পেন্টি সিলেকশন | ধরন, সাইজ ও হাইজিন মেনটেইন করার উপায় জেনে নিন

পেন্টি সিলেকশন | ধরন, সাইজ ও হাইজিন মেনটেইন করার উপায় জেনে নিন

Untitled-1

“লনজেরি বা ইনার গার্মেন্টস বা আন্ডার গার্মেন্টস” যখনই কথাটা মাথায় আসে কোন জিনিসটার কথা আগে মনে পড়ে? আমরা বেশির ভাগ সময় ব্রা-এর কথাই ভাবে থাকি। টি-শার্ট ব্রা, স্পোর্টস ব্রা, লেইস ফেব্রিকের ব্রা- চাহিদা বা পছন্দ অনুযায়ী ব্রা সিলেক্ট করি। কিন্তু পেন্টি কেনার বেলায় কি আমরা এত মাথা ঘামায়? পেন্টিরও বিভিন্ন টাইপ রয়েছে। তাই আজকে ভাবলাম সেই ধরনগুলো সম্পর্কে একটু জানাই, কোন সময় কোন পেন্টি পরলে বেশি আরাম পাওয়া যাবে, হাইজিন মেনটেইন করার উপায় এগুলো নিয়েই আজকের আর্টিকেল।

কোন সময় কোনটা পরবো?

হয়তো ফিটিং কোন লেগিংস দিয়ে টপস পরেছেন, কিন্তু আয়নার সামনে গিয়ে খেয়াল করলেন পেন্টির লাইন বোঝা যাচ্ছে। তাহলে বাইরে বের হলে কিন্তু আপনারই অস্বস্তি হবে। অথবা সারাদিনের জন্য এমন একটি পেন্টি পরেছেন, যা একদমই আরামদায়ক না বা ঘামে অল্প সময়ের মধ্যেই ভিজে স্যাঁতস্যাঁতে হয়ে গেছে। এই অবস্থায় কিন্তু অনেক সময় ইনফেকশন হতে পারে। এইসব অনেক কারনেই আমাদের জানা প্রয়োজন কোন ধরনের পেন্টি পরা উচিত। তবে চলুন আজকে ৩ ধরনের পেন্টি সম্পর্কে জেনে নেয়া যাক।

১। রেগুলার ব্যবহারের জন্য ভ্যালিন ক্লাসিক পেন্টি ট্রিও বক্স (Valene Classic Panty Trio Box) 

ইনার ওয়ারের ব্যপারে প্রথমেই আমরা যেই বিষয়টির উপর নজর দেই সেটা হচ্ছে আরামদায়ক হবে না কি! কটোন ফেব্রিকে বাতাস চলাচল করতে পারে। ভ্যাজাইনার জায়গায় সব সময় শুকনো ও পরিষ্কার থাকা উচিৎ। কিন্তু সারাদিনের জন্য পেন্টি পরা থাকলে দেখা যায় যে ঐ অংশটা ঘেমে যায়। ঘাম থেকে ব্যাকটেরিয়ার জন্ম বা ইনফেকশন হওয়ার সম্ভাবনা থাকতে পারে। কটোন কাপড়ের ইনার গার্মেন্টস অনেক আরামদায়ক হবে। রেগুলার ব্যবহারের জন্য ভ্যালিন ক্লাসিক পেন্টি ট্রিও বক্স খুব ভালো একটা চয়েজ। সারাদিন ব্যবহার করতে পারেন, সহজেই ওয়াশ করা যায়। এগুলো খুব সফট, স্মুথ এবং আরামদায়ক। এই বক্সে একসাথে সুন্দর ৩ টি কালারের পেন্টি পেয়ে যাবেন।

২। অস্বস্তিকর অবস্থা এড়াতে ভ্যালিন মিয়াও সিমলেস পেন্টি (Valene Miiow Seamless Panty)

