আমের ঝাল আচার – Shajgoj



আমের ঝাল আচার


অগাস্ট ৬, ২০১৮



“কাঁচা আম?? এখন??!!”- নিনা আমাকে জিজ্ঞেস করলো দুইদিন আগে কাঁচা আমের এই আচার বানিয়ে খাওয়ালাম, তখন অবাক হয়ে ওর মুখ দিয়ে এই লাইন বের হল! হ্যাঁ, এখন পাকা আমের সময়। কিন্তু কিন্তু অনেকেই কাঁচা আম সংরক্ষণ করে রাখেন! তা দিয়েই পরবর্তীতে আচার বানান। কাঁচা আমের আঁচার আমরা কে না পছন্দ করি! ভাত, খিচুড়ি, বিরিয়ানি- সব কিছুর সাথেই এই আঁচারটি যায়। আজকে চলুন কিভাবে কাঁচা আমের ঝাল আঁচার বানাতে হয় তা দেখে নেই।

 

উপকরণ

  • কাঁচা আম- ১ কেজি
  • কালো সরিষা- ১ টেবিল চামচ
  • শুকনো মরিচ- ২ টি
  • কালো জিরা- ১/২ টেবিল চামচ
  • পাঁচফোড়ন- ১ টেবিল চামচ
  • মৌরি- ১ টেবিল চামচ
  • রসুন বাটা- ২ টেবিল চামচ
  • হলুদ গুঁড়া- ১ চা চামচ
  • সাদা ভিনেগার- ১/২ কাপ
  • সরিষার তেল- ১ কাপ
  • নাগা মরিচ ৫-৬ টি বড় টুকরো করা
  • লবণ- স্বাদমতো
  • চিনি- ১/৩ কাপ

প্রণালী

আমগুলো ভালোভাবে ধুয়ে নিন। খোসা না ছাড়িয়ে  মাঝখান দিয়ে কেটে বীজ সরিয়ে নিতে হবে। এবার আমের টুকরোগুলোকে ছোট ছোট আপনাদের পছন্দমতো টুকরো করে কেটে নিন।

 একটি বড় বাটিতে পানি নিয়ে তাতে আমের টুকরোগুলো ভিজিয়ে রাখুন ১৫-২০ মিনিট।

 এরপর আমগুলো পানি বদলে ভালমত ধুয়ে নিতে হবে। তারপর একটি শুকনো ট্রে-তে বিছিয়ে রাখতে হবে। তারপর আমের গায়ের পানি না শুকানো পর্যন্ত রোদে শুকিয়ে নিন।

 একটি প্যানে মৌরি, কালো সরিষা, শুকনো মরিচ, কালো জিরা, পাঁচফোড়ন একসাথে দিয়ে টেলে নিন। তারপর নামিয়ে ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড করে গুঁড়ো করে নিন।

 মশলাটা তৈরি হয়ে গেলে তাতে রসুন বাটা ও হলুদ গুঁড়ো দিয়ে দিন। সাদা ভিনেগার দিয়ে দিন। তারপর নেড়েচেড়ে মিশিয়ে নিন।

 একটি হাড়িতে এক কাপের মতো সরিষার তেল নিয়ে তাতে মশলার মিশ্রণটি দিয়ে নিন। তারপর নাগা মরিচের টুকরোগুলো দিয়ে দিন। এবার এটিকে ১০ মিনিটের মতো কষিয়ে নিন।

 এবার এতে আমগুলো দিয়ে দিন। স্বাদমতো লবণ দিয়ে দিন। কিছুক্ষণ পর এতে চিনি দিয়ে দিন।

 চুলার আঁচ মিডিয়াম রেখে আঁচার জ্বাল দিতে হবে ৪০ মিনিটের মতো। এই সময়ে আম থেকে যে পানিটুকু বের হবে তাতেই আম সিদ্ধ হয়ে যাবে। এক্সট্রা কোন পানি দিতে হবে না।

 ৪০-৫০ মিনিট পর যখন দেখবেন আম সিদ্ধ হয়ে গেছে তখন নিজের স্বাদমত লবণ-চিনি দিতে পারেন আরও। দিয়ে আরেকটু জ্বাল দিয়ে নিবেন।

 এবার কাঠি দিয়ে কিছু আমের টুকরো ভেঙ্গে দিন। এতে আমের টুকরোগুলোর ভেতর আঁচারের ফ্লেভার আরও ভালমতো ঢুকবে।

 

লিখেছেন- তাহসিন তারান্নুম