মনোমালিন্য বা কথা কাটাকাটি যেন না হয় সম্পর্ক বিচ্ছেদের কারণ!

মনোমালিন্য বা কথা কাটাকাটি যেন না হয় সম্পর্ক বিচ্ছেদের কারণ!

6

‘ভালো না লাগলে চলে যাও! এত কিছু বুঝাতে পারবো না! যা ইচ্ছা ভাবো! আমার ইচ্ছা আমি করবো!’-কি কথাগুলো খুব পরিচিত লাগছে? প্রিয়জনের সাথে মনোমালিন্য বা কথা কাটাকাটির সময় এই কথাগুলো আমরা প্রায়ই ব্যবহার করি। শুধুমাত্র স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্কের ক্ষেত্রেই নয়, মনোমালিন্য বা কথা কাটাকাটি হতে পারে ভাই-বোন, বন্ধু-বান্ধবী এমন কি অফিসে কলিগদের সাথেও। একটু পর পরিস্থিতি শান্ত হলে মনে হয়, ‘এই যাহ্‌! কী বলে ফেললাম, এখন কী হবে!’ বার বার সরি বলার পর বিপরীত মানুষটা সবকিছু স্বাভাবিক আছে বললেও কিছু কথা হয়তো তার মনে গেঁথে যেতে পারে সারা জীবনের জন্য। বার বার বোঝানোর চেষ্টা করলেও সেই সম্পর্ক আর আগের মতো সুন্দর করে তোলা যায় না।

ছোটখাটো এমন ব্যাপারগুলো অনেক সময় জমে জমে খুব বড় সমস্যার সৃষ্টি করে আর রূপ নেয় ছাড়াছাড়ি বা বিচ্ছেদের মতো অবস্থার! তাই সমস্যা যতই জটিল হোক খেয়াল রাখতে হবে, মনোমালিন্য বা কথা কাটাকাটি যেন না হয় আপনার সম্পর্ক বিচ্ছেদের কারণ! কিন্তু কীভাবে? আজকে জেনে নিবো এমন কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে।

মনোমালিন্য বা কথা কাটাকাটি থেকে কীভাবে দূরে থাকবেন?

১) ‘আমিই ঠিক’ এমন ভাবনা নিয়ন্ত্রণ করতে হবে

মনোমালিন্য বা কথা কাটাকাটির সময় আমরা অপরপক্ষের কোনো কথাই শুনতে বা বুঝতে চাই না। দুই পক্ষের মধ্যেই যদি এমন ভাবনা থাকে ‘আমিই ঠিক’ তাহলে কথায় কথায় শুধু কথা কাটাকাটি ও ঝগড়াঝাঁটি বাড়বে। এমন সময় আপনি ঠিক হলেও অপরপক্ষের সাথে যুক্তি খন্ডনে না যেয়ে তাকে ঠান্ডা হওয়া পর্যন্ত সময় দিন। অপরপক্ষও কোন কারণে কথাটি বলছে তা বোঝার চেষ্টা করতে হবে। তার কথা আপনি বোঝার চেষ্টা করছেন এমন পরিবেশ তৈরি করুন। এরপর ধীরে ধীরে আপনার জায়গাটাও তাকে বুঝিয়ে বলার চেষ্টা করুন। তবে এক্ষেত্রে ‘তোমাকেই বুঝতেই হবে, আমি অনেক ধৈর্য ধরে আছি’ এমন মনমানসিকতা রাখা যাবে না।

মনোমালিন্য বা কথা কাটাকাটি

২) দুর্বলতা নিয়ে কটূক্তি করা যাবে না

আমরা কেউই পারফেক্ট নই। জীবনে চলার পথে কমবেশি আমরা সবাই ভালো খারাপ পরিস্থিতিতে পড়েছি। মনোমালিন্য বা কথা কাটাকাটির কারণে সুন্দর সম্পর্ক মুহূর্তেই ভেঙে যেতে পারে। কিন্তু খুব কম মানুষই হাজার সমস্যার মধ্যেও সম্পর্ক সুন্দর রাখতে পারে। দুইজন মানুষের সম্পর্কের গভীরতার উপর নির্ভর করে একজন অপরজনকে অনেক কিছুই শেয়ার করতে পারে। যা হয়তো স্বাভাবিকভাবে যে কাউকে শেয়ার করা যায় না।