অনেক সময় ফিটিং প্যান্ট পরা হয়, আর দেখা যায় সাইড দিয়ে পেন্টির লাইন বোঝা যাচ্ছে, যা অনেক সময় বিব্রতকর অবস্থায় ফেলে দেয়। এই রকম প্যান্টের সাথে এমন পেন্টি ইউজ করা উচিৎ যা একদম স্কিনের সাথে মিশে যায়। এই অস্বস্তিকর অবস্থা এড়াতে ভ্যালিন মিয়াও সিমলেস পেন্টি সিলেক্ট করতে পারেন। প্রতিদিন ব্যবহারের জন্য বেশ ভালো একটি অপশন। পেন্টির লাইনে সুন্দর লেইস বসানো, যা একদম স্কিনের সাথেই মিশে যায়, বাইরে থেকে বোঝা যাবে না। আর এই পেন্টিও অনেক আরামদায়ক কারণ এর ফেব্রিক খুবই সফট। ভ্যালিন মিয়াও সিমলেস পেন্টির ২ টি সুন্দর কালার রয়েছে।

৩। ফেন্সি কালেকশন ভ্যালিন প্লাস পেন্টি (Valene Plush Panty)

লেইসের ব্রা ইউজ করতে যেমন পছন্দ করি আমরা, ঠিক তেমনি ফেন্সি বা লেইসের পেন্টি পরতে অনেকেই পছন্দ করি। আউটফিট থেকে শুরু করে যখন ইনারও সুন্দর, আরামদায়ক এবং নিজের পছন্দমত হয়, তখন নিজের কনফিডেন্স লেভেল বেড়ে যায়। ভ্যালিন প্লাস পেন্টিটি সফট এবং হাই কোয়ালিটির ফেব্রিক দিয়ে তৈরি করা হয়েছে। সাইড লাইনে খুব সুন্দর লেইস দেয়া, প্রিমিয়াম কোয়ালিটি আর সামনের পার্টে খুব সুন্দর এমব্রোডারি করা। এই পেন্টি সিমলেস হওয়ায় ফিটিংস ড্রেসের সাথেও ইজিলি ক্যারি করতে পারবেন। যারা ইনার ওয়ার সিলেকশন নিয়েও চুজি এবং সুন্দর সুন্দর কালেকশন রাখতে পছন্দ করেন, তাদের জন্যও এটা ভালো অপশন। ভ্যালিন প্লাস পেন্টির খুব সুন্দর ৫ টি কালার রয়েছে।

সাইজ কীভাবে বুঝবেন?

ব্রা-পেন্টি কিনতে গেলেই সাইজ নিয়ে আমরা অনেকেই কনফিউসড হয়ে যায়। সাজগোজে এই পেন্টিগুলো পেয়ে যাবেন। হয়তো ভাবছেন ক্লাসিক পেন্টি ট্রিও বক্সের সাইজগুলো কীভাবে বুঝবেন? প্রথমেই বলে নেয়- ভ্যালিন ক্লাসিক পেন্টি ট্রিও বক্স, ভ্যালিন মিয়াও সিমলেস পেন্টি, ভ্যালিন প্লাস পেন্টি সব কয়টি সেকশনে সাইজ সাজগোজের ওয়েবসাইটে দেয়া আছে।

ভ্যালিন ক্লাসিক পেন্টি ট্রিও বক্স, এই সেকশনের প্যান্টির সাইজগুলো S, M, L, XL পর্যন্ত দেয়া আছে। কোমরের সাইজ অনুযায়ী S, M, L, XL সাইজ নির্ধারণ করা হয়েছে। যেমন- S সাইজের কোমরের মাপ আপ টু ৩০ ইঞ্চি (Up to 30 Inch) ঠিক এইভাবেই M, L, XL নির্ধারণ করা আছে। ভ্যালিন মিয়াও সিমলেস পেন্টি এবং ভ্যালিন প্লাস পেন্টির ফ্রি সাইজ, যদিও কোমরের মাপ ৩৬ পর্যন্ত যাবে।

