চুলের যত্ন

নিয়মিত এই হেয়ার প্যাকের ব্যবহারে চুল হবে ন্যাচারালি সোজা

আজকাল আমরা সবাই হেয়ার রিবন্ডিং এর সাথে কমবেশি পরিচিত। চুলকে একদম সুন্দর সোজা দেখানোর জন্য পার্লারে বা ঘরে বসে অনেকেই রিবন্ডিং করে থাকেন। এখানে কেমিক্যাল ব্যবহার করে চুলকে কৃত্রিম পদ্ধতিতে সোজা করা হয়। কিন্তু এসব ক্ষতিকর কেমিক্যাল ব্যবহারের কারণে আপনার চুলের গঠনই পরিবর্তন হয়ে যায় বলে এর সাইড ইফেক্ট হিসেবে চুল পড়া, আগা ফাটা, চুল নিষ্প্রাণ হয়ে যাওয়া এ ধরণের সমস্যা দেখা দিতে পারে।

কোন দাওয়াত বা প্রোগ্রাম থাকলে আপনি চুলে হিট প্রোটেক্টিং স্প্রে লাগিয়ে চুল আয়রন করে নিতে পারেন। কিন্তু সেটা তো প্রতিদিন করা যাবে না। আয়রনের তাপ ও আপনার চুলের জন্য ক্ষতিকর।

তাহলে করবো টা কি? চুল নষ্ট হবার ভয়ে কি সোজা সিল্কি চুল পাওয়ার আশা কি ছেড়ে দিবো? মোটেই না।প্রাকৃতিক উপাদান নিয়মিত ব্যবহার করে কিন্তু আপনি ধীরে ধীরে চুলের কোন ক্ষতি ছাড়াই, বরং চুলকে পুষ্টি জুগিয়ে চুল সোজা করতে পারেন। যেহেতু এ পদ্ধতিতে কোন কেমিক্যাল ব্যবহার করা হচ্ছে না, কাজেই এটার বেস্ট রেজাল্ট পেতে কিন্তু আপনাকে ধৈর্য্য ধরে পদ্ধতিটি নিয়মিত প্রয়োগ করতে হবে। চলুন তাহলে পদ্ধতিটি দেখে নেয়া যাক।

যা যা লাগবে

(১) ২ কাপ কোড়ানো নারিকেল

(২) ৬ টেবিল চামচ ফ্রেশ অ্যালোভেরা জেল (অ্যালোভেরার পাতা ভেঙে শ্বাসটা বের করে নিবেন)

(৩) ৬০ এম.এল. পানি

(৪)  ২ টেবিল চামচ লেবুর রস

(৫) ২ টেবিল চামচ কর্ণফ্লাওয়ার

(৬) ১ টেবিল চামচ এক্সট্রা ভার্জিন ক্যাস্টর অয়েল

Lemon-Hair-Gel


কীভাবে ব্যবহার করবেন?

ব্লেন্ডারে ২ কাপ কোড়ানো নারিকেল, ৬ টেবিল চামচ অ্যালোভেরা জেল এবং ৬০ এম.এল. পানি দিয়ে ভালো করে ব্লেন্ড করে নিন। বেশ ঘন একটা ক্রিমি স্ট্রাকচারের পেস্ট তৈরি হবে। একটি পাতলা কাপড়ে পেস্টটা নিয়ে কাপড়টা বেঁধে একটি পাত্রের উপর রেখে নিংড়ে নিন। নারিকেলের দুধ পেয়ে যাবেন।

আরেকটি পাত্রে ২ টেবিল চামচ কর্ণফ্লাওয়ার, ২ টেবিল চামচ লেবুর রস আর ১ টেবিল চামচ ক্যাস্টর অয়েল ভালো করে মিক্স করে নিন।এবার চুলায় একটি ননস্টিক প্যান/হাড়ি দিয়ে চুলার আঁচ একদম কমিয়ে তাতে নারিকেলের দুধ আর পরে বানানো কর্ণফ্লাওয়ার, লেবুর রস আর ক্যাস্টর অয়েলের মিশ্রণটি ঢেলে নিয়ে দ্রুত হাতে নাড়তে থাকুন। বেশ ক্রিমি পেস্টের মতো হয়ে এলে চুলা বন্ধ করে মিশ্রণটি আধা ঘণ্টা ঠাণ্ডা হবার জন্য রেখে দিন।

এবার পুরো মাথার চুলকে কয়েক ভাগে ভাগ করে আস্তে আস্তে পুরো মাথায় মিশ্রণটি লাগিয়ে নিন। চুলের গোঁড়া এবং আগা পর্যন্ত সব জায়গাতেই আস্তে আস্তে লাগিয়ে নিন। এবার এক-দুই ঘণ্টা অপেক্ষা করুন। (মিশ্রণটি যত দীর্ঘ সময় রাখতে পারবেন ফল তত ভালো পাবেন।) এ সময় গায়ে একটি টাওয়েল বা পুরানো টিশার্ট দিয়ে রাখুন, চুল বাঁধবেন না, চিরুনি দিয়ে সোজা অবস্থায় আঁচড়ে নিন এবং ঐ অবস্থায়ই রাখুন।

1_269

এবার আপনার রেগুলার ব্যবহারের শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে নিন। ফ্যানের বাতাসে চুল শুকিয়ে আঁচড়ে নিন।

এবার দেখুন তো, আপনার কোঁকড়া /ঢেউ খেলানো অবাধ্য চুল গুলো কতটা সুন্দর, সফট, মসৃণ, প্রাণবন্ত আর ন্যাচারালি সোজা দেখাচ্ছে। এই প্যাকটি মাথার স্ক্যাল্পে লাগানোর কারণে এটি আপনার চুলকে গোঁড়া থেকেও পুষ্টি জোগায় এবং সেই সাথে সোজা করে চুলের কোনরকম ক্ষতি করা ছাড়াই।

 ভালো ফলাফল পেতে প্রতি সপ্তাহে অন্তত একবার ব্যবহার করুন। এটি আপনার ডীপ কন্ডিশনিং এর কাজ ও করবে। Stay Beautiful, Stay Gorgeous.

ছবি – পিন্টারেস্ট ডট কম, জয়বাইন্যাচার ডট কম

 লিখেছেন – ফারহানা প্রীতি

Comments

comments

Recommended