আমাদের জীবনের অতীত বা নেতিবাচক পারিপার্শ্বিক অবস্থা দিয়ে আমাদের বর্তমান বিচার করা যায় না। তাই খুব খারাপ সময়েও শুধুমাত্র তর্কে জিততে হবে এমন ভেবে কেউ কারো দুর্বলতা নিয়ে কটূক্তি করা যাবে না। এতে ওই নির্দিষ্ট সময়ে হয়তো তর্কে জেতা যায়, কিন্তু সম্পর্কটা আর আগের মতো সুন্দর নাও থাকতে পারে।

৩) নিজেদের তর্কে তৃতীয় ব্যক্তিকে জড়ানো যাবে না

নিজেদের কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে সবকিছু ঠিকঠাকও হয়ে যায়। কিন্তু কথা কাটাকাটির মাঝে অপর কোনো তৃতীয় ব্যক্তিকে জড়ানো আমাদের অনেকেরই একটা বাজে স্বভাব। চিন্তা করে দেখুন তো, বাবা মায়ের কাছে আমরা ছোট থেকে বড় হতে হতে কত ভুল করেছি! এখন যদি তারা কথায় কথায় পরিবারের বাইরের মানুষজনকে আমাদের দুর্বলতাগুলো নিয়ে কথা বলে বা কটূক্তি করে তাহলে কি আমাদের ভালো লাগবে? মোটেও না!

তেমনই দুইটা মানুষের মাঝে সম্পর্ক যেমনই হোক না কেন, কেউ কখনোই চাইবে না এই বিষয়গুলো নিয়ে তৃতীয় ব্যক্তিকে জড়ানো হোক! এতে দুটো মানুষের মধ্যে দিন শেষে সমঝোতা হয়ে গেলেও তৃতীয় ব্যক্তির মাথায় অনেক অপ্রাসঙ্গিক ও ভুল ধারণা থেকে যায়। এতে সেই ব্যক্তিটির সাথেও এক ধরণের অস্বস্তিকর বা অস্বাভাবিক সিচ্যুয়েশনের সৃষ্টি হয়। তাই নিজেদের কথা কাটাকাটির সময় যতটা সম্ভব তৃতীয় ব্যক্তিকে না জড়ানোই বুদ্ধিমানের কাজ।

মনোমালিন্য বা কথা কাটাকাটি

৪) কথায় কথায় ছেড়ে যাওয়ার ভয় দেখানো যাবে না

খুব ছোটখাটো ঝগড়ার সময় অথবা শুধুমাত্র তর্কে জিতে যাওয়ার জন্য আমরা অনেকেই ছেড়ে যাওয়ার ভয় দেখিয়ে আনন্দ পাই! অপরপক্ষের মানুষটা চুপ করে সহ্য করে যাওয়ায় আপনি হয়তো ভাবছেন তর্কে জিতে গেলেন এবারও! কিন্তু আপনি যে কাজটি করলেন সেটি সবচেয়ে বড় ভুল এবং এক অর্থে বোকামি! এভাবে একে অপরের প্রতি এক ধরণের দূরত্ব সৃষ্টি হয়!

ইংরেজিতে ‘Taken For Granted’ বলে একটা কথা আছে। সম্পর্কে যখন একজন আরেকজন কে পেয়ে বসে আর ভাবে, ‘ও তো থাকবেই, ও তো করবেই’ – তখনই এমন অনাকাঙ্ক্ষিত এক্সপেক্টেশনের কারণে সম্পর্ক সুন্দর থেকে অসুন্দরের দিকে চলে যায়। ধীরে ধীরে সম্পর্ক থেকে মন উঠে যেতে থাকে।

