ব্রাইডাল

গায়ে হলুদের কেনাকাটা

বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয় কনে-বর কে হলুদ লাগিয়ে। গায়ে হলুদের বিয়ের দিন এর মত ঝক্কি-ঝামেলা না থাকলেও, ছোট ছোট অনেক দিক দেখতে হয়। যেমন – বর-কনের ডালা সাজানো, ফুলের গয়না তৈরি, অতিথিদের জন্য উপহার কেনা, হলুদের স্টেজ সাজানো ইত্যাদি। যদিও হলুদের এসব কাজ নিজেরাই করতে অনেক মজা, তাও আজকাল অনেকেই সময়ের অভাবে অথবা না জানার কারণে এসব দায়িত্ব ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট এর হাতে তুলে দিয়ে নির্ভার থাকছে। আর গুনতে হচ্ছে মোটা টাকার অঙ্ক। কিন্তু আমরা আমাদের চির চেনা শাহবাগ, গাউসিয়া , নিউ মার্কেট থেকেই করে নিতে পারি গায়ে হলুদের বেশির ভাগ কেনাকাটা।

বর-কনের সাজপোশাকঃ

নিত্য নতুন ফ্যাশনের ভিড়ে বর কনেরাও এক্সপেরিমেন্ট করতে ভুলে না। এখন আর সেই দিন নেই যে গায়ে হলুদে কনে রা পরবে হলুদ শাড়ি আর বর পরবে সাদা পাঞ্জাবি। পরিবর্তনের হাওয়ায় এখন কনেরা লাল, সবুজ, খয়েরি থেকে শুরু করে সাদা শাড়িও পরে। আসল ফুলের গহনার পরিবর্তে এসেছে কাগজের অথবা প্লাস্টিক এর ফুলের গহনা।

সাধারাণত গায়ে হলুদে কনে রা টাঙ্গাইল এর সুতি শাড়ি, হাফ সিল্ক, সিল্ক কাতান, জামদানি শাড়ি বেশি পছন্দ করে। হালকা কাজের শাড়ি গায়ে হলুদের জন্য বেশি মানানসই। শাড়ি ভেদে এবং গুণগত মান অনুযায়ী হলুদের শাড়ির দাম পড়বে ২৫০০-১২০০ এর ভিতরে। কনের হলুদের শাড়ি কেনার নির্ভর যোগ্য জায়গা হিসাবে আছে –

১। বেইলি রোড এর টাঙ্গাইল শাড়ি কুটির

২। মিরপুর বেনারশি পল্লি

৩। বসুন্ধরা সিটি ( লেভেল ৩, ৪)

তাছাড়া রয়েছে মেয়েদের চিরচেনা পছন্দের জায়গা নিউ মার্কেট, গাউসিয়া ইত্যাদি। এসব জায়গায় বাজেটের মধ্যে সুন্দর শাড়ি পাবেন।

গায়ে হলুদে বর দের পাঞ্জাবি টি সাধারণত সুতি , সিল্ক অথবা হাফ সিল্ক এর হয়ে থাকে। বর দের পোশাকের জন্য সব চেয়ে পছন্দ সই জায়গা হল এলিফেন্ট রোড। সেখানে বিভিন্নও দোকান আছে। চাইলেই পছন্দ মত ডিজাইনে বানিয়ে অথবা কিনে নিতে পারেন সাশ্রয়ী দামে। এলিফেন্ট রোড এর অনেক বিখ্যাত দোকান হল সানাই, তার অনেক সুনামের সহিত বহু বছর ধরে বর দের বিয়ের সুট বিশ্বস্ততার সাথে বানিয়ে আসছে।

তাছাড়া লুবনান, ভাসাবি, শপারস ওয়ার্ল্ড, জারা তে অনেক ভালো মানের পাঞ্জাবি পাওয়া যায়। হলুদের পাঞ্জাবি জায়গাভেদে দাম হবে ৩০০০-১০০০০ এর ভেতরে।

গায়ে হলুদে কনের গহনাঃ

এখন আর সেদিন নেই যে কনেরা গাঁদা ফুল দিয়ে গহনা বানিয়ে পরবে। আসল ফুল কে ছাড়িয়ে আজকাল রকমারি ডিজাইন এর কৃতিম ফুলের গহনা দেখা যায় কনে দের পরতে। এদিক থেকে এসব তৈরি তে ফেসবুক এর কিছু অনলাইন পেজ আছে অনেক এগিয়ে। তারা কাস্টমার দের পছন্দ অনুযায়ী অথবা স্যাম্পল দেখিয়ে সুন্দর গহনা তৈরি করে দেয়। তাদের মধ্যে ওয়েডিং ডেকোর বাই নুসরাত অনেক জনপ্রিয়ও। তাছাড়া শাহবাগ, গাউসিয়া, এলিফেন্ট রোডের ফুলের দোকান এবং ডালার দোকানে স্যাম্পল অনুযায়ী অর্ডার দেওয়া যায়। গুলশান ২ এর ওয়েস্টিন এর পাশে কতো গুলো ফুলের দোকান আছে, তাদের হলুদের গহনা অনেক সুন্দর হয়।

