আল্টিমেট বডি কেয়ারে অলিভ অয়েলের মাল্টিপল বেনিফিটস

আল্টিমেট বডি কেয়ারে অলিভ অয়েলের মাল্টিপল বেনিফিটস

Image 2

হেলথ বেনিফিটস পাওয়ার জন্য খাবার তৈরিতে অলিভ অয়েলের ব্যবহার হয়, এ তথ্য তো কমবেশি আমাদের সবারই জানা। এছাড়া চুল ও ত্বকের যত্নেও এর ব্যবহার হয়ে আসছে বেশ আগে থেকেই। কিন্তু এই অয়েল দিয়ে যে ফুল বডি কেয়ারও করা সম্ভব সেটা অনেকেই জানেন না। অলিভ অয়েলে আছে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টি ইনফ্ল্যামেটরি ও অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল প্রোপার্টিজ। প্রিম্যাচিউর এজিং সাইনস প্রিভেন্ট করতে, স্কিন ব্যারিয়ার ইমপ্রুভ করতে, ইফেক্টিভ বডি ময়েশ্চারাইজার বা স্ট্রেচ মার্ক হিলার হিসেবেও খুব ভালো কাজ করে এই অয়েল। এক কথায়, ডায়েট ও লাইফস্টাইলে অলিভ অয়েল অ্যাড করলে অনেক হেলথ প্রবলেম রিডিউস করা ইজি হবে। হেলথ বেনিফিট সম্পর্কে তো অনেকেই জানি, কীভাবে অলিভ অয়েল দিয়ে আল্টিমেট বডি কেয়ার করা যাবে সে সম্পর্কেই আজ বিস্তারিত জানাবো।

আল্টিমেট বডি কেয়ারে অলিভ অয়েলের ব্যবহার 

সেলফ কেয়ারে  

হাত ও পায়ের নখ ভালো রাখা, বডি এক্সফোলিয়েশন, একজিমা বা সোরিয়াসিসের প্রবলেম রিমুভ করা, চোখের নিচের ডার্ক সার্কেল দূর করা ইত্যাদি বিভিন্ন বিষয় বডি কেয়ারে ইনক্লুডেড। তাই আল্টিমেট বডি কেয়ারে অলিভ অয়েল ইনক্লুড করলে অনেক বেনিফিট পাওয়া যায়। চলুন এ বিষয়ে বিস্তারিত জেনে নেয়া যাক-

১) অনেক সময় হাত, পায়ের নখ শুষ্ক হয়ে যায় বা একটু বড় হলেই ভেঙে যায়। এ সমস্যা দূর করার জন্য অলিভ অয়েল হালকা গরম করে হাত-পায়ের নখে ২ মিনিট ম্যাসাজ করুন। এতে নখ হেলদি থাকবে, ভেঙে যাওয়ার সম্ভাবনা কমে যাবে। এছাড়া কিউটিকল অয়েল হিসেবেও এই অয়েলটি খুব ভালো কাজ করে।

২) বডি এক্সফোলিয়েট করার জন্য ১/২ কাপ কফি গুঁড়ো, ১/২ কাপ চিনি, ২ টেবিল চামচ অলিভ অয়েল ভালোভাবে মিশিয়ে নিন। এই প্যাকটি বডি এক্সফোলিয়েট করার পাশাপাশি স্কিন করে তুলবে সফট ও স্মুথ।

আল্টিমেট বডি কেয়ারে অলিভ অয়েল

৩) ড্রাই ও ডিহাইড্রেটেড স্কিন নিয়ে অনেকেই বেশ চিন্তিত থাকেন। কারণ ফেইসের তুলনায় বডির স্কিন প্রায়ই বেশ রাফ হয়ে যায়। দেখা দেয় ডার্ক প্যাচেসের প্রবলেম। এই সমস্যা কমিয়ে ত্বকের কোমলতা ফিরিয়ে আনতে ইউজ করতে পারেন অলিভ অয়েল। শাওয়ারের পর পুরো বডিতে অয়েল ম্যাসাজ করে নিন, এতে দিনভর স্কিন থাকবে ময়েশ্চারাইজড।

