মেকাপ, সম্পাদকের পছন্দ, সৌন্দর্য পরামর্শ

ফাউন্ডেশন সেপারেটিং ও তার সল্যুশন

তাসফিয়ার আজ সন্ধ্যাবেলা একটা বিয়ের দাওয়াত আছে। ওর বেস্টফ্রেন্ড সাফার বিয়ে। তাসফিয়া ভাবল, মেকআপটা নিজেই করে নেই। মেকাপতো তাসফিয়া ভালোই করে। তো সমস্ত সাজগোজ শেষ করে বিয়ের অনুষ্ঠানে চলে গেল। হঠাৎ সেলফি তুলতে গিয়ে ওর নজরে আসলো যে, ওর নাকের আশেপাশের মেকাপ কেমন জানি সরে সরে গিয়েছে। ব্যাপারটা কেমন না !!!

এটাকেই বলে ফাউন্ডেশন সেপারেটিং। যারা মেকাপ পছন্দ করেন, তাদের মধ্যে অনেকের সাথেই হয়ত মিলে যাচ্ছে, তাই না??

ফাউন্ডেশন এপ্লিকেশন-এর পরে যদি কিছু কিছু জায়গা যেমন নাক, মুখ, চোখের আশেপাশে ইত্যাদি জায়গায় ফাউন্ডেশন সরে সরে আসে, সেটাকেই ফাউন্ডেশন সেপারেটিং বলে।

তো চলুন আর কথা না বাড়িয়ে কিছু টিপস জেনে নেই, যার মাধ্যমে আপনি ফাউন্ডেশন সেপারেটিং হওয়া রোধ করতে পারবেন।

(১) ফাউন্ডেশন সেপারেটিং এর সব থেকে বড় একটি কারণ হচ্ছে, একগাদা মেকাপ ইউজ করা। অনেকেই ভাবেন, একগাদা মেকাপ ব্যবহার করলেই সেটা লং লাস্টিং হবে। এছাড়া, অনেকে ইচ্ছা করেই প্রচুর মেকআপ প্রোডাক্ট ইউজ করে থাকেন, যেটা মোটেই ঠিক নয়। একগাদা মেকাপ ব্যবহারের ফলে ফেস-এ একটা কেকি ভাব তৈরি হয়। যার ফলে, ফেসের কিছু কিছু স্থান যেমন নাক, চোখের এড়িয়া এবং মুখের এড়িয়াতে ফাউন্ডেশন সেপারেটিং হয়। চেষ্টা করবেন যতটা সম্ভব কম মেকাপ প্রোডাক্ট ইউজ করতে। এতে আপনাকে দেখতেও ভালো লাগবে আর ফাউন্ডেশন সেপারেটিংও কম হবে।

(২) ফাউন্ডেশন সেপারেটিং রোধ করতে সবসময় চেষ্টা করবেন লাইটওয়েট মেকাপ প্রোডাক্ট ব্যবহার করতে। এতে মেকাপ কেকি  হবে না এবং গলে যাওয়ার চান্সও কম থাকবে। ফলে, আপনার মেকাপও ভালো থাকবে।

(৩) অনেকেই মেকাপ শুরুর আগে একটা প্রাইমার লাগাতে ভুলে যান। সব সময় একটি ভালোমানের প্রাইমার ব্যবহার করতে চেষ্টা করবেন। এতে করে মেকাপ সারাদিন ভালো থাকবে। ফাউন্ডেশন সেপারেটিংও কম হবে। তবে খেয়াল রাখবেন, প্রাইমারটি যেন খুবই লাইটওয়েট হয় যাতে আমাদের স্কিন  নিঃশ্বাস নিতে পারে এবং হাইড্রেট  থাকে।

