স্কিনের ড্রাইনেস দূর করে সফট ও হাইড্রেটেড স্কিন পেতে সেরা ৪টি শিট মাস্ক

স্কিনের ড্রাইনেস দূর করে সফট ও হাইড্রেটেড স্কিন পেতে সেরা ৪টি শিট মাস্ক

4 (46)

রূপচর্চা নিয়ে যারা সচেতন এবং বিউটি ট্রেন্ড রেগুলার ফলো করেন, তারা রূপচর্চায় শিট মাস্কের ব্যবহার নিয়ে মোটামুটি জানেন। জাপান এবং কোরিয়ার জনপ্রিয় এই স্কিন কেয়ার স্টেপ ধীরে ধীরে জনপ্রিয়তা পেয়েছে সারা বিশ্বে। চটজলদি ময়েশ্চারাইজড স্কিন পেতে এই প্যাকেটজাত প্রোডাক্টটি খুবই কার্যকর। কর্মব্যস্ততার মধ্যেও যেন ত্বকের যত্ন নেওয়া যায়, সেটিই এর প্রধান উদ্দেশ্য। আমার পছন্দের শিট মাস্কের রিভিউ শেয়ার করবো আজ। স্কিনের ড্রাইনেস দূর করে সফট ও হাইড্রেটেড স্কিন পেতে সেরা ৪টি শিট মাস্ক সম্পর্কে জেনে নিন তাহলে। যারা নতুন কিছু ট্রাই করতে চান এবং একই সাথে টাকা এবং সময় দুটোই বাঁচাতে চান, তাদের জন্য খুবই হেল্পফুল এটি।

কেন শিট মাস্ক এত জনপ্রিয়?

আমাদের স্কিনের জন্য শিট মাস্ক বিভিন্নভাবে উপকারী। ড্রাই স্কিনকে ময়েশ্চারাইজড করা থেকে শুরু করে ইন্সট্যান্ট স্কিনে উজ্জ্বলতা ফিরিয়ে আনা, অতিরিক্ত সিবাম কন্ট্রোল, ত্বকে হাইড্রেশন প্রোডাইড করা এই সব কাজই শিট মাস্ক করতে পারে। সবথেকে বড় কথা হচ্ছে, ঝামেলাবিহীন একটি স্কিন কেয়ার স্টেপ এটি, ব্যবহার করাও খুব সহজ। কেন ঝামেলাবিহীন বললাম, শিট মাস্ক নিয়ে একটু বিস্তারিত লিখলেই বুঝতে পারবেন।

তবে স্কিন কেয়ারে শিট মাস্কের ব্যবহার যেহেতু নতুন, তাই এটি নিয়ে অনেকেরই অনেক কিছু জিজ্ঞাসা রয়েছে। যেমন, স্কিন টাইপ অনুযায়ী কে কোন ধরনের শিট মাস্ক ব্যবহার করবেন, সপ্তাহে কয়দিন শিট মাস্ক ব্যবহার করা উচিত, মুখ ধুতে হবে কিনা এই ধরনের নানা প্রশ্ন! আজকের আর্টিকেলে এই সবকিছুই জানতে পারবেন।

স্কিনের ড্রাইনেস দূর করতে শিট মাস্ক 

প্রথমে কথা বলি শিট মাস্ক কেমন এটা নিয়ে। শিট মাস্ক হচ্ছে মুখের আদলে তৈরি করা একটা মাস্ক বা ফেব্রিকের কাট আউট, যেটা প্যাকেটের মধ্যে লিকুইড বা তরলে ডুবানো থাকে। এই তরল হচ্ছে এক ধরনের সিরাম যাতে ত্বকের জন্য উপকারী বিভিন্ন উপাদান থাকে। গ্রীন টি, এগ প্রোটিন, অ্যালোভেরা, শসা, ভিটামিন সি, কোলাজেন, পার্ল এসেন্স, স্নেইল এক্সট্র্যাক্ট (শামুকের মিউকাস), সি উইড বা নানা ধরনের ফলের নির্যাস সমৃদ্ধ বিভিন্ন ধরনের শিট মাস্ক বাজারে পাওয়া যায়। শিট মাস্ক ব্যবহার করে মাত্র ১০/১৫ মিনিটেই হেলদি লুকিং স্কিন পাওয়া সম্ভব।

এখন আপনাদের সাথে আমার পছন্দের কয়েকটা শিট মাস্কের ডিটেইলস শেয়ার করবো। চলুন জেনে নেই স্কিনের ড্রাইনেস দূর করে সফট ও হাইড্রেটেড স্কিন পেতে সেরা ৪টি শিট মাস্ক সম্পর্কে।

Dewy Pearl Eessence Mask

এই শিট মাস্কে আছে পার্ল এক্সট্র্যাক্ট। পার্লে আছে প্রচুর পরিমাণে অ্যামিনো এসিড, যা ত্বকে দেয় নানান রকম বেনিফিট। কী কী উপকারিতা আছে এই মাস্কের, সেটা দেখে নিন।

১. স্কিনের ইলাস্টিসিটি ধরে রাখতে হেল্প করে।
২.পার্ল স্কিনের তারুণ্য ধরে রেখে প্রিম্যাচিউর এজিং রোধ করে।
৩.স্কিনে কোলাজেন প্রোডাকশন বাড়াতে সাহায্য করে।
৪. স্কিন ব্রাইট আর গ্লোয়িং করে।
৫. চটজলদি স্কিনের রুক্ষভাব দূর করে।

 

