অতিরিক্ত মেদ নিরাময়ে ৮টি প্রাকৃতিক উপায়!

অতিরিক্ত মেদ নিরাময়ে ৮টি প্রাকৃতিক উপায়!

সুন্দর স্বাস্থ্য আমাদের সবার অতি আকাঙ্ক্ষিত। স্বাস্থ্য সুন্দর রাখতে আমাদের প্রয়াসের শেষ নেই। বেশি চিকন হলে যেমন ভালো দেখায় না তেমনি অতিরিক্ত মুটিয়ে গেলেও সৌন্দর্য হারানোর সাথে সাথে দেহে বাসা বাঁধতে পারে নানা রোগ। মেদবহুলতা হচ্ছে এমনই এক স্বাস্থ্য সমস্যা যা আমাদের দেহের মেদ বৃদ্ধি করে আর এই অতিরিক্ত মেদ দেহের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর।

মেদবহুলতা দেহের ক্রনিক ডিজিজ (chronic diseases) হবার সম্ভাবনা বাড়িয়ে দেয়। এ ধরনের কিছু রোগ হচ্ছে –

  • ডায়বেটিস
  • হাই ব্লাড প্রেশার
  • হাই কোলেস্টেরল
  • হার্ট অ্যাটাক
  • ক্যান্সার
  • করোনারি হার্ট ডিজিজ (Coronary heart disease)
  • লিভার ও গলব্লাডার ডিজিজ (Liver & gallbladder disease)
  • স্লিপ অ্যাপনিয়া (Sleep apnoea)
  • ইনফারটিলিটি, অ্যাবনরমাল পিরিয়ড (Infertility, abnormal periods) ইত্যাদি।

অবেসিটিতে (Obesity) আক্রান্ত ডায়বেটিস রোগীরা সাধারণ ডায়বেটিস রোগী অপেক্ষা কয়েকগুণ বেশি ঝুঁকিতে থাকেন। তাদের হার্ট ডিজিজ, স্ট্রোক, বর্ণান্ধতা, কিডনি ডিজিজ, হাই ব্লাড প্রেশার হবার ঝুকি অনেকাংশে বেড়ে যায়।

এছাড়াও অবেসিটি ক্যান্সার, স্ট্রোক, হার্ট ডিজিজের জন্য হুমকি স্বরূপ। পৃথিবীতে এসব রোগে আক্রান্ত হয়ে প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ প্রাণ হারাচ্ছে, বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই মূল সমস্যা এই অতিরিক্ত মেদ।

এসব রোগ থেকে বেঁচে থাকতে চাইলে অবশ্যই নিজের স্বাস্থ্যের প্রতি বিশেষ খেয়াল রাখতে হবে। পরিমিত পরিমান খাদ্য গ্রহন করতে হবে। অতিরিক্ত মেদ জাতীয় খাদ্য থেকে যথাসম্ভব দূরে থাকতে হবে। চর্বি জাতীয় খাদ্য দৈনিক খাদ্য তালিকায় রাখা যাবে না কারণ এতেই মেদবৃদ্ধির সব উপাদান থাকে। আর যদি আপনি বুঝতে পারেন ইতোমধ্যে আপনার দেহের মেদ বেড়ে গেছে, তাহলে কিছু প্রাকৃতিক উপায় অনুসরণ করতে পারেন। সঠিকভাবে মানতে পারলে প্রাকৃতিক প্রতিষেধকগুলো খুব ভালো কাজ করে অতিরিক্ত মেদ নিরাময়ের ক্ষেত্রে।

মেদ নিরাময়ে কিছু প্রাকৃতিক উপায়

১.  মধু, লেবুর রস ও আদা

 

প্রতিদিন সকালে মধু, লেবুর রস, আদা রস পানিতে মিশিয়ে খেতে হবে।

২.  হলুদ গুড়ো ও পানির মিশ্রন

এক গ্লাস পানিতে সামান্য পরিমান হলুদ গুড়ো মিশিয়ে প্রতিদিন সকালের নাস্তার আগে সেবনে মেদ কমাতে সাহায্য করে।

৩.  পুদিনা পাতা

পুদিনা পাতা ওজন কমাতে অনেক কার্যকরী। প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় পুদিনা রাখা ভালো।

৪. কারি পাতা

 

প্রতিদিন সকালে ১০-১৫টি কারি পাতা সেবনেও ভালো ফল পাওয়া যায়।

৫.  টমেটো 

প্রতিদিন সকালে নাস্তার আগে ১ বা ২ টি টমেটো খেতে হবে তিন মাস।

৬. গরম পানি ও মধু

এক গ্লাস হালকা গরম পানিতে ১ চা চামচ মধু প্রতিদিন সকালে খেলে এটি ওজন নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে।

৭.  কাঁচা অথবা সিদ্ধ বাঁধাকপি

কাঁচা অথবা সিদ্ধ বাঁধাকপি খাওয়া মেদ কমাতে অত্যন্ত সিম্পল একটি উপায়। এটিকে খাদ্য তালিকায় প্রতিদিন রাখলে ভালো।

৮.  লেবুর রস ও মধু

 

হালকা গরম পানিতে লেবুর রস ও মধু মিলিয়ে খেলে ভালো উপকার পাওয়া যায়।

এছাড়াও ন্যাচারাল ডায়েট অনুসরণ করতে হবে। যেমন:

  • টাটকা শাকসবজি ও ফল খেতে হবে।
  • অতিরিক্ত ফ্যাট, চিনি, লবণ, প্রিজারভেটিভস জাতীয় খাবার পরিহার করতে হবে।
  • সময়মত খাবার খেতে হবে, না খেয়ে ডায়েট করা যাবে না।
  • গ্রিন টি ওজন নিয়ন্ত্রনে বেশ ভালো।
  • প্রচুর পানি পান করতে হবে।
  • নিয়মিত ব্যয়াম করতে হবে।

আশা করি এই আর্টিকেলটা আপনাদের উপকারে আসবে।

ছবি – সংগৃহীত: নিউজবাংলাদেশ.কম, ইমেইজেসবাজার.কম, পিনটারেস্ট.সিএচ, স্টাইল্ক্রেজ.কম

2 I like it
0 I don't like it
পরবর্তী পোস্ট লোড করা হচ্ছে...