(৪) যাদের অয়েলি স্কিন তাদের ফাউন্ডেশন সেপারেটিং-টা খুব বেশি পরিমাণে হয়। তাই আপনাদের স্কিন কেয়ারে কিন্তু একটু মনোযোগ দিতে হবে এবং মেকাপ এপ্লাই করার পূর্বে স্কিন-টাকে সুন্দরভাবে প্রিপেয়ার করে নিতে হবে। এজন্য ক্লিনজিং, টোনিং এবং ময়শ্চারাইজিং  কিন্তু মাস্ট। এছাড়াও সাথে ব্লটিং শীটস রাখবেন। শুরুতে প্রাইমার লাগানোর পরে একটি ব্লটিং শীট নিয়ে ফেস-এ চেপে নিবেন। এতে ফেস এর বাড়তি অয়েলটা ব্লটিং শীট শুষে নিবে।

(৫) ফাউন্ডেশন সেপারেটিং রোধে  আপনার বন্ধু হতে পারে একটি ভাল মানের আই প্রাইমার। কারণ আইপ্রাইমার গুলো বেশ লং লাস্টিং হয় আর এগুলো স্কিন অয়েলি হওয়া রোধ করে। তাই মেকাপের শুরুতে প্রাইমার লাগানোর পরে যেকোনো ভালো মানের একটি প্রাইমার অল্প একটু একটি ছোট ব্রাশে নিয়ে আপনার নাকের উপরে ও থুতনিতে হালকা করে লাগিয়ে নিন এবং ব্লেন্ড করে নিন। এতে করে কিন্তু ওই এড়িয়া গুলো অয়েলি হয়ে গলে যাবে না এবং ফাউন্ডেশন সেপারেটিংও রোধ করবে।

(৬) মেকাপের শুরুতে মশ্চারাইজার এবং প্রাইমার লাগানোর পরে একটি ভালোমানের লুজ পাউডার নিয়ে আপনার পুরো ফেস-এ লাগিয়ে নিন। শুনতে অদ্ভুত লাগতে পারে যে, প্রাইমারের পরে আবার পাউডার কেন!!!!

তবে এটা কিন্তু একটি দারুণ মেকাপ হ্যাক। এরপরে আপনার ফাউন্ডেশন এবং বাকি মেকাপ এপ্লাই করে নিন। এই হ্যাকটির কারণে আপনার মেকাপ সারাদিন ভালো থাকবে এবং ফাউন্ডেশন সেপারেটিং হবে না।

(৭) চোখের আশেপাশের এড়িয়ায় ফাউন্ডেশন সেপারেটিং রোধ করতে বেকিং হতে পারে আপনার আদর্শ বন্ধু।

কেক বা পিজ্জা বেকিং-এর কথা বলছি না।!! বলছি মেকাপ বেকিং-এর কথা।

একটি মেকাপ স্পঞ্জে বেশ খানিকটা লুজ পাউডার নিয়ে আপনার চোখের নিচে লাগিয়ে রাখুন। ৫ মিনিট পরে একটি বড় ফ্লাফি ব্রাশের সাহায্যে এক্সট্রা পাউডারগুলো ঝেড়ে ফেলে দিন এতে করে আপনার চোখের নিচের মেকআপ সারাদিন ভালো থাকবে।

(৮) সবশেষে যেটা বলব, একটা ভাল সেটিং স্প্রে দিয়ে পুরো মেকাপ সেট করে নিবেন। এতে করে আপনার পুরো মেকাপটা লক হয়ে যাবে, মেকাপ লং লাস্টিং হবে এবং ফাউন্ডেশন সেপারেটিং হওয়া রোধ করবে। তাই একটি ভাল মানের সেটিং স্প্রে ব্যবহার করা মাস্ট।

এইতো জেনে নিলেন, ফাউন্ডেশন সেপারেটিং কি এবং কেমন করে ফাউন্ডেশন সেপারেটিং রোধ করবেন। আশা করছি, আপনাদের জন্য অনেক হেল্পফুল হবে।

 

 

লিখেছেন- জান্নাতুল মৌ

Comments

comments

Recommended