হাল ফ্যাশন

মেহেদিঃ অন্য কোথাও,অন্য কোনখানে

মেহেদি, যেন উৎসবের অন্য এক নাম। বিয়ে, ঈদ, পূজো, নববর্ষ যেকোন উৎসবই মেহেদি ছাড়া অসম্পূর্ণ। সেই আদিকাল থেকে চলে আসা মেহেদি পরার চল আজো কমেনি এতটুকু, বরং এর আবেদন বেড়েছে বহুলাংশে। মনে আছে ছোট্ট বেলায় ঈদের আগের রাতে পাড়ার সব মেয়েরা মিলে বসতাম মেহেদি দিতে। তখন মেহেদি পরার মানেই ছিল হাতের ঠিক মাঝখানে একটি গোল চাঁদ, আর প্রতিটি আঙ্গুলে মেহেদির টুপি। তারপর ধীরে ধীরে এল টিউব, গোল চাঁদের বদলে এল নানা নকশা। হাতের তালু, হাতের উলটো পিঠ থেকে কব্জি ছাড়িয়ে মেহেদি গিয়েছে কনুই পর্যন্ত। মেহেদি কিন্তু ব্যবহার করতে পারেন হাত বাদে অন্য জায়গা গুলোতেও। আসুন জেনে নেই সেই অন্য কোথাও মেহেদির পরার কথা।

০১. পায়ের গোড়ালিঃ

পায়ের নীচের পাতা ঘেষে বা পুরো উপরের পাতা জুরে মেহেদি পরেন অনেকেই। মেহেদি পরতে পারেন শুধু পায়ের গোড়ালিতে, পায়েলের মত। এজন্য বেছে নিন হালকা ও সরু ডিজাইন। ডিজাইন করতে পারেন শুধু গোড়ালির সামনের অংশে, ঝালর দেওয়া নূপুরের মত।

MEHEDI01

০২. হাতের বাজুতেঃ

হাতের বাজুতে করতে পারেন ভারী নকশা। মাঝে ভরাট নকশা করে দু’পাশে বাজু বন্ধনীর মত করে আঁকতে পারেন। বাজুতে সাধারণ মেহেদির বদলে ব্যবহার করতে পারেন কালো মেহেদি, রঙ্গিন মেহেদি অথবা গ্লিটার মেহেদি।

০৩. হাতের কব্জিতেঃ

হাতের কব্জিতে ট্যাটু আঁকা পুরো পৃথিবীতেই জনপ্রিয়। কিন্তু রিলিজিয়াস ভিউ থেকে ট্যাটু আঁকা ঠিক নয়। হাতের কব্জিতে তাই মেহেদি দিয়ে আঁকতে পারেন কোন নকশা, প্রিয় কোন উক্তি বা কথা।

mehedi02

০৪. ভালোবাসার প্রিয় নামটি লিখে রাখতে ইচ্ছে হয় সব জায়গায়। বিশেষ কোন দিবসে মেহেদি দিয়ে লিখে ফেলুন প্রিয় সেই নামটি।

০৫. পিঠে ও কাঁধেঃ

নতুন কিছু করতে চাইলে বা চমকে দিতে চাইলে পিঠে, কাঁধে বা গলার একপাশে ফুটিয়ে তুলুন ছোট্ট ফুলেল নকশা।

mehedi03

০৬. শুধুই আঙ্গুলেঃ

পুরো হাতের বদলে শুধু আঙ্গুলে মেহেদি পরতে পারেন। একটি বা দু’টি আঙ্গুলে আংটির মত নকশা ফুটিয়ে তুলুন।

mehedi04

এভাবে শুধু উৎসবে-পার্বণে নয়, অন্য রকম এই মেহেদির ব্যবহারে নিজেকে সাজিয়ে তুলতে পারেন প্রতিদিন। আজকাল গোল্ড মেহেদি বা অন্যান্য মেহেদি বাজারে পাওয়া যাচ্ছে, যেগুলো খুব গাঢ় রঙ দেয়, তবে দীর্ঘস্থায়ী হয় না। অপ্রচলিত স্থানে মেহেদি পরতে চাইলে ও বেশিদিন না রাখতে চাইলে বেছে নিন সেগুলো। যাদের অতিরিক্ত স্পর্শকাতর ত্বক তারা চামড়ায় মেহেদি পরার ক্ষেত্রে সতর্ক থাকুন। সেক্ষেত্রে বাজারের তৈরি মেহেদির চেয়ে বাসায় বাটা মেহেদি ব্যবহার করুন। পায়ের গোড়ালি বা বাজুতে মেহেদি পরলে জায়গা গুলো ওয়াক্সিং করে নিন নতুবা বাজে দেখাবে।

লিখেছেনঃ মৌসুমী তানিয়া

ছবিঃ নাচারাল এক্সপ্রেশন, দ্য হেনাপেজ, মেহেন্দিডিজাইন-ওমেনজওয়ান.কম

Recommended


Comments

comments

Leave a Comment

*