Dewy Cucumber Sheet Mask

নাম শুনেই বুঝতে পারছেন এই মাস্কে আছে শসার এক্সট্র্যাক্ট। শসাতে অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি বৈশিষ্ট্য রয়েছে, এছাড়াও শসাতে ভিটামিন সি এবং ফলিক অ্যাসিডের মতো অ্যান্টি অক্সিডেন্ট থাকে যেগুলো ত্বকের যত্নে অতুলনীয়। এই মাস্ক থেকে যা যা বেনিফিটস পাবেন, সেটা জেনে নিন।

১. শসা ফেইসের পাফিনেস দূর করে।
২. স্কিনে প্রোপার হাইড্রেশন দেয়।
৩. প্রিম্যাচিউর এজিং প্রিভেন্ট করে।
৪. ইনস্ট্যান্টলি স্কিনের ইরিটেশন কমায় ও রিফ্রেশিং লুক দেয়।

DEWY COLLAGEN ESSENCE MASK

আমার খুবই পছন্দের একটি শিট মাস্ক এটি। এই মাস্কে আছে ডালিমের নির্যাস, ডালিম স্কিনের জন্য খুবই উপকারী। এটি স্কিনের কোলাজেন এবং ইলাস্টিন প্রোটিন বুস্ট করে। স্কিনের আনহেলদি অ্যাপেয়ারেন্স অনেকটাই কমিয়ে আনে। আর কী কী বেনিফিট পাচ্ছেন, দেখে নিন তাহলে।

১. একনে বা ব্রণের সমস্যা কমিয়ে আনে।
২. স্কিনকে ব্রাইট ও সফট করে তোলে।
৩. স্কিনের সান ড্যামেজ, রিংকেলস, ফাইন লাইনস কমিয়ে আনে।
৪. এছাড়াও হাইপার পিগমেনটেশন কমাতে সাহায্য করে।
৫. ত্বককে ময়েশ্চারাইজড রাখে।

DEWY SNAIL ESSENCE MASK

স্কিন কেয়ারে রিসেন্টলি স্নেইল বা শামুকের মিউকাস বেশ ইউজ হচ্ছে। অনেকে শুনে অবাক হতে পারেন কিন্তু স্কিন কেয়ারে স্নেইলের অনেক উপকারিতা রয়েছে। এই মাস্কটি থেকে কী কী বেনিফিট পেয়ে যাবেন, সেটা দেখে নিন।

১. ড্যামেজ স্কিন রিপেয়ার এবং হিলিং করে।
২.এটি হায়ালুরোনিক অ্যাসিড সমৃদ্ধ, যা ত্বকের বাইরের লেয়ারে প্রোপার হাইড্রেশন দেয়।
৩.একনে কমাতে হেল্প করে, একনে স্পটও কমিয়ে আনে।
৪. অ্যান্টি এজিং প্রোপার্টি আছে, ফাইন লাইনস ও রিংকেল কমিয়ে আনতে হেল্প করে।

এগুলো ছাড়াও আরও অনেক ধরনের মাস্ক আছে। সাজগোজেই পেয়ে যাবেন অথেনটিক স্কিন কেয়ার প্রোডাক্ট।

কখন এবং কীভাবে এই মাস্ক আমরা ব্যবহার করবো?

গরম কালে আমরা শিট মাস্ক ফ্রিজে রেখে ঠান্ডা করে ব্যবহার করতে পারি, এটা স্কিনে ফ্রেশনেস আর কুলিং ইফেক্ট দেয়। শীতকালে তো ঠাণ্ডা করার কোনো প্রয়োজন নেই, আপনি সরাসরি প্যাকেট থেকে বের করেই মাস্ক ব্যবহার করতে পারবেন।

১. প্রথমে আমাদের দুই হাত ভালোভাবে ক্লিন করে নিতে হবে, যাতে হাতের কোনো ময়লা ফেইসে না লাগে।

২. এরপর মুখ ফেইস ওয়াশ দিয়ে ক্লিন করে নিন। প্যাকেট থেকে মাস্ক বের করে এবার মুখে ভালো করে লাগিয়ে নিতে হবে শেইপ অনুযায়ী।

৩. প্যাকেট এর এক্সট্রা সিরাম মুখে, গলা, হাতে লাগিয়ে নিতে পারেন।

৪. ১০/১৫ মিনিট পর মাস্ক তুলে নিবেন।

৫. ফেইস আলাদাভাবে ধোয়া লাগবে না। সিরাম মুখে আস্তে আস্তে অ্যাবসর্ব হয়ে যাবে।

এভাবে আপনার স্কিন কেয়ার রুটিনে সপ্তাহে ১/২ দিন শিট মাস্ক অ্যাড করে নিলে দেখবেন স্কিন অনেক বেশি হেলদি আর হাইড্রেট লাগবে। আশা করছি শিট মাস্ক নিয়ে অনেক কিছু জানতে পেরেছেন। তাহলে আর দেরি কেন? স্কিনের ড্রাইনেস দূর করে সফট ও হাইড্রেটেড স্কিন পেতে আপনার স্কিন টাইপ আর স্কিন প্রবলেম অনুযায়ী স্কিন কেয়ার রুটিনে শিট মাস্ক অ্যাড করে ফেলুন। স্কিন কেয়ারের জন্য অথেনটিক প্রোডাক্ট কিনতে চাইলে আপনারা সাজগোজের দুটি ফিজিক্যাল শপ ভিজিট করতে পারেন, যার একটি যমুনা ফিউচার পার্ক ও অপরটি সীমান্ত সম্ভারে অবস্থিত। আর অনলাইনে কিনতে চাইলে শপ.সাজগোজ.কম থেকে কিনতে পারেন।

ছবি- সাজগোজ, সাটারস্টক

27 I like it
3 I don't like it
পরবর্তী পোস্ট লোড করা হচ্ছে...