গায়ে হলুদের ডালাঃ

সাধারণত গায়ে হলুদে ১০/১২ টা ডালা হয়ে থাকে।

#৩ টা ডালায় বর অথবা কনের গায়ে হলুদের জামা কাপড়, জুতা।

#একটি ডালায় গায়ে হলুদের সরঞ্জাম রাখি, বিয়ের গহনা, গায়ে হলুদের আনুসঙ্গিক জিনিস ।

#একটি তে হলুদ, মেহেদি, উপ্টান, প্রদীপ থাকে।

#একটি তে পান, সুপারি, জরদা থাকে।

# একটি তে গায়ে হলুদের সব কস্মেটিক্স।

# দুটি ডালা তে সব মিষ্টি।

# একটি তে ফল কারভিং করে রাখা ডালা।

নিজের ইচ্ছা এবং সামঞ্জস্য অনুযায়ী ডালা আরও কয়েকটি বারাতে পারেন। চাইলে ডালা গুলো কে ওয়েডিং মেনেজমেন্ট করে এমন কোন কোম্পানি, অথবা এলিফেন্ট রোড থেকে সাজিয়ে আনতে পারেন। মিষ্টি ডালার পরিবর্তে হাড়ি তে করে নিয়ে যেতে পারেন। নিজের সাধ্য এবং ক্রিয়েটিভ মন দিয়ে ডালা গুলো কে সুন্দর করে সাজাতে পারেন। ফেসবুকে কিছু ওয়েডিং ইভেন্ট মেনেজমেন্ট করে পেজ থেকে ডালা তৈরির আইডিয়া নিতে পারেন।

গায়ে হলুদের স্টেজঃ

গায়ে হলুদের স্টেযে হলুদ ফুল যেমন গাঁদা ফুল, হলুদ কারনেসন ইত্যাদির ব্যবহার এখনও আছে। রঙ্গিন ফুলের ব্যবহার বেশি থাকে। গায়ে হলুদের স্টেজ সাধারণত সারটিং কাপর, নেট, ফুল ইত্যাদি দ্বারা করা হয়। স্টেজ ভেদে এসব করতে গুনতে হবে ১৫০০০-৮০০০০।

অতিথিদের উপহারঃ

অনেক আগে থেকে গায়ে হলুদে অতিথিদের ছোট খাটো জিনিস দিয়ে বরন করার নিয়ম রয়েছে। সেটা হতে পারে টিপ, চিরুনি, কাঁচের চুড়ি, কানের দুল , ফুল ইত্যাদি। বিয়ে বাড়ির মানুষ রা উপহার নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকে, অতিথিদের উপহার এবং ফুল দিয়ে বরন করার জন্য। তাছাড়া ম্যাচিং করে অতিথিদের শাড়ি এবং জামা দেওয়ার রেওয়াজও চালু হয়েছে। তাই মেহমান দের উপহার দেওয়ার আগে বাজেট করে নিন, প্রতি সদস্যর জন্য কেমন খরচ পড়বে। তাহলেই সামর্থ্যের সাথে চাহিদার যোগান মিলবে। এসব উপহার কম দামে গাউসিয়া এবং নিউ মার্কেটে পাবেন।

গায়ে হলুদের প্রোগ্রাম করার উপযোগী কিছু সেন্টারঃ

১। রাওয়া ক্লাব

ঠিকানাঃ ডি ও আচ এস, মহাখালি, মহাখালি ফ্লাইওভার এর পাশে।

২। লেডিস ক্লাব

ঠিকানাঃ পরিবাগ, নেভি হাউস এর পাশে

৩। জিঞ্জিয়ান রেস্টুরেন্ট

ঠিকানাঃ ধানমন্ডি ২৭

৪। পাম ভিউ রেস্টুরেন্ট

ঠিকানাঃ আর্মি গলফ ক্লাব

যেকোনো অনুষ্ঠানের আগে দরকার সুন্দর পরিকল্পনা। আর এটি ত বিয়ে, জীবনের সব চেয়ে আনন্দঘন মুহূর্ত। তাই আগেই লিস্ট করে নিন, সব কিছু। সবাই কে কাজ ভাগ করে দিন, যাতে করে কোন কাজে ব্যাঘাত না ঘটে। আশা করি পোস্ট টি ভালো লাগবে। ভালো থাকুন সবাই।

লিখেছেনঃ তাপসী

ছবিঃ পিন্টেরেস্ট.কম

Recommended


Comments

comments

4 Comments

Leave a Comment

*