নিউ ইয়ার সেলিব্রেশন | ২০১৯ সালের হোক শুভাগমন!



নিউ ইয়ার সেলিব্রেশন | ২০১৯ সালের হোক শুভাগমন!

লিখেছেন - আনিকা ফওজিয়া জুঁই
ডিসেম্বর ৩১, ২০১৮



হায় আল্লাহ! বছরটা দেখি শেষ হয়ে গেলো! ক্যালেন্ডারে হঠাৎ তাকিয়ে দেখি, আজকের তারিখ, ৩১শে ডিসেম্বর!! এটা কোন কথা!! এখনো তো কিছুই করা হল না!! ২০১৮ সালটা সত্যিই আমার অনেক তাড়াতাড়ি শেষ হয়ে গেলো! দারুণ একটা বছর ছিল এটা আমার জন্য। ২০১৯ সালের শুরু আগামীকাল থেকে, নিউ ইয়ার সেলিব্রেশন! উফফফ! এইতো সেদিন যেন পার করলাম ২০১৮ এর ১ জানুয়ারি!

আমার এখনো মনে আছে সেদিনের কথা… ৩১শে ডিসেম্বর রাত ১১:৪৫ মিনিট থেকে দাঁড়িয়ে আছি বারান্দায় আমি আর আম্মু। কিরে বাবা! কেউ কি একটুও সেলিব্রেট করবে না? রাত ১২টা বাজলো। প্রচন্ড শীত, গাঢ় মাতাল অন্ধকার আর নিশ্চুপ চারদিক… হঠাৎ সামনের ৪ তলা বিল্ডিং-এর ৩য় তলা থেকে উড়ল একটুকরো আলো! আরে কী এটা? ওমা! একটা ফানুশ! তার ঠিক কয়েক সেকেন্ড পর যেন শত শত ফানুশে ভরে গেলো চারপাশ। মনে হচ্ছিল যেন হাজারটা জোনাকি মিটিমিটি জ্বলছে। চারদিকে “হ্যাপি নিউ ইয়ার”-এর সুর!! উফফফ!! জানেন, আনন্দে আমার চোখে পানি চলে এসেছিল!

 

এবারের ব্যাপারটা আমার জন্য একটু অন্যধরনের! কারণ এবার আমার সাথে নতুন বছরের আনন্দ উদযাপনের জন্য আমার জীবনসঙ্গী আছেন এবং তিনি আমার মত একটু পাগলাটে!

কাল একটা মুভি দেখছিলাম- ‘বার্ড বক্স’ (Bird Box)। স্যানড্রা বুলক-এর অসাধারণ একটা মুভি। একদিন এর রিভিউ দিবো! যাই হোক, তখন হঠাৎ একটা ডায়রি আর কলম নিয়ে ওকে বললাম, “আমাদের নিউ ইয়ার রেজল্যুশন কী?”

ব্যস! চিন্তা আর লেখা শুরু!

নিউ ইয়ার রেজল্যুশন-টা আসলে কী?

নিউ ইয়ার রেজল্যুশন-টা আসলে কী? - shajgoj.com

এটা একটা মজার ট্রেডিশনের মত বলা যায়! সারাটা বছর জুড়ে কোন উদ্যোগটা আপনি নিতে চান, কোন স্বভাবটা বদলাতে চান, কিভাবে আপনার স্বপ্নগুলোকে বাস্তবায়িত করতে চান… এমন আরও নানান চিন্তা-ভাবনাকে পয়েন্ট-আকারে সাজিয়ে একটা ‘টু-ডু-লিস্ট’-এর মত করা! ভাবছেন, আসছে যতসব ঢং দেখাতে? মোটেই না! হ্যাঁ, হয়ত এই টু-ডু-লিস্ট-এর সবগুলো কাজ সম্পন্ন হবে না, কিন্তু ২-৩ টাও যদি হয়, ক্ষতি কী?

আচ্ছা, কেমন হতে পারে বলুন তো লিস্ট-টা? কিছু কমন কাজ করা যেতে পারে।

শুরু করি নিউ ইয়ার সেলিব্রেশন থেকে!

