হিট ড্যামেজ থেকে চুল সুরক্ষিত রাখতে ৬টি টিপস অ্যান্ড ট্রিকস

হিট ড্যামেজ থেকে চুল সুরক্ষিত রাখতে ৬টি টিপস অ্যান্ড ট্রিকস

2

এখনকার যুগটাই এমন, যেখানে সবাই নিজেকে যতটুকু সম্ভব সুন্দর করে প্রেজেন্ট করতে চেষ্টা করে। আর হেয়ার স্টাইলিং এমন একটা পার্ট, যেটা আমাদের পুরো লুকটাই চেঞ্জ করে দিতে পারে। এজন্য হেয়ার স্ট্রেইট করা, কার্লিং, ব্লো ড্রাই, ওয়েভিং এগুলো তো মোটামুটি সবাই করে এখন। এগুলো আমাদের হেয়ার স্টাইলে চেঞ্জ আনে ঠিকই, কিন্তু হিট প্রোটেকশন ছাড়া চুলে সরাসরি তাপ দেওয়ার জন্য চুল যে ড্যামেজ হতে পারে, সেটা কি জানেন? হিট স্টাইলিং করুন, কিন্তু চুলকে সুস্থ রেখে! হিট ড্যামেজ থেকে চুল সুরক্ষিত রাখতে ৬টি টিপস অ্যান্ড ট্রিকস দেখে নিন তাহলে।

কীভাবে বুঝবেন আপনার চুল ড্যামেজড?

আপনার চুল ড্যামেজড কিনা তা তো আগে জানতে হবে। এই লক্ষণগুলো আপনার চুলে আছে কিনা সেটা মিলিয়ে নিন তাহলে-

  • চুলের আগা ফাটা
  • ড্রাইনেস ও ফ্রিজিনেস
  • প্রচুর পরিমাণে চুল পড়া
  • চুলে সহজেই জট পাকানো
  • মাঝখান দিয়ে চুল ভেঙে ভেঙে যাওয়া

হিট ড্যামেজ কীভাবে কমানো যায়?

সুন্দর চুল আমাদের কনফিডেন্স লেভেলকে অনেকটাই বাড়িয়ে দেয়। তাই ড্যামেজ ফ্রি হেয়ার পেতে হিট স্টাইলিং করার আগে আপনাকে একটু খেয়াল রাখতে হবে।

১. হিট প্রোটেক্টর ব্যবহার করুন

চুলে হিট স্টাইলিং টুলস ব্যবহারের আগে অবশ্যই হিট প্রোটেক্টিং স্প্রে ব্যবহার করুন। এতে করে চুলের ড্যামেজ হওয়া অনেকটাই প্রিভেন্ট হবে। হিট প্রোটেক্টিং স্প্রে চুলের ময়েশ্চার লক করে, যার ফলে চুল ড্রাই হওয়ার হাত থেকে বেঁচে যায়। এছাড়াও এটি চুলের উপর ব্যারিয়ার তৈরি করে যাতে চুলে হিট ড্যামেজ কম হয়। হিট প্রোটেক্টিং স্প্রে সব থেকে ইজি ও এফোর্ডেবল সল্যুশন।

২. ভালো ব্র্যান্ডের স্ট্রেইটনার বেছে নিন

রেগুলার হিট দেওয়া যেহেতু চুলের স্বাস্থ্যের জন্য ভালো না, তাই যতটা সম্ভব কম হিট স্টাইলিং করা উচিত। আর যদি প্রফেশনের জন্য রেগুলার করাই লাগে, তাহলে ভালো ব্র্যান্ডের স্ট্রেইটনার ইউজ করবেন। হিট রেগুলেট করা যায় এবং চুল ছিঁড়ে যাওয়ার চান্স থাকে না, এমন টুলস আপনাকে বেছে নিতে হবে। এছাড়াও আপনি একটু ইন্টারনেট ঘাটলে হিট স্টাইলিং টুলস ছাড়া অনেক হেয়ার স্টাইল টিউটোরিয়াল পাবেন। সেগুলো শিখে নিয়ে স্টাইল করতে পারেন।