নিজের জন্য খেয়াল রাখুন কিছু বিষয়

মেয়েদের শরীরের সব থেকে সেনসিটিভ পার্ট হচ্ছে ভ্যাজাইনা। শরীরে অসুখ হলে যেভাবে ডাক্তারের কাছে যায় বা অন্য কারো সাথে খোলামেলাভাবে বলতে পারি, ভ্যাজাইনার সমস্যা হলে তা আমরা অনেকেই বলতে সংকোচ বোধ করি। অনেক সময় ইনফেকশন, চুলকানি হয়। পেন্টি ব্যবহারে, পেন্টি বাছাই করার সময়, হাইজিন মেনটেইন করতে কিছু বিষয় খেয়াল রাখতে হবে।

১। সারাদিনের জন্য বাহিরে বের হচ্ছেন, তাহলে কটোন কাপড়ের পেন্টি পরুন। ফেব্রিক ভালো না হলে অনেক সময় ইনফেকশন হয়ে থাকে। ফেব্রিক তাপ ও আদ্রতা আটকে রাখে, ফলে ভি-এরিয়াতে অতিরিক্ত তাপ সৃষ্টি হয় যা ব্যাকটেরিয়া, ইস্ট গ্রো করার জন্য উপযুক্ত পরিবেশ। তাই ভালো ব্রান্ডের পেন্টি বাছাই করুন।

২। ইনার ধোয়ার সময় সেভলন পানিতে মিশিয়ে সেটা ব্যবহার করতে পারেন। জীবাণুনাশক না থাকলে গরম পানি দিয়ে ধুয়ে নিবেন।

৩। পেন্টি সব সময় রোদে শুকিয়ে নিবেন। ভেজা অবস্থায় কখনো পরবেন না।

৪। পেন্টির সাইজও মাপমত হওয়া উচিৎ। কেননা টাইট হলে পেন্টির লাইন বোঝা যায়। সব থেকে বড় সমস্যা হচ্ছে হেলথ ইস্যু। পেন্টি টাইট হলে গরমে ঘাম বেশি হয়। ফলে ব্যাকটেরিয়া জন্ম নিতে পারে। আবার আপনারও অস্বস্তি হবে।

৫। পেন্টি একবার ব্যবহার হলে না ওয়াশ করে পরবেন না। পরিচ্ছন্নতা মেনটেইন করবেন।

৬। কিছুদিন পর পর ইনার ওয়ার পরিবর্তন করুন। আয়রন করবেন না, ব্লিচও ব্যবহার করবেন না। এতে ফেব্রিক ভালো থাকবে।

তাহলে আজ অনেক কিছুই আমরা জেনে নিলাম। জামা কাপড় কেনার সময় আমরা যেমন বেস্ট কোয়ালিটি দেখে তারপর কিনি, ব্রা বা পেন্টি কেনার সময়ও সমানভাবে গুরুত্ব দিতে হবে। পার্সোনাল কেয়ারের ব্যাপারে সচেতন হোন। অথেনটিক প্রোডাক্ট কিনতে আমার সবসময়ই ভরসা শপ.সাজগোজ.কম। খুব ভালো কোয়ালিটির ব্রা আর পেন্টিও এখন সাজগোজেই পেয়ে যাবেন। দোকান থেকে কিনতে অস্বস্তি হলে ইনার ওয়ার অনলাইনে অর্ডার করে ঘরে বসেই প্রোডাক্ট হাতে পেয়ে যাবেন। আর বাংলাদেশের সব জায়গায় কিন্তু সাজগোজ ডেলিভারি দিয়ে থাকে। তাছাড়া সাজগোজের দুইটা আউটলেট আছে, যেটা যমুনা ফিউচার পার্ক আর সীমান্ত সম্ভারে অবস্থিত।

ছবি- সাজগোজ

29 I like it
2 I don't like it
পরবর্তী পোস্ট লোড করা হচ্ছে...