৫) দুইজন একই সাথে চিৎকার চেঁচামেচি করা যাবে না

ধরুন আপনার কাজের প্রচন্ড প্রেশার! এর মাঝেই আপনার কোনো সিনিয়র আপনাকে একটা কাজ দিয়ে গেলো। প্রতিটা কাজই আপনার জন্য গুরুত্বপূর্ণ। বুঝেই উঠতে পারছেন না কোনটা রেখে কোনটা করবেন। এর মাঝে সিনিয়র আবার এসে খুব রাগ নিয়ে আপনাকে কাজটা এখনই করে দিতে বললো! আপনিও নিতে না পেরে চেঁচামেচি শুরু করলেন। সিনিয়র আরও জোড়ে জোড়ে রাগ করে কথা বলা শুরু করলো! এতে কী হবে শেষ পর্যন্ত একবার ভেবে দেখুন তো? কলিগদের মধ্যে সম্পর্কে নেগেটিভিটি আর কলহ বেড়ে যাবে। কাজ করার পরিবেশ থাকবে না। মানসিক অশান্তি বেড়ে যাবে।

রাগারাগির এমন সিচ্যুয়েশনে একজনও যদি মাথা ঠান্ডা রেখে আরেকজনের জায়গাটা বুঝে কথা বলা বা শোনার চেষ্টা করতো তাহলে কিন্তু শুরুতে এই সমস্যাগুলোই হতো না! তাই অবশ্যই অস্বাভাবিক পরিস্থিতিতে দুইজন একই সাথে চিৎকার চেঁচামেচি করা যাবে না! যে কোনো একজনকে অবশ্যই ধৈর্য ধরতে হবে।

চিৎকার না করে অপরজনের কথা বোঝার চেষ্টা করুন

৬) লজিক্যাল কথাগুলো পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে বুঝিয়ে বলুন

যখন আমরা রাগ করে থাকি তখন স্বাভাবিকভাবেই চাই আরেকজন আমার জায়গাটা বুঝবে। ধরুন, আপনি আমার উপর কিছু নিয়ে খুব রাগ করে আছেন। আপনার জায়গাটা আমি শুনতে বা বুঝতেই চাচ্ছি না। কিন্তু চাচ্ছি আপনি আমার কথা শুনবেনই। এক পর্যায়ে আমি আপনাকে লজিক দিয়ে বোঝানোর চেষ্টা করছি। এমন সময় আমি ঠিক কথা বললেও আপনার কাছে তা শুনতে ভালো নাও লাগতে পারে। ইচ্ছাকৃতভাবে আপনি আমার সাথে আরও বাজে ব্যবহার করতে পারেন। তাই আমার জায়গা থেকে আমি ঠিক হলেও পরিস্থিতি একটু স্বাভাবিক হওয়া পর্যন্ত সময় নেয়া বুদ্ধিমানের কাজ। দুইজনকেই এক্ষেত্রে কথা বলার সুযোগ দিতে হবে।

৭) ঝগড়াকালীন চিন্তার বাইরে যেয়ে লং টার্ম চিন্তা করতে হবে

ঝগড়াকালীন সময়ে কমবেশি আমরা সবাই যে ভুলটি করি তা হলো, ভবিষ্যতের কথা একেবারেই চিন্তা করি না! ঝগড়াঝাঁটি বা মনোমালিন্য কিন্তু সবচেয়ে বেশি আমাদের কাছের মানুষদের সাথেই হয়। বাবা-মার সাথে ঝগড়া করে একটু পর তা ঠিকও হয়ে যায়। একইভাবে ভাই-বোন, স্বামী-স্ত্রী বা অফিসে কারো সাথে ঝগড়াঝাঁটি হলেও দিনশেষে আমাদের কিন্তু এই মানুষগুলোকে নিয়েই থাকতে হয়। কিন্তু মনোমালিন্য বা কথা কাটাকাটির সময় রাগের বশে বলে দেয়া একটি কথা কিন্তু সারাজীবনের জন্য অপর মানুষটার মনে দাগ কেটে দিতে পারে। তাই ভবিষ্যতে আফসোস না করে ঝগড়াকালীন চিন্তার বাইরে যেয়ে লং টার্ম চিন্তা করতে হবে।