কথা হচ্ছে, সেলিব্রেশন মানেই উশৃঙ্খলতা নয় কিন্তু! বোম ফাটিয়ে, ড্রিংক করে বেপরোয়া ড্রাইভ করে, হাই ভলিয়্যুম-এ গান ছেড়ে মানুষের ঘুম হারাম করে কখনো কিছু উদযাপন করা যায় না বেসিক্যালি, হোক তা নিউ ইয়ার সেলিব্রেশন বা অন্য কিছু! খুব সুন্দর কিছু মুহূর্ত তৈরি করাটাও একটা আর্টিস্টিক ব্যাপার হতে পারে।

১. হতে পারে কিছু বই, হালকা মিউজিক, সাথে থাকুক পিজ্জা কিংবা চকোলেট মুজ অথবা এক মগ গরম গরম ধোঁয়া ওঠা হট চকোলেট দিয়ে নিউ ইয়ার সেলিব্রেশন !

২. আবার হতে পারে ক্যান্ডেল লাইট ডিনার! খাবারটা বাইরে থেকে আনতে পারেন কিংবা বাসাতেই রান্না করে নিতে পারেন কিন্তু চটজলদি।

নিউ ইয়ার সেলিব্রেশন ক্যান্ডেল লাইট ডিনারে - shajgoj.com

৩. বারবিকিউ করা যায়। অনেকে মিলে (পরিবার, বন্ধুবান্ধব, কলিগস ইত্যাদি)… খাবার প্রোসেসিং, কুকিং, সারভিং, সাথে হালকা মিউজক, গান গাওয়া, গল্প গুজব… দারুণ কিছু মুহূর্ত… আর কী লাগে!

নিউ ইয়ার সেলিব্রেশন পরিবার, বন্ধুবান্ধব, কলিগসদের সাথে বারবিকিউ পার্টি করে - shajgoj.com

৪. মুভি দেখতেও কিন্তু খারাপ লাগে না। কম্বল মুড়ি দিয়ে হাতে কফি/চা নিয়ে আর চিপস হাতে পছন্দসই মুভি দেখা… উফফ… ভাবতেই ভালো লাগছে! নিউ ইয়ার সেলিব্রেশন এতে মন্দ না।

৫. প্রিয় মানুষটার সাথে গল্প-আড্ডা, প্ল্যানিং, খেলা, রান্নাবান্না, কেক কাটা… এভাবেও দারুণ একটা ভালোবাসাপূর্ণ সেলিব্রেশন হতে পারে কিন্তু!

৬. সন্তানদের নিয়ে ডিনার করা, গল্পগুজব, বারবিকিউ… এক অন্যরকম আনন্দঘন মুহূর্ত সৃষ্টি করতে পারে আপনার জন্য। কাজের এবনরমাল চাপে যা করা হয়ে উঠে না যেই তা আপনি নিউ ইয়ার সেলিব্রেশন এই করে নিতে পারেন।

নিউ ইয়ার সেলিব্রেশন পরিবারের সাথে খাওয়া দাওয়া করে- shajgoj.com

৭. দেশের বাইরে বা ভেতরেই একটা ট্রিপ দিয়ে দেয়া যায়… আনন্দটাও দিগুণ হবে! অবশ্যই বাজেট ফ্রেন্ডলি।

রেজল্যুশন-টা কেমন হবে?

অফিস করে আমি আর আমার হাজবেন্ড প্রচণ্ড ক্লান্ত থাকি। কয়েক মাস হল বিয়ে হয়েছে আমাদের। ব্যস্ততার চোটে আমাদের একসাথে কাটানোর মত সময় মেলে খুবই কম! তাই দুজনেই চেষ্টা করি ঐ সময়টাকেই খুব করে উপভোগ করার। আর রেজল্যুশন-টা?

১. তাই প্রথম কাজটা হতে পারে- নিজেকে সময় দেয়া। নিজেকে নতুন বছরে আরও নতুন করে ভালোবাসা। চোখটা বন্ধ করে লম্বা একটা শ্বাস নিন। নিজের বর্তমানকে এনজয় করুন। ভবিষ্যৎ নিয়ে দুশ্চিন্তা করে সময় নষ্ট করা আর কত? কিভাবে ভবিষ্যতটাকে উজ্জ্বল করা যায়, এর জন্য ছোট্ট একটা প্ল্যানিং… খুব কঠিন কিন্তু না! ব্যস, প্ল্যান করেই বসে না থেকে কাজ শুরু করে দিন! হোক সেটা প্রফেশনাল কিংবা পার্সোনাল!

