খাদ্য ও স্বাস্থ্য, মেইন ডিস, রান্নাবান্না

দই বেগুন!

আমার বেগুন খেতে কখনোই পছন্দ ছিল না। দেখলেই  জানি কেমন লাগতো। একবার আমার এক কাজিনের বাসায় গিয়েছিলাম বেড়াতে। সেখানে সবার প্লেটে দই বেগুন দিয়ে দেয়া হয়, এমনকি আমার প্লেটেও। ওখানে মুরুব্বিদের সাথে খেতে বসেছিলাম বলে মানাও করতে পারছিলাম না যে আমি বেগুন খাব না। বাধ্য হয়েই অল্প মুখে নিলাম। আমি এরপর পুরোটা খেতে পারলাম। আমি নিজেই অবাক বেগুন আবার এতো মজারও হয় কীভাবে।ওই কাজিনের কাছ থেকে জেনে আসি দই বেগুনের রেসিপিটা এবং মাকে বলি। এখন আমার মা প্রায়ই  এভাবে বেগুন রান্না করেন, কারণ আমি দই বেগুন খেতে পছন্দ করি।

যারা বেগুন পছন্দ করেন তাদের তো দই বেগুনের এই আইটেমটি ভালো লাগবেই। আর যারা পছন্দ করেন না তারাও ট্রাই করে দেখতে পারেন। আপনাদেরও ভালো লেগে যেতে পারে আমারই মতো। তখন দেখবেন বারবার খেতে ইচ্ছে করছে। তবে আসুন জেনে নিই কিভাবে বানাবেন এই মজার দই বেগুন।

উপকরণ

  • ১ টি বড় বেগুন
  • জিরা  ১/২  টেবিল চামচ
  • কাঁচামরিচ ৩ টি
  • আদা বাটা ১ টেবিল চামচ
  • হলুদের গুঁড়া ১ টেবিল চামচ
  • মরিচের গুঁড়া ১/২ টেবিল চামচ
  • দই ২০০ গ্রাম
  • লবণ স্বাদ অনুযায়ি
  • চিনি ১ টেবিল চামচ
  • সরিষার তেল
  • ধনে পাতা কুঁচি  সামান্য

প্রণালী 

– বেগুন গোল গোল পিস করে কেটে নিন। এরপর তাতে হলুদের গুঁড়া এবং লবণ দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিন আর কিছুক্ষণের জন্য রেখে দিন।

– চুলায় একটি সসপ্যানে তেল গরম করে নিন। গরম তেলে বেগুনের টুকরোগুলো ভেজে নিন। যখন বেগুনের টুকরো বাদামি রঙের হয়ে আসবে তখন চুলা থেকে নামিয়ে নিন।

– একটি সসপ্যানে তেল গরম করে নিন আর তাতে জিরা দিন। কিছুক্ষণ জিরা টেলে নিন। এরপর এতে আদা বাটা দিয়ে আরো কিছুক্ষন আদা বাটা এবং জিরা তেলে ভেজে নিন। এতে কাঁচামরিচ, হলুদের গুঁড়া, মরিচের গুঁড়া  এবং সামান্য পরিমাণ পানি দিন। এরপর মসলাগুলো ভাজতে থাকুন তেলে কিছু সময়ের জন্য। এরপর এতে দই এবং চিনি দিয়ে ভালোভাবে নাড়তে থাকুন।

– এরপর মসলাতে ভাজা বেগুন  দিয়ে দিন। সবগুলো পিসে যেন মসলাটা ভালো করে লাগে। চুলায় আরো কিছুক্ষণের জন্য রাখুন বেগুন। এরপর এতে ধনেপাতা দিয়ে দিন। এবং সবশেষে এটি চুলা থেকে নামিয়ে আনুন।

আপনি এই দই বেগুন গরম ভাতের সাথে মজা করে খেতে পারেন। অনেকে পোলাও এবং খিচুড়ির সাথে খেতেও পছন্দ করে এই আইটেমটি।

ছবি – পিন্টারেস্ট ডট কম

রেসিপি –  আনিন্তা আফসানা

Comments

comments

Recommended