৩. ডিপ কন্ডিশনিং হেয়ার মাস্ক অ্যাপ্লাই করুন

চুলে হিট স্টাইলিং করার ফলে ড্রাইনেস বা রাফনেস বেড়ে যেতে পারে। সেজন্য চুলের এক্সট্রা নারিশমেন্ট দরকার, যেটা আপনি পেতে পারেন হেয়ার মাস্ক থেকে! তাই সপ্তাহে অন্তত একদিন ডিপ কন্ডিশনিং বা নারিশিং হেয়ার মাস্ক চুলে অ্যাপ্লাই করবেন। এতে করে চুলে জট পাকানো কমবে, চুল ম্যানেজেবল ও স্মুথ হবে। এছাড়াও হেয়ার মাস্ক চুলের ময়েশ্চার ও প্রোটিন রিস্টোর করে।

 

৪. স্টাইলিং টুলসের হিট কমিয়ে ব্যবহার করুন

হিট স্টাইলিং টুলস কেনার সময় সবসময় দেখে নিবেন সেটাতে হিট বাড়ানো কমানোর অপশন রয়েছে কিনা। রেগুলার ইউজ করলে টুলস হাইয়েস্ট সেটিংয়ে দিয়ে ব্যবহার করবেন না। এতে করে হিট ড্যামেজ অনেক বেশি হবে, চুলের কিউটিকল ক্ষতিগ্রস্থ হবে। ২০০ ডিগ্রি টেম্পারেচার হচ্ছে আদর্শ, এর বেশি না ব্যবহার করাই ভালো। তবে ভালোমানের হিট প্রোটেক্টিং সিরাম বা স্প্রে দিয়ে নিলে হেয়ার ড্যামেজ নিয়ে আর চিন্তা নেই।

৫. মাইল্ড শ্যাম্পু ও হেয়ার সিরাম ব্যবহার করুন 

চুল নিয়মিত ক্লিন করা জরুরী। চুল পরিষ্কার না রাখলে আপনি যা কিছুই করেন না কেন সেটা কোনো কাজে আসবে না! হেয়ার টাইপ অনুযায়ী শ্যাম্পু ও কন্ডিশনারের ব্যবহার চুলকে ড্যামেজ থেকে রক্ষা করে। Sulphates, Silicones ও Parabens ফ্রি শ্যাম্পু বেছে নিন, কারণ এগুলো কোনো ক্ষতি ছাড়াই চুল ক্লিন করে। রেগুলার চুল ধোয়ার সময় মাইল্ড শ্যাম্পু ব্যবহার করা যায় নিশ্চিন্তে। সেই সাথে ফ্রিজি চুলের সল্যুশনে হেয়ার সিরাম অ্যাপ্লাই করা যেতে পারে। এটি চুলকে শাইনি ও সফট রাখে দীর্ঘক্ষণ ধরে।

৬. হেয়ার ট্রিমিং করুন

চুলে অতিরিক্ত হিট দেওয়ার ফলে চুলের আগা ফেটে যায়, যেটা আসলে রিপেয়ার করা সম্ভব না। যার ফলে চুল আরও বেশি রুক্ষ দেখায়। তাই ২/৩ মাস পর পর চুলের আগা ট্রিম করবেন। না হলে চুল ধীরে ধীরে আরও ড্যামেজ হয়ে যাবে। যেই পার্টটুকু ড্যামেজ হয়ে গেছে, সেটা কেটে ফেলে ভালোভাবে চুলের যত্ন নিন।

এইতো জেনে নিলেন, চুলের হিট ড্যামেজ কমানোর ৬টি উপায়! আশা করছি, আজকের আর্টিকেলটি আপনাদের জন্য হেল্পফুল ছিল। অনলাইনে অথেনটিক হেয়ার কেয়ার প্রোডাক্ট কিনতে পারেন শপ.সাজগোজ.কম থেকে অথবা সাজগোজের ৪টি শপ- যমুনা ফিউচার পার্ক, বেইলি রোডের ক্যাপিটাল সিরাজ সেন্টার, উত্তরার পদ্মনগর ( জমজম টাওয়ারের বিপরীতে) ও সীমান্ত সম্ভার থেকেও বেছে নিতে পারেন আপনার পছন্দের প্রোডাক্টটি।

 

ছবি- সাজগোজ

4 I like it
0 I don't like it
পরবর্তী পোস্ট লোড করা হচ্ছে...