লং টার্ম চিন্তা করুন

৮) অগোছালো কথা না বলে নির্দিষ্ট সমস্যা নিয়ে কথা বলুন

ধরুন, অফিসের কোনো কলিগের সাথে আপনার ঝামেলা হলো। আপনি তার সাথে মিলে একটা কাজ করছেন। আপনার কাজ আপনি ঠিকঠাকভাবে করে দিয়েছেন কিন্তু কলিগ তার কাজটুকু ঠিক মতো না করেই সাবমিট করে দিলো! তার জন্য আপনাকে সবার সামনে বকা খেতে হলো। এমন সময় আপনি কী করবেন? কলিগের ভুলটি ঠান্ডা মাথায় বুঝিয়ে বলবেন নাকি সবার সামনে তাকে ইচ্ছেমত বকাঝকা করবেন? সাথে পুরনো আরও কিছু কথা টেনে নিয়ে আসবেন?

যদি আপনি শর্ট টেম্পারড হন এবং বকাঝকা করবেন এমনটি ভেবে থাকেন তবে অবশ্যই আপনার সেলফ ডেভেলপমেন্ট বা ইমোশনাল ইনটেলিজেন্স এর উপর আরও কাজ করতে হবে। কোনো একটা নেতিবাচক সময়ে ইমোশনালি ফ্রাস্ট্রেটেড না হয়ে, অগোছালো কথা না বলে, নির্দিষ্ট যে বিষয়ে সমস্যা হচ্ছে তা নিয়ে কথা বলুন এবং সমস্যাটি সমাধানের চেষ্টা করুন।

৯) মনোমালিন্য শেষে সমাধানে আসার মাইন্ড সেট থাকতে হবে

‘আমাকে তুমি এটা বলবে কেন? তোমাকে কেন আমার বলতে হবে? আমার যেভাবে ভালো লাগে আমি করবো, চলবো!’ কথাগুলো কি খুব পরিচিত লাগছে? মনোমালিন্য বা কথা কাটাকাটির সময় যা হয়েছে তা ওই পর্যন্তই সীমাবদ্ধ থাকতে দিন। আমাদের দাদি-নানিরা একটা কথা প্রায়ই বলতেন, ‘অনেকগুলো ঘটিবাটি একসাথে থাকলে টুকটাক শব্দ তো হবেই’। তেমনই একসাথে চলতে গেলে যে কোনো সম্পর্কেই একটু মনোমালিন্য বা কথা কাটাকাটিও হবেই। কিন্তু তা ধরে মনে নিয়ে বসে থাকাটা বোকামি। দুই পক্ষেরই মনোমালিন্য শেষে সমাধানে আসার মাইন্ড সেট থাকতে হবে।

মনোমালিন্য শেষে মানিয়ে নেয়ার মানসিকতাও থাকতে হবে

কথায় আছে ‘সম্পর্ক যে কেউ ভেঙে ফেলতে পারে, তবে খুব কম মানুষই সম্পর্ক গড়ে তুলতে পারে এবং ধরে রাখতে পারে।’ আমাদের জীবনটা খুব ছোট হলেও এর জার্নিটা সুন্দর করে তোলার দায়িত্বটাও আমাদের। মনোমালিন্য বা কথা কাটাকাটির সময় এমন ছোট ছোট বিষয়গুলো খেয়াল রাখতে পারলেই কিন্তু আমাদের সম্পর্কগুলোও সুন্দরভাবে টিকে থাকতে পারে। সেই সাথে যে কোনো বাজে পরিস্থিতিতে একে অন্যকে দোষ না দিয়ে সময় দিতে হবে এবং অবশ্যই আরেকজনের জায়গাটা বুঝতে হবে এবং বুঝিয়ে বলতে হবে।

আশা করি, আজকের লেখাটি আমাদের সম্পর্কগুলো আরেকটু সুন্দর করে তোলার জন্য কিছুটা হলেও কাজে আসবে। আর অবশ্যই খেয়াল রাখবেন, মনোমালিন্য বা কথা কাটাকাটি যেন না হয় আপনার সম্পর্ক বিচ্ছেদের কারণ!

ছবিঃ সাজগোজ

7 I like it
1 I don't like it
পরবর্তী পোস্ট লোড করা হচ্ছে...