নিউ ইয়ার সেলিব্রেশন ও রেজল্যুশন-টা হোক পার্সোনাল - shajgoj.com

২. বাবা-মা এর সাথে মন খুলে কথা বলুন। তাদের জন্য প্রাণভরে দোয়া করুন। সবার সাথে রাগ-দুঃখ, অভিমান- সব মিটিয়ে নতুন করে সব শুরু করুন। খারাপ সব এড়িয়ে চলুন। ভালোগুলোকে স্বাগত জানান। ব্যাপারটা কঠিন ভেবে বাদ দিলেই কঠিন। আর করা শুরু করলে দেখবেন আর কঠিন লাগবে না। পাজল সল্ভিং-এর মত কিছুটা, এই আর কী!

৩. পড়াশুনা, চাকরি-বাকরি, সংসার… মোটকথা সবকিছুর জন্যই একটা প্ল্যানিং-এর একটু দরকার হয় বৈকি! প্রফেশনাল ও পার্সোনাল স্ট্র্যাটেজি-টাকে কিভাবে বুঝবেন ও ফলো করবেন, কতটুকু আগাতে চান ও তার জন্য কতটুকু চেষ্টা করতে হবে, কোন কোন ক্ষেত্রে স্কিলফুল হতে চান ও তার জন্য কী করনীয়, সন্তানদের ভবিষ্যৎ ও জীবন… এমন অনেক ডিসিশন মেকিং-এর ক্ষেত্রে এই রেজল্যুশন আপনাকে সাহায্য করতে পারে। তাই লিস্ট করে ফেলুন প্ল্যানগুলো!

৪. “নিজেকে বদলে দেবো!”-বলে একসাথে একেবারে সব চেঞ্জ করতে চাওয়াটা বোকামো ছাড়া আর কিছুই না! কারণ আপনি আপনি-ই! আপনার নিজেকে চেঞ্জ করার কিছু নেই। চেঞ্জ করবেন ক্ষতিকারক বদভ্যাসগুলো। আয়ত্তে আনবেন কিছু ভালো অভ্যাস। অনেকে বই পড়ার অভ্যাস নতুন করে আবার গড়ার জন্য বইয়ের নাম লিস্ট করেন। অনেকে ওয়েট লস-এর ব্যাপার নিয়ে চিন্তিত। চিন্তা বাদ! লিস্ট করে ফেলুন!

নিউ ইয়ার সেলিব্রেশন ও রেজল্যুশন-টা হোক বই পড়ে - shajgoj.com

৫. পাওয়া না পাওয়ার হিসাব করে কষ্ট পাবেন না! প্রত্যেকটা ঘটনা একেকটা শিক্ষার মত, যা কিনা আপনার পরবর্তীতে যেকোনো ডিসিশন নিতে বা কাজে অগ্রসর হতে কাজে লাগবে। “দুঃখের পরে সুখ আসে”- ব্যাপার কিন্তু সত্যি!

৬. টাকা জমানো বা সেভিং- খুব ইম্পরট্যান্ট একটা ব্যাপার। অবশ্যই এটা লিস্ট-এ রাখবেন। কখন কী বিপদে টাকা লেগে যায়, বলা তো যায় না!

নিউ ইয়ার সেলিব্রেশন ও রেজল্যুশন-টা হোক টাকা জমিয়ে - shajgoj.com

৭. ম্যারিড কাপল-দের জন্য বলছি, ফ্যামিলি প্ল্যানিং-এর ব্যাপারটাও লিস্ট-এ রাখুন!

অনেক কথা হল! বোর করে ফেললাম না তো? আসলে ব্যাপারগুলো খুব কমন। নতুন করে জানানোর জন্য নয়, বরং ছোট্ট একটু রিমাইন্ডারের মত মনে করিয়ে দেয়া এই আর কী! উফফ আর মাত্র কয়েক ঘণ্টা বাকি! সুন্দর একটা বছর হোক সবার জন্য আসন্ন ২০১৯! ভাল-খারাপ সবই জীবনের অংশ! তাই মন খারাপ একদম করবেন না! কী আছে এই জীবন ছাড়া, বলুন?

Happy New Year to Everyone!!

ছবি- সংগৃহীত: সাজগোজ