চুল পড়ার সমাধান হবে ১টি হেয়ার রিমেডিতে! চুল পড়ার সমাধান হবে ১টি হেয়ার রিমেডিতে!

চুল পড়ার সমাধান হবে ১টি হেয়ার রিমেডিতে!

লিখেছেন - জান্নাতুল মৌ ডিসেম্বর ২৪, ২০১৬

মাথার অন্যতম সৌন্দর্য হলো চুল। কিন্তু সেই চুল নিয়ে তো আমাদের কতো সমস্যা। চুল পড়ে যাচ্ছে, টাক হয়ে যাচ্ছি, এইসব অহরহ শোনা যায় প্রায় সবার মুখেই। অনেকে এই সমস্যা নিয়ে মুষড়ে পড়ছেন। আর চুল পড়া কমাতেতো এটা ওটা ট্রাই করতেই থাকেন। কিন্তু চুল পড়া কমছেই বা কোথায়?? অন্যদিকে, চুল পড়ে গিয়ে মাথা প্রায় খালি হয়ে যাচ্ছে। কিন্তু চুল পড়ার সমাধান আছে একটি হেয়ার রিমেডিতেই। এটি চুল পড়াতো কমাবেই তার পাশাপাশি ঝরে যাওয়া চুলও গজাতে সাহায্য করবে। চলুন জেনে নেওয়া যাক চুল পড়ার সমাধান করতে হেয়ার রিমেডি তৈরির পদ্ধতি ও ব্যবহারবিধি নিয়ে বিস্তারিত।

চুল পড়ার সমাধান পেতে হেয়ার রিমেডি

হেয়ার রিমেডি তৈরির উপকরণ

(১) ১ টি পেঁয়াজ 

পেঁয়াজে রয়েছে সালফার (Sulfur) যা চুলের জন্য অত্যন্ত উপকারী। এটি মাথার ত্বকে ব্লাড সার্কুলেশন বাড়ায়, চুলের গ্রন্থিকোষে পুষ্টি যোগায়। এছাড়াও এতে অ্যান্টি-ব্যাক্টেরিয়াল উপাদান রয়েছে, যা মাথার ত্বকের ইনফেকশন (infection) এবং ফাংগাস (fungus) দূর করে। পেঁয়াজ চুলের গ্রোথ বাড়াতে এবং নতুন চুল গজাতে খুবই সাহায্য করে। এটি আমি নিজেই প্রমাণ পেয়েছি।

(২) ৪ টি কালো গোল মরিচ

গোল মরিচে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ, সি এবং অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট (Antioxidants) রয়েছে। তবে গোলমরিচ খুব কম পরিমাণেই ব্যবহার করা উচিত।

(৩) ১ টি বড় সাইজের গোলাপ ফুল 

যে গোলাপগুলো দিয়ে গোলাপজল বানানো যায় সেই ধরনের লাল গোলাপ ব্যবহার করতে হবে। যাতে হালকা মিষ্টি সুগন্ধ রয়েছে। গোলাপ ফুল পেঁয়াজের রসের গন্ধ ঢাকতে সাহায্য করবে। এছাড়াও গোলাপের পাপড়ি হেয়ার গ্রোথে সাহায্য করবে।

হেয়ার রিমেডি তৈরির পদ্ধতি

প্রথমে ৪টি কালো গোল মরিচের দানা নিয়ে ১ টেবিল চামচ পানিতে সারারাত ভিজিয়ে রাখতে হবে। পেঁয়াজের খোসা ছাড়িয়ে পেঁয়াজটিকে ছোট ছোট ভাগে কেটে নিতে হবে। এবার একটি ব্লেন্ডারে কাটা পেঁয়াজ, কালো গোলমরিচ (পানিসহ), গোলাপের পাপড়ি একসাথে নিয়ে ব্লেন্ড করে নিতে হবে। ব্লেন্ড করা হয়ে গেলে একটি মসৃণ পেস্ট তৈরি হবে। আপনি চাইলে এই পেস্ট সরাসরি মাথায় লাগাতে পারেন। তবে ধোয়ার সময় ঝামেলা এড়াতে চাইলে, একটি ছাকনিতে পেস্টটুকু নিয়ে এর জুস ছেঁকে বের করে নিন।

 হেয়ার রিমেডি ব্যবহার বিধি

  • চুলগুলো ভালোভাবে ব্রাশ করে নিন। এবার সেই জুসে একটি কটন বল ডুবিয়ে নিন এবং অতিরিক্ত জুসটুকু চেপে বের করে নিন। মাথায় সিঁথি কেটে কেটে কটন বলের সাহায্যে মাথার স্কাল্পে জুসটা লাগান। পুরো মাথার ত্বকে ব্যবহার করবেন এভাবে। 
  • পুরো স্কাল্পে জুসটা ব্যবহার করা হয়ে গেলে, হাতের আঙ্গুলের সাহায্যে আস্তে আস্তে মাথার স্কাল্প ম্যাসাজ করুন অন্তত ৫ মিনিট।
  • হেয়ার রিমেডিটি ১ ঘন্টা মাথায় রেখে দিন। ১ ঘন্টা পর শ্যাম্পু করে ফেলুন। শ্যাম্পুর ক্ষেত্রে অবশ্যই একটি মাইল্ড শ্যাম্পু (সালফেট বিহীন শ্যাম্পু) ব্যবহার করবেন। সালফেটযুক্ত শ্যাম্পু ব্যবহার করলে চুল পড়া কখনই কমবে না। 
  • সপ্তাহে অন্তত ২ দিন এই জুসটি ব্যবহার করতে হবে।

ন্যাচারাল রিমেডিগুলো একটু সময় নেয় কাজ করে তাই আপনাকে অবশ্যই ধৈর্য ধরতে হবে । ২-৩ দিন ব্যবহার করে দেখলেন চুল উঠছে না, তো ব্যবহার বন্ধ করে দিলে হবে না। ১-২ মাস ব্যবহারে দেখবেন মাথায় নতুন চুল উঁকিঝুঁকি মারছে। 

এইতো জেনে নিলেন চুল পড়ার সমাধান এবং নতুন চুল গজানোর উপায়। আশা করি ধৈর্য ধরে ব্যবহার করবেন এবং অবশ্যই ফল পাবেন। এটা আমার ক্ষেত্রে খুব ভালো কাজ করেছে। দেড় মাসেই আমি নতুন চুলের মুখ দেখতে পেয়েছি। আশা করছি আপনাদের অনেক সাহায্য হবে।

ছবি- সংগৃহীত:ইনহেবিটেট.কম,ইমেজবাজার.কম