চুল, ত্বক, প্রসাধনী সম্পর্কে

বহু গুণের ল্যাভেন্ডার এসেনশিয়াল অয়েল

ল্যাভেন্ডার অয়েলের ব্যবহার কিন্তু বহুকাল থেকেই হয়ে আসছে। ত্বকের যত্ন হোক কিংবা চুলের যত্ন কোন ক্ষেত্রেই জুড়ি নেই এই ল্যাভেন্ডার অয়েলের। শুধুমাত্র যে এটার ঘ্রাণ অনেক বেশি ভালো তাই নয়। ঘ্রাণের সাথে সাথে এটির কার্যকারিতাও কিন্তু অনেক বেশি। ত্বকের নানাধরনের সমস্যার সমাধান করে থাকে এই এসেনশিয়াল অয়েলটি। ব্রনের সমস্যা, লার্জ-পোরস, শুস্কভাব এমন নানা ধরনের সমাধান কিন্তু পাওয়া যায় ল্যাভেন্ডার অয়েলেই। হেয়ার গ্রোথ এবং হেলদি স্কাল্পের জন্যেও ল্যাভেন্ডার অয়েলের রয়েছে বহু ব্যবহার। তাই আজ আমি আপনাদের সাথে ল্যাভেন্ডার অয়েলের কিছু গুণাবলি শেয়ার করব। নিঃসন্দেহে ত্বক এবং চুল ভালো রাখতে এই অয়েলটির কোন ত্রুটি নেই। তাহলে আসুন জেনে নিই, ত্বক এবং চুলের যত্নে এসেনশিয়াল অয়েলের কিছু ব্যবহার এবং উপকারিতা। তাহলে জনে নেয়া যাক ল্যাভেন্ডার অয়েলের গুণাগুণ এবং এর কিছু ব্যবহার-

(১) রাতে অনেকেই ঠিক করে ঘুমাতে পারেন না। নানা ধরনের সমস্যার কারনে অনেকেরই এমনটা হয়। ঘুম আসলেও দেখা যায় মাঝরাতে ঘুম ভেঙে যায়। আর এসকল সমস্যার সমাধানে ল্যাভেন্ডার অয়েল অনেক বেশি উপকারি।

(২) প্রায় সব মেয়েদের যেই সমস্যাটা অনেক বেশি থাকে সেটা হল চুল পড়া। আর এই সমস্যার সমাধানে ল্যাভেন্ডার অয়েলের ভূমিকা অনেক। হেয়ার গ্রোথে অনেক সাহায্য করে।

(৩) ব্যাথা নিরাময়েও ল্যাভেন্ডার অয়েল অনেক বেশি উপকারি।

(৪) কোথাও কেটে গেলে সাথে সাথে রক্ত বন্ধ করার জন্য ল্যাভেন্ডার অয়েল ব্যবহার করতে পারেন।

(৫) পুড়ে যাওয়া স্থানে সাথে সাথে ২-৩ ফোঁটা ল্যাভেন্ডার অয়েল লাগালে ব্যাথাও কমে যায় আবার তাপের জন্য যে কষ্টটা পাওয়া যায় সেটাও কমে যায়।

(৬) স্কিনের ইরিটেশনের জন্যে ১-২ ফোঁটা ল্যাভেন্ডার অয়েল ঐ স্থানে ব্যবহার করুন। দেখবেন ধীরে ধীরে ইরিটেশন কমে গিয়েছে।

(৭) মাশকারাতে যদি এক ফোঁটা ল্যাভেন্ডার অয়েল মিশিয়ে নেয়া হয় তবে চোখের পাপড়ির স্বাস্থ্যের জন্যে অনেক ভালো। এক্সট্রা ভার্জিন ক্যাস্টর অয়েলের সাথে সামান্য ল্যাভেন্ডার অয়েন মিক্স করে নিয়মিত ব্যবহারে পাপড়ি ঘন এবং লম্বা হবে।

(৮) অনেকেরই দেখা যায় ডার্ক সার্কেলের কারণে চেহারার সৌন্দর্য নষ্ট হয়। অ্যালোভেরা এর সাথে কয়েক ফোঁটা ল্যাভেন্ডার অয়েল মিশিয়ে নিয়ে চোখের চারপাশে ভালো করে ম্যাসাজ করে নিন। তাহলে আপনি ডার্ক সার্কেলের সমস্যা থেকে খুব সহজেই মুক্তি পেয়ে যাবেন।

(৯) খুশকি দূর করার জন্যে অলিভ অয়েল/ আরগান অয়েল ১০-১২ সেকেন্ড গরম করে তার মধ্যে ১০-১৫ ফোটা ল্যাভেন্ডার অয়েল মিশিয়ে ৫ মিনিটের মতো সময় ধরে আপনার স্ক্যাল্পে মেসেজ করুন।

(১০) ত্বকের শুষ্কতা দূর করতে ল্যাভেন্ডার অয়েল ব্যবহার করুন। মুখ ভালো করে পরিষ্কার করে শুধু ল্যাভেন্ডার অয়েল লাগান অথবা ময়েশ্চারাইজার এর সাথে মিশিয়ে ব্যবহার করতে পারেন।

এর গুণের কথা মাথায় রেখেই কিন্তু আজকাল স্কিন কেয়ার প্রোডাক্টগুলোতে ল্যাভেন্ডার এর নির্যাস ব্যবহার অনেক বেশি। আর উপকারিতার জন্যে এই এসেনশিয়াল অয়েলের জনপ্রিয়তাও অনেক। আপনি চাইলেই আপনার অনেক সমস্যার সমাধান পেয়ে যেতে পারেন এই ল্যাভেন্ডার অয়েলে। আর হাতের নাগালে এই দারুণ উপকারি তেলটি পেয়ে যাবেন এখানে

লিখেছেন – আনিন্তা আফসানা

Comments

comments

Recommended