ফিট থাকতে সাইক্লিং-এর ৬টি উপকারী দিক! - Shajgoj



ফিট থাকতে সাইক্লিং-এর ৬টি উপকারী দিক!


ফেব্রুয়ারী ২১, ২০১৮



শারীরিক এবং মানসিকভাবে সুষ্ঠ ও ফিট থাকতে হলে আপনাকে অবশ্যই শারীরিকভাবে সচল থাকতে হবে। নিয়মিত শারীরিক বিভিন্ন কর্মকান্ড আপনাকে কয়েকটি মারাত্নক রোগ যেমন স্থুলতা, হৃদরোগ, ক্যান্সার, মানসিক সমস্যা, ডায়াবেটিস, বাতরোগ প্রভৃতি রোগ থেকে সুরক্ষা প্রদান করে। নিয়মিত সাইক্লিং আপনার স্বাস্থ্য ঝুঁকি কমানোর পাশাপাশি আপনার শরীর ও মনকে করবে প্রাণবন্ত ও সজীব। তাহলে আসুন জেনে নেওয়া যাক কিভাবে সাইক্লিং আমাদেরকে সুস্বাস্থের অধিকারী করতে সাহায্য করে।

স্থুলতা ও ওজন নিয়ন্ত্রণে সাইক্লিং

ওজন নিয়ন্ত্রণ ও ওজন কমানোর ক্ষেত্রে সাইক্লিং একটি উত্তম পন্থা। এটি আমাদের বিপাকক্রিয়ার হার বাড়িয়ে দেয়, মাংস পেশীর গঠনে সহায়তা করে এবং শরীরের চর্বি কমিয়ে দেয়। আপনি যদি ওজন কমানোর পরিকল্পনা করছেন তাহলে সাইক্লিংকে অবশ্যই আপনার পরিকল্পনা মধ্যে সংযুক্ত করতে হবে। কারণ সাইক্লিং হচ্ছে শারীরিক ব্যায়ামের একটি আরামদায়ক মাধ্যম। একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে, একজন মানুষের সপ্তাহে ব্যায়ামের মাধ্যমে কমপক্ষে ২০০০ ক্যালরি কমানো উচিৎ, যেখানে ১ ঘন্টা সাইক্লিং করে প্রায় ৩০০ ক্যালরি কমানো সম্ভব।

হৃদরোগ ও সাইক্লিং

হৃদরোগগুলোর মধ্যে অন্তর্ভুক্ত হচ্ছে স্ট্রোক, উচ্চ রক্তচাপ এবং হার্ট এট্যাক। নিয়মিত সাইক্লিং আপনার হৃদযন্ত্র, ফুসফুস ও রক্ত চলাচল সচল রাখতে এবং এদের উন্নয়নে সহায়তা করে। যা আপনার হৃদরোগের ঝুঁকি কমিয়ে দেয়। সাইক্লিং আপনার হৃদযন্ত্রের পেশীকে শক্তিশালী করে, নাড়ির স্পন্দনের হার কমিয়ে দেয় এবং রক্তে চর্বীর মাত্রা কমিয়ে দেয়। ডেনমার্কের একটি গবেষণা যা ১৪ বছর ধরে পরিচালনা করা হয় ৩০ হাজার মানুষের ওপর যাদের বয়স ২০ থেকে ৯৩ বছরের মধ্যে সেখানে পাওয়া যায়, নিয়মিত সাইক্লিং মানুষকে হৃদরোগ থেকে সুরক্ষা প্রদান করে।

ডায়াবেটিস ও সাইক্লিং

ডায়াবেটিস মানুষের জন্য একটি মারাত্নক ব্যাধি এবং এই রোগে আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। এই রোগের প্রাদুর্ভাবে সবচেয়ে বড় কারণ হচ্ছে শারীরিক পরিশ্রম বা সচলতার অভাব। সাধারণত যেসব কাজে কায়িক পরিশ্রমের অভাব রয়েছে সেসব ক্ষেত্রে যারা কাজ করেন তাদের মধ্যে এই রোগের প্রাদুর্ভাব বেশি দেখা যায়। সাইক্লিং মানুষের শারীরিক সচলতা আনায়ন, স্থুলতা ও ওজন নিয়ন্ত্রণ ও রক্ত চলাচল সচল রাখতে সহায়তা করে যার ফলে মানুষ ডায়াবেটিস এর ঝুঁকি থেকে মুক্ত থাকে।

বাতরোগ ও সাইক্লিং

বাতরোগ এর ঝুঁকি কমানোর ক্ষেত্রে সাইক্লিং খুবই কার্যকরী ভূমিকা পালন করতে পারে। সাইক্লিং মানুষের হাটুর জোড়ায় গতিশীলতা আনায়ন করে এবং পায়ের পেশীকে আরো শক্তিশালী করে। বাতরোগ নিরাময়ের ক্ষেত্রে বিশ্বের অনেক বিশেষজ্ঞ সাইক্লিং করার পরামর্শ দেন।

মানসিক সমস্যা ও সাইক্লিং 

মানুষের বিভিন্ন মানসিক সমস্যা যেমন দুশ্চিন্তা, চাপ ও হতাশা দূরীকরণেও সাইক্লিং খুবই কার্যকরী। সাইক্লিং মানুষের শরীর ও মনকে সতেজ ও চাঙা করে দেয়। যা মানুষের আত্নবিশ্বাস বাড়িয়ে দেয়। ফলে মানুষ সকল প্রকার দুশ্চিন্তা, চাপ ও হতাশা থেকে মুক্ত থাকে।

ক্যানসার ও সাইক্লিং

ক্যানসার ও সাইক্লিং এর মধ্যে সম্পর্কের বিভিন্ন গবেষণায় পাওয়া যায় যে, নিয়মিত সাইক্লিং মানুষের ক্যান্সার বিশেষ করে কোলন ও ব্রেস্ট ক্যানসার এর ঝুঁকি কমিয়ে দেয়। সাইক্লিং মানুষের স্থুলতা ও ওজন নিয়ন্ত্রণ, হৃদরোগ, মানসিক সমস্যা ও ডায়াবেটিস এর ঝুঁকি কমানোর ক্ষেত্রে সহায়তা করে যা ক্যান্সারের অন্যতম প্রধান কারণ, ফলে সেই সাথে মানুষের ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকিও কমে যায়।

ছবি – হেলথ ফিটনেস ডট কম

লিখেছেন –  হসিয়া খংপডা