৪) চোখের নিচে ডার্ক সার্কেল, রিংকেলস, পাফিনেস ইত্যাদি সমস্যার সমাধানে এই অয়েল খুব ভালো কাজ করে। বেটার রেজাল্ট পাওয়ার জন্য রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে ২ ফোঁটা অলিভ অয়েল নিয়ে চোখের চারপাশে ব্যবহার করুন। সকালে ফেইস ওয়াশ দিয়ে ফেইস ক্লিন করে নিন। যদি এক্সট্রা নারিশমেন্ট চান, তাহলে রেগুলার আই ক্রিমের সাথে ১ ফোঁটা অলিভ অয়েল মিক্স করে আই এরিয়াতে অ্যাপ্লাই করে নিতে পারেন।

৫) আপনার স্কিন যদি ড্রাই হয় এবং সোরিয়াসিস বা একজিমার মতো কোনো প্রবলেম থাকে, তাহলে অলিভ অয়েল এই সমস্যা থেকে অল্প সময়েই রিলিফ দিতে পারে। এফেক্টেড এরিয়াতে পিওর ও কোল্ড প্রেসড অলিভ অয়েল অ্যাপ্লাই করুন। এতে স্কিন ময়েশ্চারাইজড ও হাইড্রেটেড থাকবে। স্কিন প্রবলেম কমে আসবে অনেকটাই।

মাসল পেইন কমাতে 

মাঝে মাঝে টানা কাজ করতে করতে আমাদের বডি স্টিফ হয়ে যায়। এই স্টিফনেস রিলিফ করার জন্য অলিভ অয়েল বেশ কার্যকরী। তাছাড়া এই অয়েল দিয়ে বডি ম্যাসাজ করলে প্রেশার ও টেনশন অনেকটাই কমে যায়। হাত পায়ের জয়েন্টের ব্যথা কমাতেও এই অয়েল বেশ কার্যকর।

যেভাবে ম্যাসাজ করবেন

১) নেক এরিয়া, শোল্ডার ও ব্যাক এরিয়া যদি স্টিফ বা টানটান হয়ে থাকে তাহলে বেশ অস্বস্তি লাগে। এই স্টিফনেস রিলিফ করার জন্য হাতের তালুতে কয়েক ফোঁটা অয়েল নিয়ে এই জায়গাগুলোতে ম্যাসাজ করুন। চাইলে অলিভ অয়েলের সাথে ১/২ ফোঁটা অ্যাসেনশিয়াল অয়েল মিশিয়ে নিতে পারেন। অ্যাসেনশিয়াল অয়েলও স্ট্রেস কমাতে সাহায্য করে।

২) আমাদের অনেকেরই হাত ও পায়ের জয়েন্টে ব্যথা হয়। ব্যথা যখন থেকে অনুভব হয়, তখন থেকেই এটি রিকোভারি করার চেষ্টা করা উচিত। নইলে আর্থ্রাইটিসের সমস্যা হতে পারে। হাত ও পায়ের জয়েন্টে ব্যথা হলে এক্সট্রা ভার্জিন অলিভ অয়েল ম্যাসাজ করুন। এই অয়েলে olyropy নামে একটি উপাদান থাকে যা ইনফ্ল্যামেশন কমাতে সরাসরি কাজ করে। এর রেগুলার ম্যাসাজে ব্লাড সার্কুলেশন তো বাড়েই, সেই সাথে আর্থ্রাইটিসের সম্ভাবনাও কমে।

আল্টিমেট বডি কেয়ারে অলিভ অয়েল

স্ট্রেচ মার্ক দূর করতে 

মেয়েদের জন্য স্ট্রেচ মার্ক খুবই মন খারাপ করা একটি বিষয়। প্রেগনেন্সিতে বা ওজন কমে গেলে বডিতে স্ট্রেচ মার্ক ভিজিবল হতে থাকে। এই মার্কের ভিজিবিলিটি কমিয়ে আনতে হেল্প করে  অলিভ অয়েল।

১) অলিভ অয়েল হালকা গরম করে নিন। এফেক্টেড এরিয়াতে ম্যাসাজ করে ৩০ মিনিট অপেক্ষা করুন। এবার পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

