার করুন হেয়ার মাস্ক

যাদের চুল ড্রাই, ড্যামেজ বা ফ্রিজি, তারা চুলের ধরন বুঝে হেয়ার মাস্ক ব্যবহার করা শুরু করে দিতে পারেন। শ্যাম্পুর পর হেয়ার মাস্ক চুলে লাগিয়ে ১০-১৫ মিনিট অপেক্ষা করে চুল ধুয়ে নিবেন। এতে করে আপনার রুক্ষ চুল বেশ স্মুথ এবং সফট লাগবে। এখন তো মার্কেটে ফ্রিজি হেয়ারের জন্য ডিপ কন্ডিশনিং হেয়ার মাস্ক পাওয়া যায়।

  • আপনার হেয়ার টাইপ অয়েলি হলে salicylic acid, glycolic acid, neem, witch hazel ইনগ্রেডিয়েন্টস সমৃদ্ধ মাস্ক ব্যবহার করতে পারেন
  • ড্রাই চুলের জন্য হাইড্রেটিং ইনগ্রেডিয়েন্টস যেমন ceramides, peptides and aloe vera ইত্যাদি বেশ ভালো কাজ করবে

রেডিমেড বা প্যাকেটজাত মাস্ক ছাড়াও হোমমেড DIY হেয়ার মাস্ক চুলে অ্যাপ্লাই করতে পারেন। সপ্তাহে অন্তত একদিন ডিমের কুসুম, টকদই এবং আমলা পাউডার একসাথে মিশিয়ে চুলে লাগাতে পারেন। রাফ এবং ফ্রিজি হেয়ার রিপেয়ারে এটি দারুণ কাজ করবে। এক্সট্রা নারিশমেন্ট পেতে পার্লারে গিয়ে হেয়ার স্পা করিয়ে নিতে পারেন।

৩. হবু কনের হেয়ার কেয়ার এর জন্য বেছে নিন মাইল্ড শ্যাম্পু

হার্শ কেমিক্যালযুক্ত শ্যাম্পু ব্যবহার করলে বা অতিরিক্ত শ্যাম্পু করার ফলে চুল ডিহাইড্রেটেড হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। তাই আপনার চুলের ধরন এবং লাইফস্টাইল অনু্যায়ী একদিন পর পর বা সপ্তাহে ৩ দিন শ্যাম্পু করুন। তবে বাইরে বের হওয়ার জন্য যদি ডেইলি শ্যাম্পু করা আপনার জন্য জরুরি হয়, তবে চেষ্টা করবেন মাইল্ড শ্যাম্পু বেছে নিতে। সালফেট ও প্যারাবেন ফ্রি, ন্যাচারাল ইনগ্রেডিয়েন্ট সমৃদ্ধ শ্যাম্পু আপনার জন্য বেস্ট অপশন হবে।

শ্যাম্পু

৪. চুলের আগা ট্রিম করুন

চুলের কাটে পরিবর্তন আনুন অথবা না আনুন, চুলের আগা ট্রিম করতে ভুলবেন না। নব বধূর চুলে আগা ফাটা থাকলে সেটা দেখতে নিশ্চয় ভালো লাগবে না! এজন্য, মেক শিওর যে আপনার চুলে আগা ফাটা নেই। এতে করে চুল হেলদি লাগবে, কিছুটা হলেও চুল ঘন দেখাবে! বিয়ের আগে হেয়ার কাট নিয়ে এক্সপেরিমেন্ট না করা-ই ভালো, চুল কাটলে অন্তত ১ মাস আগে কাটুন।

৫. হেয়ার অয়েলিং

হবু কনের হেয়ার কেয়ার প্রসঙ্গ আসলে চুলে তেল লাগানোর কথা তো সবার মুখেই শুনবেন। কারণ হেয়ার অয়েলিং একই সাথে অনেক সমস্যার সমাধান দেয়, যেমন ড্যামেজ হেয়ার রিপেয়ার, স্ট্রেস থেকে রিলিফ দেওয়া, চুলের গোড়া মজবুত করা ইত্যাদি। সপ্তাহে ২-৩ দিন কোল্ড প্রেসড কোকোনাট অয়েল দিয়ে চুলে এবং স্ক্যাল্পে ম্যাসাজ করবেন। এর সাথে কয়েক ফোঁটা রোজমেরি অ্যাসেনশিয়াল অয়েল মিক্স করে ম্যাসাজ নিলে স্ট্রেস, মাথা ব্যথা, দুশ্চিন্তা এগুলোর থেকে রিলিফ পাবেন সহজেই।

৬. বিয়ের আগে হিট স্টাইলিং টুলস অ্যাভোয়েড করুন

বিয়ের দিন হেয়ার স্টাইল করতে গেলে তো হিট স্টাইলিং টুলস ব্যবহার করা হবে। তাতে করে চুলে কিছুটা ড্যামেজও হবে। তাই বিয়ের আগ দিয়ে হিট স্টাইলিং টুলস থেকে দূরে থাকুন। এতে করে চুল ড্যামেজ ফ্রি এবং হেলদি থাকবে। তবে হিট স্টাইলিং টুলস ইউজ করতে চাইলে আগে অবশ্যই চুলে হিট প্রোটেক্টিং স্প্রে লাগিয়ে নিবেন। হিট প্রোটেক্টিং স্প্রে বা সিরাম হাতের কাছে না থাকলে অল্প করে অ্যালোভেরা জেল বা আরগান অয়েল পুরো চুলে লাগাতে পারেন। এতে চুলের ময়েশ্চার লেভেল ঠিক থাকবে, চুলের ক্ষতি কম হবে।

৭. হেলদি ডায়েট চার্ট ফলো করুন

শুধুমাত্র বাইরে থেকে হেয়ার কেয়ার করাটা যথেষ্ট নয়, ভেতর থেকে যত্নটাও সমানভাবে গুরুত্বপূর্ণ। চুল এবং স্ক্যাল্প হাইড্রেটেড রাখতে প্রচুর পানি ও জুস পান করুন। এছাড়া ডায়েটে ভিটামিন এবং নিউট্রিয়েন্টস যুক্ত ফল রাখুন। ডাবের পানি পান করতে পারেন। কোল্ড ড্রিংকস ও চিনিযুক্ত জুস এড়িয়ে চলে টাটকা ফলের রস পান করুন।

এই তো জেনে নিলেন হবু কনের হেয়ার কেয়ার সম্পর্কে। আশা করছি, যারা নতুন জীবনে পা দিতে যাচ্ছেন, তাদের একটু হলেও হেল্প হবে। অথেনটিক হেয়ার কেয়ার প্রোডাক্ট কিনতে চাইলে সাজগোজের দুটি ফিজিক্যাল শপ যার একটি যমুনা ফিউচার পার্ক ও অপরটি সীমান্ত সম্ভারে অবস্থিত, সেখান থেকে কিনতে পারেন আর অনলাইনে কিনতে চাইলে শপ.সাজগোজ.কম থেকে কিনতে পারেন।

 

ছবি- সাজগোজ, সাটারস্টক

3 I like it
1 I don't like it
পরবর্তী পোস্ট লোড করা হচ্ছে...