২) অ্যালোভেরাতে আছে Mucopolysaccharides, যা স্কিন ময়েশ্চারাইজড রাখতে এবং কোলাজেন ডেভেলপমেন্টেও হেল্প করে। ১-২ চা চামচ অ্যালোভেরা জেলের সাথে ১/২ চামচ কোল্ড প্রেসড বা এক্সট্রা ভার্জিন অলিভ অয়েল ভালোভাবে মিশিয়ে নিন। স্ট্রেচ মার্ক এরিয়াতে ২০/৩০ মিনিট লাগিয়ে অপেক্ষা করুন। এবার পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এরপর ময়েশ্চারাইজার বা লোশন অ্যাপ্লাই করে নিন। তবে মনে রাখবেন, স্ট্রেচ মার্ক একবারে রিমুভ হয় না। কিছু প্রসেসের মাধ্যমে এর ভিজিবিলিটি কমিয়ে আনা যায় কেবল।

স্ট্রেচ মার্ক দূর করতে অ্যালোভেরা ও অলিভ অয়েল

অলিভ অয়েল কি লোশনের চেয়ে ভালো?

সত্যি বলতে দুটো প্রোডাক্টই আসলে স্কিন ময়েশ্চারাইজড রাখার জন্য খুব ভালো কাজ করে। আমাদের স্কিন ন্যাচারালি অয়েল প্রোডিউস করে। বারবার ক্লেনজিং বা বয়স বৃদ্ধির সাথে সাথে এই অয়েল প্রোডিউস কমতে থাকে। এই কমতিটাই পূরণ করে অলিভ অয়েল। স্কিনের নারিশমেন্ট ফিরিয়ে এনে স্কিনকে করে তোলে সফট। অন্যদিকে, লোশনেও অয়েল ও ওয়াটার থাকে, যা ময়েশ্চার ও হাইড্রেশন লক করে স্কিনকে স্মুথ রাখে। দুটোর কাজ একই ধরনের হওয়ায় একটি আরেকটির চেয়ে ভালো এমনটি বলা যাবে না। বরং দুটোই স্কিন ভালো রাখার জন্য কাজ করে।

অলিভ অয়েল নিয়ে আরও কিছু তথ্য

রেগুলার এক্সারসাইজের পাশাপাশি ডায়েটে অলিভ অয়েল দিয়ে তৈরি খাবার খেলে ওজন কমে। এই তেলকে যদি আপনি প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় ইনক্লুড করেন তাহলে আরও বেশ কিছু সমস্যা থেকে দূরে থাকতে পারবেন। এই অয়েল আরও যে যে হেলথ বেনিফিট দিবে-

  • হার্ট অ্যাটাক ও স্ট্রোকের সম্ভাবনা কমায়
  • ব্লাড সার্কুলেশন ইমপ্রুভ করে
  • কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দূর করে
  • হজমে সাহায্য করে

আল্টিমেট বডি কেয়ারে অলিভ অয়েল কীভাবে কাজ করে সে সম্পর্কে তো জানা হলো। এবার আপনিও আপনার রেগুলার বিউটি রুটিনে এই অয়েল অ্যাপ্লাই করতে পারেন। অথেনটিক ও পিওর অলিভ অয়েল পেয়ে যাবেন সাজগোজে। এছাড়া অথেনটিক স্কিন কেয়ার, হেয়ার কেয়ার ও মেকআপ প্রোডাক্টও সাজগোজ থেকে কিনতে পারেন। সাজগোজের চারটি ফিজিক্যাল শপ রয়েছে। শপগুলো যমুনা ফিউচার পার্ক, সীমান্ত সম্ভার, বেইলি রোডের ক্যাপিটাল সিরাজ সেন্টার এবং উত্তরার পদ্মনগর (জমজম টাওয়ারের বিপরীতে) এ অবস্থিত। এই শপগুলোতে ঘুরে নিজের পছন্দমতো অথবা অনলাইনে শপ.সাজগোজ.কম থেকে কিনতে পারেন আপনার দরকারি প্রোডাক্টগুলো।

ছবিঃ সাজগোজ

0 I like it
0 I don't like it
পরবর্তী পোস্ট লোড করা হচ্ছে...